পোপের বাংলাদেশ সফর নিয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভাবনা | বিশ্ব | DW | 30.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

পোপের বাংলাদেশ সফর নিয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ভাবনা

কক্সবাজারের কুতুপালং শরণার্থী শিবিরে নবনির্মিত এক মসজিদের দায়িত্বে আছেন মৌলভি আব্দুল হালিম৷ মাস দুয়েক আগে এই রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে এসেছেন৷ পোপ ফ্রান্সিসকে তিনি চেনেন না৷

পোপের বাংলাদেশ সফর প্রসঙ্গে হালিমের কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রশ্ন করেন, ‘‘পোপ কে?''

২০ বছর বয়সের আরেক শরণার্থী শামসুন্নাহার ‘পোপ' শব্দটিকে ‘কোক' শব্দের সঙ্গে গুলিয়ে ফেলেছেন৷ আর মোহাম্মদ হাশিম মনে করেছিলেন, পোপ হয়ত একজন স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনীতিকের নাম৷ ‘‘আমরা মিয়ানমারে অন্যান্য নাগরিকের মতো স্বাধীনভাবে জীবনযাপন করতে চাই৷ আমরা রোহিঙ্গা এবং তাদের উচিত আমাদের স্বীকৃতি দেয়া৷ পোপ কি আমাদের ঘরবাড়ি ফিরে পেতে সাহায্য করতে পারবেন?'' জানতে চান হাশিম৷

তবে কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অনেকে আছেন যাঁরা পোপ ফ্রান্সিসকে চেনেন৷ মিয়ানমার সফরে পোপ ‘রোহিঙ্গা' শব্দটি উচ্চারণ না করায় তাঁদের অনেকে হতাশ৷ এছাড়া বাংলাদেশ সফরে পোপ কক্সবাজারের শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবেন বলে আশা ছিল তাঁদের৷ যেমন মায়ু আলি বললেন, ‘‘আমি আশা করেছিলাম রোহিঙ্গাদের আসল দুর্দশা সম্পর্কে জানতে পোপ কুতুপালংয়ে আসবেন৷ তিনি এখানে এলে আমরা প্রতিদিন কীরকম পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছি তা আরও ভালো অনুভব করতে পারতেন৷'' মিয়ানমার বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্র ছিলেন মায়ু আলি৷ কিন্তু ২০১২ সালে রোহিঙ্গা শিক্ষার্থীদের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ায় পড়ালেখা শেষ করতে পারেননি তিনি৷ মিয়ানমার সেনাবাহিনী সম্প্রতি তাঁর বাড়ি পুড়িয়ে দিলে পরিবারসহ মাস দুয়েক আগে বাংলাদেশে আসেন তিনি৷

পোপ ফ্রান্সিসের অবশ্য ঢাকায় ১৫ জন রোহিঙ্গা শরণার্থীর সঙ্গে দেখা করার কথা রয়েছে৷

কুতুপালংয়ে শরণার্থীদের নিয়ে কাজ করা সংগঠন ‘মাইগ্রেন্ট অফশোর এইড স্টেশন' এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা রেগিনা কাট্রামবোন আশা করছেন, সবাইকে অবাক করে দিয়ে পোপ শিবির পরিদর্শনে আসবেন৷ ‘‘পোপের রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন না করার কারণ সম্ভবত নিরাপত্তা৷ তবে আমি এখন মনে করি পোপ আমাদের অবাক করে দিয়ে এখানে আসার সিদ্ধান্ত নেবেন৷ তিনি এমন এক পোপ যিনি চমক দিতে পছন্দ করেন,'' বলেন কাট্রামবোন৷

এদিকে, জার্মানি ভিত্তিক রোহিঙ্গা অ্যাক্টিভিস্ট নেয় স্যান লুইন মনে করছেন, বার্মার কার্ডিনাল চার্লস মাউং বো'র চাপের কারণে মিয়ানমার সফরে পোপ রোহিঙ্গা শব্দটি ব্যবহার করা থেকে বিরত থেকেছেন৷ তবে মুসলিমপ্রধান বাংলাদেশ সফরে পোপ রোহিঙ্গা শব্দটি ব্যবহার করবেন বলে আশা করছেন তিনি৷ নেয় স্যান লুইন এখন বাংলাদেশ সফর করছেন৷

প্রতিবেদনটি নিয়ে আপনার কোনো মন্তব্য থাকলে লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়