প্রকৃত অর্থে সবুজ হয়ে উঠছে বার্সেলোনা | অন্বেষণ | DW | 20.08.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

প্রকৃত অর্থে সবুজ হয়ে উঠছে বার্সেলোনা

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব আজই হাড়ে হাড়ে টের পাওয়া যাচ্ছে৷ বৃহত্তর উদ্যোগের উপর নির্ভর না করে বার্সেলোনা শহর কর্তৃপক্ষ নিজস্ব উদ্যোগে সবুজায়ন ও প্রকৃতি সংরক্ষণের বিশাল উদ্যোগ শুরু করেছে৷

সবুজ পাহাড় ও ভূমধ্যসাগরের মাঝে বার্সেলোনা স্পেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর৷ লক্ষ লক্ষ মানুষ প্রতি বছর এই শহরে আসেন৷ শুধু শহরের অভিনব পরিবেশ উপভোগ করতে নয়, স্থপতি আন্টোনি গাউডির কাসা মিলা ও সাগ্রাদা ফামিলিয়ার মতো বিশ্বখ্যাত ভবনও তাঁরা নিজের চোখে দেখতে চান৷

কঠিন লক্ষ্যমাত্রা

এবার বার্সেলোনা পরিবেশ সংরক্ষণের ক্ষেত্রেও খ্যাতি অর্জন করতে পারে৷ পৌর পরিষদের নগর সংক্রান্ত পরিবেশবিদরা ২০৩০ সালের মধ্যে বাড়তি ১৬০ হেক্টর সবুজ করে তোলার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছেন৷ অর্থাৎ বাসিন্দা প্রতি এক বর্গ মিটার সবুজ অংশ৷ বার্সেলোনা পৌর পরিষদের অক্টাভি বোরুয়েল ত্রান্চ বলেন, ‘‘এই পরিকল্পনা অবশ্যই বড় আকারের উচ্চাকাঙ্ক্ষা বটে৷ সেই লক্ষ্য পূরণ করতে পারলে স্থানীয় মানুষের অনেক সুবিধা হবে৷ সবুজ এলাকা দূষণ শুষে নিয়ে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে৷''

এমন পরিবর্তনের সত্যি প্রয়োজন রয়েছে৷ সাম্প্রতিক দশকগুলিতে বার্সেলোনা শহরের গড় তাপমাত্রা দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসের চেয়েও বেড়ে গেছে৷ এখন পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে মানুষের মনোভাবে পরিবর্তন ও একাধিক সবুজ প্রকল্পের পরিকল্পনা করা হয়েছে৷

পরিবহণ অবকাঠামোর সংস্কার

শহরের কেন্দ্রে গ্লোরিয়াস স্কোয়্যারে বিশাল খননকাজ চলছে৷ শহরের ব্যস্ততম পরিবহণ কেন্দ্র বিশাল নির্মাণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে৷ কাজ শেষ হলে যানবাহন মাটির নীচে সুড়ঙ্গ দিয়ে যাতায়াত করবে৷ উপরে বিশাল সবুজ পার্ক সৃষ্টি হবে৷ ত্রান্চ বলেন, ‘‘ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহারের প্রবণতা থেকে সরে এসে আমরা এমন এক পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাই যেখানে পায়ে হাঁটা, সাইকেল চালানো অথবা গণপরিহণ ব্যবস্থা ব্যবহার সহজ হয়ে ওঠে৷''

স্কোয়্যারের একটি অংশের কাজ শেষ হয়ে গেছে৷ শহরের নতুন এই সবুজ ফুসফুসের স্বাদ পেতে অনেক মানুষ সেখানে যাচ্ছেন৷ কিছু ছোট প্রকল্পও চলছে৷ যেমন গাছপালা কীটপতঙ্গের হাত থেকে রক্ষা করতে সেগুলির চারিপাশে বিশেষ ধরনের ফুলগাছ লাগানো হচ্ছে৷ এছাড়া গোটা শহরে সবুজ অংশগুলির মধ্যে এক নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার কাজও চলছে৷

ছাদের বাগান

ভিডিও দেখুন 05:40

বার্সেলোনায় তাপনিরোধক ছাদবাগান

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা করতে অদূর ভবিষ্যতে হাজার হাজার বাড়ির ছাদে আরও বেশি খাড়া বাগান সৃষ্টি করা হচ্ছে৷ সেখানে প্রতিবেশীরা জামাকাপড় শুকাতে গিয়ে গল্পগুজব করে থাকেন৷ বার্সেলোনা পৌর পরিষদের জুয়ান ব্যার্নার্দো মার্তিন মনে করেন, এর ফলে পরিস্থিতি পুরোপুরি বদলে যাবে৷ তিনি বলেন, ‘‘বার্সেলোনা শহরের অবকাঠামো আগেই তৈরি হয়ে গেছে৷ তাই এখন নতুন করে বাগান সৃষ্টি করা কঠিন৷ বারান্দা, ছাদ ও বাড়ির দেওয়াল সবুজ করে তোলাই একমাত্র সুযোগ৷''

তবে ছাদে এমন পরিবর্তনের আগে বাড়িঘরের কাঠামো পরীক্ষা করতে হয়৷ তাছাড়া ফ্ল্যাটের মালিকদেরও প্রকল্পে অর্থ ঢালতে হয়৷ পৌর কর্তৃপক্ষ এমন গাছপালা বেছে নিচ্ছেন, যেগুলি অত্যন্ত তাপ প্রতিরোধী এবং যেগুলির কম পানির প্রয়োজন হয়৷ সেই পানিও বৃষ্টির পানির ট্যাংকে জমা রাখার চেষ্টা করা হয়৷

প্রাকৃতিক তাপ নিরোধক ব্যবস্থা

নতুন এই সবুজ অংশ ছাদে উত্তাপের মাত্রা ৫০ শতাংশ পর্যন্ত কমাতে পারে৷ ফলে নীচের ফ্ল্যাটগুলির তাপমাত্রাও কমে যায়৷ শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ও হিটিং-এর প্রয়োজন কমে যায়৷ মার্তিন বলেন, ‘‘এটা থার্মাল ইনসুলেশনের মতো৷ পাথর, নুড়িপাথর, মাটি এবং অবশ্যই গাছপালা তার নির্দিষ্ট কাঠামোর সাহায্যে একসঙ্গে এক ধরনের বাফার বা ফাঁপা অংশ সৃষ্টি করে, যা ভবন ও তার আশেপাশের অংশের জন্য ইনসুলেশন সৃষ্টি করে৷''

সবুজায়নের এই পরিকল্পনা বার্সেলোনার ভবিষ্যতের জন্য বিশাল বিনিয়োগ৷ গত বছর কর্তৃপক্ষ এই লক্ষ্যে কমপক্ষে ৬ কোটি ইউরো ব্যয় করেছে৷

শিশুদের অংশগ্রহণ

নতুন প্রজন্মও বড় অবদান রাখছে৷ যেমন স্থানীয় একটি স্কুলে শিশুরা তাদের নতুন গাছপালা ও ছাদের বাগানের দেখাশোনা করছে৷ প্রকৃতির জন্য তাদের মনে সত্যি শ্রদ্ধাবোধ জন্মাচ্ছে৷ এক শিশুর মতে, গাছপালারও আবেগ আছে, তাই তাদের দেখাশোনা করতে হয়৷ একজন মনে করে, গাছপালা মারা উচিত নয়, কারণ এর কোনো অর্থ নেই৷ একটি শিশু বিভিন্ন ধরনের গাছপালা ও সেগুলির দেখাশোনার কায়দা শিখে খুশি৷

সবুজের এত বৈচিত্র্য, হাতের নাগালেই তাজা শাকসবজি এবং তাজা বাতাসের পাশাপাশি এই পরিকল্পনার আওতায় শহরে আরও বন্য প্রাণী আকর্ষণের লক্ষ্য স্থির করা হয়েছে৷ প্রকৃতিকে কাছে নিয়ে আসার এই বিশাল কর্মযজ্ঞ নানা প্রজাতির উদ্ভিদ ও প্রাণীকে বার্সেলোনা শহরে বাসা বাঁধতে উদ্বুদ্ধ করবে৷

নিকোল রিস/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন