পিকাসোর মার্কামারা ডোরাকাটা জামার উৎস যেখান থেকে | অন্বেষণ | DW | 11.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

পিকাসোর মার্কামারা ডোরাকাটা জামার উৎস যেখান থেকে

বিখ্যাত চিত্রশিল্পী পাবলো পিকাসো নীল ডোরাকাটা জামা পরতে ভালোবাসতেন৷ আরো অনেক বিখ্যাত ব্যক্তির পছন্দ একই৷ ফ্রান্সের ব্রিটানি অঞ্চলেই জনপ্রিয় সেই জামা ও তার নক্সা চালু হয়েছিল৷

নাবিকের পোশাক পরার জন্য ব্রিটানির সৈকতের চেয়ে আর কোনো ভালো জায়গা থাকতে পারে কি? কারণ, ব্রেটন স্ট্রাইপ শার্ট ফ্রান্সের অ্যাটলান্টিক উপকূল থেকেই এসেছিল৷ আজ গোটা বিশ্বে এই ডোরাকাটা নক্সা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে৷ তাজা ভাব, ভালো লাগার অনুভূতি৷ সহজেই পরা যায়, পরে আরাম লাগে৷

প্রথমদিকে শুধু জেলেরাই এমন ডোরাকাটা নক্সার জামা পরতেন৷ তারপর সেটি ফ্রান্সের নৌবাহিনীর ইউনিফর্ম হয়ে ওঠে, যাতে জাহাজ ডুবে গেলেও নাবিকদের পানিতে সহজেই চিহ্নিত করা যায়৷

ফ্যাশন ডিজাইনার কোকো শানেল সমুদ্রসৈকতে ছুটি কাটানোর সময়ে এই নক্সার প্রেমে পড়ে যান৷ তিনি ব্রেটন শার্টকে ফ্যাশন পণ্য করে তুলতে সাহায্য করেন৷ আজও সেই ধারা চলে আসছে৷ শানেলের সর্বশেষ সৃষ্টিকর্মেও নাবিকদের ডোরাকাটা নক্সা বিশেষভাবে নজর কাড়ে৷

ভিডিও দেখুন 04:52

মার্কামারা ডোরাকাটা জামার উৎস

গত শতাব্দীর ষাটের দশক থেকেই খ্যাতিমান ব্যক্তিরা ব্রেটন শার্ট পরতে পছন্দ করেন৷ ফরাসি অভিনেত্রী ব্রিজিট বার্দো থেকে শুরু করে স্পেনের চিত্রকর পাবলো পিকাসো তাঁদের মধ্যে অন্যতম৷ ফ্যাশন জগতের উজ্জ্বল ব্যক্তিত্ব জঁ পোল গোলটিয়ে ১৯৮৩ সালে নটিকাল শৈলিকে পুনরুজ্জীবিত করে তোলেন৷

ফ্রঁসোয়া ত্রুফো পরিচালিত চলচ্চিত্র ‘জুল অ্যান্ড জিম’-এ জন মোরো ও তাঁর অন্যতম প্রেমিকের চরিত্রের পরনে এমন পোশাক দেখা গেছে৷ মুক্তি ও ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্যের কাহিনিতে বাতাসের ধাক্কায় এমন পোশাকের খোলামেলা রূপ বেশ খাপ খেয়ে গেছে৷

ব্রিটানি অঞ্চলের ক্যাঁপেয়ার শহর অ্যাটলান্টিক উপকূল থেকে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত৷ সেখানে চারিদিকে ব্রেটন শার্ট বিক্রি হচ্ছে৷ ‘মারিনিয়্যার’ নামেই সেগুলি বেশি পরিচিত৷ যেমন, ক্যাথিড্রালের ঠিক বিপরীতে এক বুটিক দোকানে এমন জামা শোভা পাচ্ছে৷ কেউ কেউ বলেন, এমন ডোরাকাটা নক্সা পরলে মানুষকে মোটা দেখায়৷ তবে তা সত্ত্বেও ভালোই বিক্রি হচ্ছে৷ শার্টের কাপড়ও ভালো হওয়ায় মানুষ পরে বেশ আরাম পান৷ এমনকি শীতকালেও পরা যায়৷

আর্মর লুক্স কোম্পানি প্রায় ৮০ বছর ধরে এই জামা উৎপাদন করে চলেছে৷ মৌলিক মডেলটি দেখতে ঊনবিংশ শতাব্দীর ফরাসি নৌবাহিনীর ইউনিফর্মের মতো৷ প্রত্যেকটি জামায় ২১টি নেভি ব্লু ডোরাকাটা রয়েছে, যা আসলে নেপোলিয়নের ২১টি নৌ অভিযানে বিজয়ের প্রতীক৷ প্রত্যেকটি লাইন ঠিক ১০ মিলিমিটার চওড়া৷ গলার ফাঁক নৌকার মতো দেখতে৷ দর্জি হিসেবে মারি ইভন ল্যমেত্র বলেন, ‘‘জামার কাপড় আগে থেকেই কাটা থাকে, এখানে সেগুলি শুধু জোড়া দেওয়া হয়৷ তারপর সেলাই মেশিনে প্রস্তুত করা হয়৷’’

আর্মর লুক্স দিনে পাঁচ হাজার জামা প্রস্তুত করে এবং গোটা বিশ্বে রপ্তানি করে৷ কোম্পানির প্রধান জঁ-গি ল্য ফ্লশ বলেন, ‘‘আমরা ১৮৫৮ সালের আসল মডেলটি নিয়ে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে রং ও আকার বদলেছি৷ বোতাম, স্লিট ও ফিতা যোগ করেছি, জামাকে ফ্যাশনদুরস্ত করে তুলেছি৷ প্রতি বছর আমরা ২০ থেকে ৩০টি নতুন মারিনিয়ে সৃষ্টি করি৷’’

কোম্পানির নিজস্ব ডিজাইন বিভাগে নিত্য নতুন জামার মডেল সৃষ্টি করা হয়৷ রপ্তানির দায়িত্বপ্রাপ্ত ম্যানেজার মার্কো পেত্রুচি সবক'টি মডেল ভালো করে চেনেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এই হলুদের বিন্যাস অন্যরকম৷ আমরা পিকে কাপড়ও তৈরি করি৷ এই পিকে সেলার শার্টের ডোরাকাটা নক্সা আলাদা৷ এছাড়া ফ্রান্সের জাতীয় পতাকার রং, অর্থাৎ নীল, সাদা ও লাল রয়েছে৷ রপ্তানির জন্য এটা জরুরি৷’’

ক্যাঁপেয়ার শহরে আর্মর লুক্স কোম্পানির নিজস্ব বুটিক রয়েছে৷ সেখানে শুধু জামাকাপড় নয়, অন্য অনেক পণ্যেও ডোরাকাটা ডিজাইন দেখতে পাওয়া যায়৷ যেমন, বিছানার চাদর, বালিশের ওয়াড়, ছাইদানি, ম্যাট, গলার স্কার্ফ, টুপি, ব্যাগ, ব্যাকপ্যাক ইত্যাদি৷ এমনকি রবার বুট ও অন্যান্য জুতোর উপরেও একই নক্সা! তবে এখনো শার্টই সবচেয়ে জনপ্রিয় পণ্য৷ কোম্পানির মতে, যে যুগেই মানুষ পরুক না কেন, এই জামা ও তার ফিটিং সত্যি কালজয়ী৷ আজ পরা যায়, ৫০ বছর আগেও পরা যেত৷

ব্রিটানি ও অ্যাটলান্টিক উপকূল থেকে অনেক দূরে থাকা সত্ত্বেও প্যারিস হিল্টন থেকে শুরু করে ডিয়ানে ক্র্যুগার ও এমা স্টোনের মতো অভিনেতাও গর্বের সঙ্গে ব্রেটন স্ট্রাইপ জামা পরেছেন৷ গোটা বিশ্বে বিপুল জনপ্রিয়তার কারণে ডোরাকাটা এই জামা ভবিষ্যতেও তার আকর্যণ ধরে রাখবে, এমনটা ধরে নেওয়া যায়৷

সুসানে ডাউস/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন