‘প্রতিদিন মারা যাচ্ছে একজন শরণার্থী শিশু′ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 29.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জেনেভা

‘প্রতিদিন মারা যাচ্ছে একজন শরণার্থী শিশু'

২০১৪ সাল থেকে গড়ে প্রতিদিন একজন শরণার্থী শিশু মারা যাচ্ছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ এঁদের বেশিরভাগের মৃত্যু ঘটছে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে৷

২০১৪ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে নিহত বা নিখোঁজ অভিবাসনপ্রত্যাশী শিশুর সংখ্যা অন্তত ১,৬০০

২০১৪ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে নিহত বা নিখোঁজ অভিবাসনপ্রত্যাশী শিশুর সংখ্যা অন্তত ১,৬০০

শুক্রবার জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা আইওএম এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে৷ রিও গ্রান্দে নদী পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার চেষ্টা করার সময় মেক্সিকান বাবা ও সন্তানের মৃত্যু নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে বিশ্বজুড়ে৷ এর কয়দিন পরই প্রকাশ হলো এই প্রতিবেদন৷

আইওএম-এর প্রতিবেদনটির শিরোনাম দেয়া হয়েছে- ফ্য়াটাল জার্নি৷ ২০১৪ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত অন্তত ৩২ হাজার শরণার্থী নিহত হয়েছেন বা নিখোঁজ রয়েছেন৷ এর মধ্যে ১৮ বছরের কম বয়সির সংখ্যা ১,৬০০৷ এঁদের মধ্যে ৬ মাসের কম বয়সি শিশুও রয়েছে৷

সংস্থাটির গ্লোবাল মাইগ্রেশন ডেটা অ্যানালিস্ট ফ্রাঙ্ক লাক্সকো জানিয়েছেন, ‘‘দুর্ভাগ্যজনকভাবে, আমাদের মনে রাখতে হবে, শরণার্থীদের মধ্যে শিশুরাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শিকার৷''

গবেষকরা আশঙ্কা করছেন, বাস্তব সংখ্যা প্রতিবেদনের চেয়েও বেশি হতে পারে৷ অনেকের মরদেহ কখনই শনাক্ত করা সম্বব হয়নি৷ শিশুদের মৃত্যুর ঘটনা লিপিবদ্ধ করা আরও কঠিন, কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তাঁদের বয়স নির্ধারণে পর্যাপ্ত তথ্য পাওয়া যায় না৷

ভয়াবহ ভূমধ্যসাগর

অভিবাসীদের সবচেয়ে ভয়ংকর যাত্রাপথ হিসেবে এরই মধ্যে চিহ্নিত হয়েছে ভূমধ্য়সাগর৷ ২০১৪ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে শুধু ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়েই প্রাণ হারিয়েছেন ১৭ হাজার নয়শ জনের বেশি মানুষ৷ এর মধ্য়ে ৬৭৮ জন শিশু৷

তবে নিহতদের ১২ হাজারের মরদেহ হয় শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি, অথবা পানি থেকে উদ্ধারই করা যায়নি৷

আফ্রিকায় যেতে গিয়ে মারা গেছে অন্তত ৩৩৭ শিশু৷ তবে এই অঞ্চলের সঠিক তথ্য সবসময় না পাওয়ার কথাও বলা হয়েছে প্রতিবেদনে৷ এদের মধ্য়ে ইউরোপ আসার লক্ষ্যে উত্তর আফ্রিকায় যেতে গিয়ে মারা গেছে ১৪৪ শিশু৷

বিশ্বে শরণার্থী কয়েক লক্ষ শিশু

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মূলত পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে যোগ দিতে বা সংঘাত-সংঘর্য এড়াতেই শরণার্থী জীবন বেছে নিতে হয় শিশুদের৷ এছাড়া উন্নততর জীবন, ভালো জীবিকা এবং মৌলিক অধিকারের সন্ধানেও অনেকে দেশ ছাড়েন৷

২০১৭ সালের এক প্রতিবেদনে ইউনিসেফ জানিয়েছিল, বিশ্বজুড়ে তিন কোটি শিশু জন্মভূমি ছেড়ে অন্য দেশে বসবাস করছে৷ এর মধ্য়ে প্রায় সোয়া এক কোটি শিশু শরণার্থী এবং আরো ১০ লাখ শিশু অভিবাসনপ্রত্যাশী৷

এডিকে/এআই (রয়টার্স, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন