পুলিশি রাষ্ট্রই তো ভালো, কী বলেন? | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 26.05.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

পুলিশি রাষ্ট্রই তো ভালো, কী বলেন?

বাংলাদেশ একটি পুলিশি রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বা এর মধ্যে হয়েও গেছে৷ এখানে সামাজ ও রাষ্ট্রের মোরাল ও এথিকস দেখার ও মেনটেইন করার দায়িত্ব পুলিশ বাহিনীর৷

বাংলাদেশ কি পুলিশি রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে?

ফাইল ছবি

তারা আদর করে বুঝাবেন, না বুঝলে চোখ রাঙাবেন, তাতে কাজ না হলে গারদে রেখে দেবেন বা তার সঙ্গে অস্ত্র উদ্ধারে যাবেন৷ 

আমরাও মোটামুটিভাবে তাই চাই৷ কারণ, আমাদের চাওয়া এক্ষুণি পূরণ করতে হবে৷ তার ফলে বেল আর নোবেল সবক্ষেত্রেই পুলিশের ভূমিকাই উপসংহার৷ নোবেলের কথাই ধরা যাক৷ 

নোবেল কেমন গান করেন আমি জানি না৷ আমি কখনো শুনি নাই তাকে৷ রিয়েলিটি টিভি থেকে আসা নায়ক গায়কদের নিয়ে আমার আগ্রহ কম৷ এটা এক ধরনের পুরনো মানসিকতা বা একগুঁয়েমি ধরে নিতে পারেন৷ কিন্তু মোদ্দা এই যে, আমি নোবেলের গান শুনি নাই, শোনার আগ্রহও হয় নাই৷ 

খালেদ মুহিউদ্দীন, প্রধান, ডয়চে ভেলে বাংলা বিভাগ

খালেদ মুহিউদ্দীন, প্রধান, ডয়চে ভেলে বাংলা বিভাগ

সাংবাদিকতা করে জীবিকা নির্বাহ করি বলে কে কী ভাবছেন তার দিকে খেয়াল রাখতে হয় আমার৷ কয়েকদিন ধরেই দেখছি মাঈনুল আহসান নোবেলকে নিয়ে আমার ফেসবুক বন্ধুরা খুব উত্তেজিত৷ তার অপরাধের তালিকার দিকে নজর দেয়া যাক৷ তিনি নাকি লেজেন্ডদের শেখাবেন কীভাবে হিট গান করতে হয় এমন একটা স্ট্যাটাস দিয়েছেন৷ এতে করে আমাদের সবার লেজেন্ড অনুভূতিতে আঘাত লেগেছে৷ তিনি ও ইউটিউবার তাহসিনেশন পরষ্পরকে আক্রমণ ও বিকৃতি করেছেন৷ 

নোবেলকে এ ধরনের বিভ্রান্তিমূলক স্ট্যাটাস থেকে বিরত থাকতে ডিএমপির সাইবার ক্রাইম বিভাগের এডিসি নাজমুল ইসলাম তার ফেসবুকে একটি সতর্কতামূলক স্ট্যাটাস দেন৷ কিন্তু নোবেলের আপত্তিকর স্ট্যাটাসগুলো রয়ে গেলে তা র‌্যাব ২ এর নজরে আসে৷ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনির জামান তাকে কার্যালয়ে ডেকে নেন৷ সেখানে যাওয়ার পরে তিনি তার এসব কাজের ভুল বুঝতে পারেন এবং ক্ষমা চেয়ে ভিডিও বার্তা দেন৷ 

এর আগেও র‌্যাব, পুলিশ, ডিবি এই ধরনের সমাজ সংস্কারমূলক কাজ করেছে৷ কারো ভিডিওতে আপত্তিকর কোনো কিছু থাকলে বা কেউ সমাজের প্রচলিত নিয়ম ভাঙলে তাকে ডেকে নিয়ে উপদেশ, নির্দেশ দিয়েছেন৷ যাদের উপদেশ দেওয়া হয় তারাও সঙ্গে সঙ্গে তার কৃতকর্মের ভুল বুঝতেও পারছে৷ আমাদের অনেকে খুশি হচ্ছি৷ 

র‌্যাব বা পুলিশরাই যে অদূর ভবিষ্যতে আমাদের মাতবর আর পঞ্চায়েত হতে যাচ্ছেন, তাতে আমাদের কোনো সন্দেহ রাখা উচিত না৷ রাষ্ট্রকাঠামোর আইন ও বিচারের উপর আমাদের আস্থার অভাব বা অনাস্থা এর একটি কারণ৷ তার চেয়েও বড় কারণ হলো আমাদের নিজেদের বিচারের উপর আমাদের সাংঘাতিক আস্থা৷

আমরা এক ফেসবুককে আঙুলের আওতায় আনতে পেরে কাউকে জুতার মালা দেওয়ার প্রস্তাব করি, কাউকে বাস্তব অবাস্তব আরো নিষ্ঠুর শাস্তি দেওয়ার প্রস্তাব করি৷ সমাজের শিক্ষিত মানুষ বলে যারা পরিচিত, এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরাও দাবি করেন, অমুক অপরাধের একমাত্র শাস্তি হলো তাকে নিয়ে র‌্যাব বা পুলিশের অস্ত্র উদ্ধারে যাওয়া৷ 

করজোড় নিবেদন, কিছু ভালো না লাগলে তা বর্জন করুন৷ যার যার দায়িত্ব তার তারই তা পালন করা উচিত৷ বাঁশের কাজ বা বাঁশির কাজ আলাদা৷ আর যদি মনে করেন, পুলিশি রাষ্ট্রই ভালো তবে তাই হোক৷ নিজেরাও পুলিশ, জজ হোন আর না পারলে আমাদের কথা শোনার জন্য আমাদের হয়ে যথাবিহিত ব্যবস্থা করার জন্য র‌্যাব বা পুলিশ তো আছেই৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন