পূর্ব জার্মানিতে দশগুণ বেশি বিপদে শরণার্থীরা | বিশ্ব | DW | 25.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

পূর্ব জার্মানিতে দশগুণ বেশি বিপদে শরণার্থীরা

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, জার্মানির অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় পূর্বের কয়েকটি রাজ্যে শরণার্থীরা বেশি বিদ্বেষের শিকার হয়েছেন৷ গবেষকরা তার কারণ ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছেন৷

২০১৩ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে সংঘটিত ১,১৫৫টি ঘটনার তথ্যের ভিত্তিতে এই ব্যাখ্যা দিয়েছেন ‘লাইবনিজ সেন্টার ফর ইউরোপিয়ান ইকনমিক রিসার্চ'এর গবেষকরা৷ তাঁরা বলছেন, এই সময়ে পূর্ব জার্মানিরে রাজ্যগুলোতে বসবাসকারী শরণার্থীরা পশ্চিমের তুলনায় দশগুণ বেশি বিদ্বেষের শিকার হয়েছেন৷ গবেষণাটি রবিবার প্রকাশিত হয়েছে৷

গবেষণা বলছে, এই তিন বছরে শরণার্থীদের জন্য সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল ছিল স্যাক্সনি রাজ্যের ওস্টার্জগেবির্গে এলাকা৷ অঞ্চলটি চেক প্রজাতন্ত্রের সীমানার কাছে অবস্থিত৷

এছাড়াও, বিপজ্জনক অঞ্চল হিসাবে উঠে এসেছে পোলিশ সীমান্তের পাশের জেলা উকেরমার্ক ও সালেক্রাইস জেলার নামও৷

বিপদ কেন?

ঐতিহাসিকভাবেই, জার্মানির পূর্বাঞ্চলে পশ্চিমের চাইতে কম সংখ্যায়  বিদেশি শরণার্থী এসেছেন৷ তুলনায়, পশ্চিম জার্মানিতে সেই ষাটের দশক থেকেই বিপুল সংখ্যক বিদেশি বাস করছেন, যার মধ্যে তুরস্ক থেকে আসা অতিথি-শ্রমিকদের সংখ্যা নেহাত কম নয়৷ 

কিন্তু গবেষকদের মতে, কোন জায়গায় বেশি সংখ্যায় বিদেশিরা রয়েছেন, তা মোটেও বাড়তে থাকা বিদ্বেষী অপরাধের কারণ হতে পারে না৷ এর পেছনে রয়েছে অভিবাসন নীতিসহ অন্যান্য কারণও৷

গবেষকদের মতে, যদিও বিদেশিদের বিরুদ্ধে সংগঠিত অপরাধের পেছনে সেভাবে কোনো স্পষ্ট অর্থনৈতিক কারণ পাওয়া যায়নি, তবুও এই সমস্ত অঞ্চলে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি সার্বিক সচেতনতা বৃদ্ধির প্রয়োজন রয়েছে৷

তাঁরা আরো বলেন যে, যে সমস্ত জায়গায় ঐতিহাসিকভাবে বিদেশিবিরোধী, উগ্রজাতীয়তাবাদী চেতনার বাড়াবাড়ি ছিল, সেইসব জায়গাতেই বর্তমানে এমন অপরাধ প্রবণতা দেখা যাচ্ছে৷

রিচার্ড কনর/এসএস

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন