প্রকৃতির ছবি তোলেন স্টেফান ফর্স্টার | অন্বেষণ | DW | 05.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

প্রকৃতির ছবি তোলেন স্টেফান ফর্স্টার

প্রকৃতির প্রতি ভালোবাসা থেকে প্রকৃতির ছবি তোলাকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন সুইজারল্যান্ডের স্টেফান ফর্স্টার৷ তিনি সাধারণত এমন জায়গার ছবি তুলতে পছন্দ করেন যেখানে খুব বেশি মানুষ যায়নি৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

সেসব জায়গার প্রতি পর্যটকরা বেশি আকৃষ্ট হতে পারেন ভেবে তিনি সেই স্থানগুলোর নাম উল্লেখ করেন না৷

ফর্স্টার বলেন, ‘‘আমার কাজের মধ্য দিয়ে আমি সবাইকে পৃথিবী আগে কেমন ছিল, ভবিষ্যতে কেমন হবে এবং কেমন থাকা উচিত, তা দেখাতে চাই৷ আমার কাছে এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ যে, আমি যেন প্রকৃতিকে একেবারে তার আসল রূপে দেখাতে পারি৷’’

ভিডিও দেখুন 04:32

ভালোবাসাকে পেশা বানিয়েছেন তিনি

সুইজারল্যান্ডের এই ফটোগ্রাফার ছবি তোলার জন্য বছরের প্রায় সাত মাস বাইরে থাকেন৷ তিনি বলেন, ‘‘মানুষ অনেক সময় জানতে চায়, আমি কীভাবে এত সুন্দর করে ল্যান্ডস্কেপের ছবি তুলি৷ এ বিষয়ে আমার উত্তর সবসময় একই থাকে৷ আপনি একটা এলাকা যত ভালোভাবে চিনবেন, তত ভালোভাবে আপনি ঐ এলাকার সুন্দর ছবি তুলতে পারবেন৷’’

৩৪ বছর বয়সি এই ফটোগ্রাফার সুইজারল্যান্ডের ভিল শহরে থাকেন৷ প্রকৃতিকে নিজের মতো করে অনুভব করা- এই ছিল ফর্স্টারের ছোটবেলার ভালোবাসা৷ ফর্স্টার বলেন, ‘‘আমার মনে হয় সবারই একটা নির্দিষ্ট সময় থাকে যখন তার নিজেকে খুব সুখী মনে হয়৷ আমার ক্ষেত্রে সেই সময়টা হচ্ছে তখন, যখন আমার পেছনে দরজাটা বন্ধ হয়ে যায়, আর আমি বনের দিকে ছুটে যেতে পারি৷ এই বন একসময় আইসল্যান্ড হয়ে যায়৷ আমার বয়স যখন ১৮ ছিল তখন আমি সেখানে গিয়েছিলাম৷ সেই স্মৃতি ধরে রাখার জন্য তখন আমার কাছে শুধু ক্যামেরা ছিল৷ এভাবে ছবি তোলার বিষয়টি এসেছে৷ আসলে প্রকৃতির প্রতি আমার ভালোবাসার বাই-প্রোডাক্ট হচ্ছে ফটোগ্রাফি৷’’

যতটা সম্ভব পৃথিবীকে আদিম রূপে দেখাতে চান এই প্রখ্যাত ফটোগ্রাফার৷ তিনি মাঝেমধ্যে লেন্স ফিল্টার ব্যবহার করেন, ছবি সম্পাদনাও করেন, কিন্তু কখনও রং নিয়ন্ত্রণ করেন না৷

উত্তর আইসল্যান্ডের অমসৃণ অঞ্চল তার খুবই প্রিয়৷ তাই বারবার সেখানে ফিরে যান তিনি৷

‘আইল্যান্ডস অফ দ্য নর্থ’ নামে একটি ছবির বই প্রকাশ করেছেন তিনি৷ গ্রিনল্যান্ড, নরওয়ে, ফ্যারো আইল্যান্ডস এবং অবশ্যই আইসল্যান্ডের ছবি তুলতে প্রায় ৮০ বার ঐ অঞ্চলে গেছেন তিনি৷

এই বইয়ের জন্য তাকে ছয় হাজার ছবি থেকে ১৬০টি ছবি বেছে নিতে হয়েছে৷ কঠিন কাজ৷ তিনি বলেন, ‘‘এটা আমার কাজের ভালো লাগার সময় নয়৷ ভালো লাগার সময় হচ্ছে বাইরে থাকা৷ ছবি বাছাইয়ের ক্ষেত্রে আমি একেবারেই আবেগী নই৷ অফিস, স্টুডিওতে তালা লাগিয়ে, মোবাইলে এয়ারপ্লেন মোড অন করে আমি ছবি দেখা শুরু করি৷ এক্ষেত্রে আমি বেশি সময় নেই না৷ যদি কোনো ছবি আমার প্রথমেই ভালো না লাগে, তাহলে আমি আর সেটা দেখি না৷’’

বর্তমানে প্রায় ৪০ শতাংশ ছবি ড্রোন দিয়ে তোলেন ফর্স্টার৷ এর ফলে কোনো জায়গা নষ্ট না করেই সেখানকার ছবি তোলা যায়৷ ছবি তুলতে ফর্স্টার প্রায়ই এমন জায়গায় যান যেখানে আগে কেউ যায়নি৷ পর্যটকদের ভিড় এড়াতে তিনি ছবি তোলার জায়গার নাম উল্লেখ করেন না৷ কারণ তার কাজ হলো, পৃথিবী কত সুন্দর, শুধু তা তুলে ধরা৷

আন্দ্রেয়াস লাইক্সনারিং/জেডএইচ

২০১৫ সালের ছবিঘরটি দেখুন...

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন