প্রতিশ্রুতিতেই আটকা বস্তিবাসীদের দাবি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 04.04.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

প্রতিশ্রুতিতেই আটকা বস্তিবাসীদের দাবি

স্মার্ট সিটির স্বপ্নে বিভোর কলকাতায় ভোট বস্তিবাসীদের কাছে নিরাপদ ও বৈধ বাসস্থান, পানীয় জল আর বিদ্যুৎ-এর প্রতিশ্রুতি নিয়ে আসে৷ প্রতিশ্রুতির কিছুটা পালিত হলেও বাকিটা অধরা৷

যুব বিশ্বকাপ আয়োজনের সুযোগ পেয়ে সেবার বদলে গিয়েছিল সল্টলেক৷ সঙ্গে সঙ্গে সুদৃশ্য শহরের বস্তি অদৃশ্য করার কাজে লেগে পড়েছিলেন কর্তাব্যক্তিরা৷ সৌন্দর্য বৃদ্ধির  নামে একাধিক বস্তি বিদেশিদের আড়ালে রাখতে হোর্ডিং-ফেস্টুনে ছেয়ে গিয়েছিল৷ সম্প্রতি বস্তির পরিচয় লুকাতে করা হয়েছে নাম-বদল৷ মানিকতলা মেন রোডের ‘মদের গলি' হয়েছে সারদা পল্লী, ‘পিতলপাড়া' আর ‘মারোয়াড়ি বাগান' হয়ে যায় বিবেকানন্দ পল্লী ও রামকৃষ্ণ পল্লী৷ পুরকর্তারা দাবি করেন, বস্তির হাল অনেকটাই ফিরেছে৷ তাঁরা পূর্ব কলকাতার হাটগাছিয়ার বস্তিকে দেশের প্রথম মডেল বস্তি হিসেবে তুলে ধরেছেন৷ কিন্তু অভিযোগ, বস্তির উন্নয়ন নিয়ে রাজ্যের কোনো নীতি নেই, আইনও নেই৷

পরিকাঠামোগত সমস্যা

বরাবরই বস্তি নিয়ে পরিকাঠামো সংক্রান্ত অভিযোগ ওঠে৷ জল, বিদ্যুৎ, নিকাশি, স্বাস্থ্য ইত্যাদি ক্ষেত্রে কতটা পরিষেবা পান এখানকার বাসিন্দারা? পরিসংখ্যান বলছে, শহরের তিন হাজারেরও বেশি বস্তিতে ১৮ লাখ মানুষ বাস করেন৷ এমন বস্তিও আছে যেখানে ১০-১২ জনে মিলে একটা ২৫০ বর্গফুটের ঘরে থাকেন৷ এক একটা বড় বস্তিতে ১০ হাজারের বেশি মানুষ থাকেন৷ ২৫-৩০ জন মিলে একটা শৌচালয় ব্যবহার করেন৷ ৬০০-৭০০ বস্তিবাসী রাস্তার ধারে একটা জলের কলের উপর নির্ভরশীল৷ যে কারণে অতিমারীতেও দূরত্ব বিধি সঠিকভাবে মানা যায় না৷ ঘটে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাও৷ স্বাভাবিকভাবে গত ১০ বছরে বাসন্তী কলোনি, ট্যাংরা, তিলজলা, কালিকাপুর, পার্ক সার্কাস, বাগবাজার, মানিকতলায় রুটিনমাফিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে৷ 

অডিও শুনুন 02:31

‘উন্নয়ন কাজ যথেষ্ট হয়েছে’

কী চাহিদা বস্তিবাসীদের?

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার মহেশতলার সন্তোষপুর ষোলোবিঘা বস্তির বাসিন্দাদের রাস্তা, বিদ্যুৎ, জল আর একটা স্কুল চাহিদার তালিকায়৷ এ বস্তির বাসিন্দা, ৪৪ বছরের প্রাণতোষ মণ্ডল (নাম পরিবর্তিত) ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমাদের এলাকা বছরে ন’মাস জলে ডুবে থাকে৷ বিধায়ককে সমস্যার কথা বললে তিনি নগরোন্নয়ন মন্ত্রীকে বলতে বলেন৷ ফলে আমাদের কষ্ট নিয়েই থাকতে হয়৷’’ প্রাণতোষ ১২ টাকা ইউনিটে বিদ্যুৎ ভাড়া নিয়ে থাকেন স্থায়ী বাসিন্দাদের কাছ থেকে৷ সাত-আট হাজার লোকের এই বস্তিতে তার মতো স্বল্প আয়ের লোকেরাই থাকেন৷ রাজমিস্ত্রি, দর্জি, রিকশাচালক, পাতকুয়ো মিস্ত্রি, জরি শ্রমিকের কাজ করেন তারা৷ এখানকার এক বাসিন্দার বলেন, ‘‘আমরা ভোট দিই৷ মিটিং-মিছিল করলে যেতে হয়৷ কিন্তু অনেক সমস্যা থেকেই যায়৷’’ এখানকার বস্তিবাসীদের অভিযোগ, পানীয় জলের জন্য বাড়ির মেয়েদের দূরে যেতে হয়৷ শৌচালয় প্রায় না থাকারই সমান৷ বৃষ্টি হলে বর্জ্য আর জলে ভাসমান রাস্তা দিয়েই মানুষকে যাতায়াত করতে হয়৷ অগ্নিকাণ্ডের নির্শম শিকার শিশুরাও৷ এছাড়া বস্তিবাসীদের জন্য বরাদ্দ ফ্ল্যাট নিয়ে দুর্নীতি হয়েছে বলেও অভিযোগ আছে৷ যদিও এ বিষয়ে স্থানীয় বিধায়ক দুলাল দাস কোনোমন্তব্য করতে চাননি৷

অডিও শুনুন 04:09

‘বড় সমস্যা শৌচাগার আর পানীয় জলের’

প্রধানমন্ত্রী বাংলায় এসে বস্তিবাসীর উন্নতির কথা বলেছেন৷ বিজেপি সভাপতি জে পি নাড্ডা বস্তিকে গুরুত্ব দিতে বলেছেন৷ তবু অবস্থা বদলায় না৷ দলিত ও সংখ্যালঘু উন্নয়ন পরিষদের তরফে ষোলোবিঘায় রাস্তা উঁচু করার কাজ হয়েছে৷ পরিষদের জাতীয় যুব সভাপতি সাবির আলি মল্লিক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এটা পুরোপুরিই আমাদের সামান্য সামর্থ্যে কাজ৷ এর পাশাপাশি স্বাস্থ্যসাথী কার্ড দেওয়া হয়েছে৷ শ্রমিক কার্ড দেওয়া হবে৷’’

অন্যান্য বস্তির হাল

কলকাতার বস্তিগুলোর কি কমবেশি একই হাল? কাশীপুর-বেলগাছিয়া বিধানসভার বিদায়ী বিধায়ক মালা সাহা বলেন, ‘‘উন্নয়নের কাজ যথেষ্ট হয়েছে৷ বেলগাছিয়া বস্তিতে অধিকাংশ বাড়িই পাকা৷ যারা জবরদখল করেন, তাঁদেরই বাঁশ, দরমা, ত্রিপলের ঝুপড়ি৷’’ মানিকতলা বস্তি ঘুরে উন্নয়নের চিহ্নমাত্র পাননি বিজেপি প্রার্থী ও জাতীয় ফুটবল দলের প্রাক্তন গোলরক্ষক কল্যাণ চৌবে৷ তিনি বলেন, ‘‘মানিকতলা বিধানসভায় ৪৩টি বস্তি রয়েছে৷ সবচেয়ে বড় সমস্যা শৌচাগার আর পানীয় জলের৷ বাসিন্দারা ছোট ছোট পাত্রে জল জমা করেন, যা বয়ে আনতে পারে ডেঙ্গি৷’’ এছাড়াও রয়েছে উচ্ছেদের সমস্যা৷ দিন কয়েক আগে দমদম ক্যান্টনমেন্টে মেট্রো রেলের জমিতে গড়ে ওঠা বস্তি ঘিরে ধুন্ধুমার হয়৷ মুখ্যমন্ত্রী ভোটের প্রতিশ্রুতিতে বলেছেন, রাজ্যে ২ লক্ষ ৭৯ হাজার পাট্টা দেওয়া হবে৷ দমদমের সিপিএম প্রার্থী পলাশ দাসের বক্তব্য, ‘‘বস্তিবাসীর স্বার্থে এই সরকার কিছুই করেনি৷ রাজ্য সরকার পাট্টা ইস্যুর যে কথা বলছে, সেটা পুরো মিথ্যে৷’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়