পুটিন হেসে বাঁচেন না! | বিশ্ব | DW | 26.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভাইরাল ভিডিও

পুটিন হেসে বাঁচেন না!

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিনকে সাধারণত খুব একটা হাসতে দেখা যায় না৷ তবে এবার তাঁকে হাসিয়েছেন তাঁর কৃষিমন্ত্রী আলেক্সান্দার কাচোভ৷ কীভাবে? খুব সোজা: ইন্দোনেশিয়ায় শূকরের মাংস রপ্তানির কথা বলে৷

নিন্দুকে বলছে, রুশ কৃষিমন্ত্রী সরাসরি রাশিয়া থেকে ইন্দোনেশিয়ায় – এবং অপরাপর দেশে – শূকরের মাংস রপ্তানির প্রস্তাব দিয়েছেন৷ কথাটা ডাহা মিথ্যে৷ মন্ত্রীমশায় – অথবা তাঁর সচিবের নোট নেওয়া-দেওয়ার সময় কি করে যেন জার্মানির ইন্দোনেশিয়ায় শূকরের মাংস রপ্তানির কথাটা ঢুকে পড়ে৷ আহা, অমনটা তো হতেই পারে; মানুষের কি আর ভুল হয় না? বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মুসলিম অধিবাসী সম্বলিত দেশে শূকরের মাংস রপ্তানির কথাটা যদি মন্ত্রী-সান্ত্রী-সচিব-নাকিব কারো মাথায় এসে থাকে, তাহলে বলতে হবে সেদেশের কৃষিমন্ত্রী নয়, শিক্ষামন্ত্রীর সর লাও৷

কাচোভের বেশ ‘ফোলো' এসে গিয়েছিল৷ ‘‘এই দেখুন জার্মানরা তাদের শূকরের মাংসের উৎপাদনের অর্ধেকটাই রপ্তানি করে থাকে৷ জার্মানিতে বছরে ৫৫ লাখ টন শূকরের মাংস উৎপাদন হয়, তার মধ্যে প্রায় ৩০ লাখ রপ্তানি হয় নানা দেশে: চীনে, ইন্দোনেশিয়ায়, জাপানে, কোরিয়ায়, অন্যান্য দেশে৷ কাজেই আর যাই হোক, আমাদের শূকরের মাংসে থামলে চলবে না৷ আমাদের উৎপাদন বাড়াতে হবে৷ আপনারা জানেন, দূরপ্রাচ্যে আন্তরিকভাবে উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ানো হচ্ছে...৷''

ঠিক তখনই সেই একই টেবিলে বসা প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন বলে বসলেন: ‘‘ওরা শূকরের মাংস খায় না...৷''

কাচোভ তখনও বলছেন: ‘‘ওরা খাবে...'', অর্থাৎ আজ যদি না খায়, তো কাল খাবে৷ তার এক সেকেন্ডের মধ্যে নিজের বেচালটা বুঝতে পেরে বলছেন: ‘‘আমি আসলে দক্ষিণ কোরিয়ার কথা বলছিলাম৷ উৎপাদন বৃদ্ধি যার ফলশ্রুতি, সেটা হলো...''

পুটিন তখন হেসেই যাচ্ছেন, দু'হাতে মুখ ঢেকে হাসছেন৷ করবেনই বা কি৷ দেশের কৃষিমন্ত্রী যদি ইন্দোনেশিয়ার মতো মুসলিম-প্রধান দেশে শূকরের মাংস রপ্তানির কথা ভাবতে অথবা বলতে পারেন, তাহলে সেদেশের রাষ্ট্রপ্রধানের মাত্র দু'টি পন্থা বাকি থাকে: হয় হাসা, নয়ত কাঁদা৷

তাহলে পুটিন হেসে কি দোষ করেছেন, বলুন?

এসি/ডিজি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন