পানি, অ্যালবাট্রস আর প্রাচীন নাবিকের গল্প | বিশ্ব | DW | 14.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

পানি, অ্যালবাট্রস আর প্রাচীন নাবিকের গল্প

জ্বালানি হিসেবে তেল-গ্যাসের গুরুত্ব তো পরাশক্তিগুলোর কাছে বরাবরই রয়েছে৷ কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তন ও ক্রমবর্ধমান পরিবেশ দূষণের ফলে এর বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দেখা দিচ্ছে সুপেয় পানি৷

অনেক বিশেষজ্ঞদেরই ধারণা, কখনও তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ হলে, তা হবে জলাধারের দখল নিয়ে৷ ১৯৭৯ সালে মিশরের প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সাদাত বলেছিলেন, অন্য কোনো ইস্যুতে যুদ্ধে না জড়ালেও কেবল পানির জন্য ‘যুদ্ধেও যেতে পারে মিশর'৷

নীল নদের অববাহিকা দীর্ঘদিন ধরেই বেশ ঝঞ্ঝাটপূর্ণ৷ বুরুন্ডি, মিশর, ইরিত্রিয়া, ইথিওপিয়া, কেনিয়া, রুয়ান্ডা, সুদান, টানজানিয়া, উগান্ডা এবং ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অফ কঙ্গো – এই ১০টি দেশের ওপর দিয়ে বসে চলেছে নীল নদ৷ এখন পর্যন্ত এই দেশগুলো মিলে কেবল ২৫ কোটি মানুষ হলেও সে সংখ্যা বেড়ে চলেছে দ্রুতই৷

এত কম জনবসতিতেই যদি মিশর যুদ্ধে যাওয়ার কথা চিন্তা করতে পারে, বাংলাদেশ বা এশিয়ার অন্য ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলোর অবস্থা কী হতে পারে, তা সহজেই অনুমেয়৷ সমুদ্রের সমস্যা ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সহজেই মেটানো সম্ভব হলেও, নদীর পানির অবস্থা তথৈবচ৷

দীর্ঘদিন ধরে ভারতের সঙ্গে যৌথ নদীর পানিবণ্টন নিয়ে চলছে তিক্ততা৷ এর সবশেষ উদাহরণ তিস্তা৷ শুধু আন্তর্জাতিক রাজনীতি নয়, অভ্যন্তরীণ রাজনীতিও এই টানাপড়েনের আগুনে ঢালছে ঘি৷ বিজেপির নরেন্দ্র মোদীকে আটকাতে পশ্চিমবঙ্গে মমতা ব্যানার্জির জন্য বড় ধরনের অস্ত্রের নাম – তিস্তা৷ বিজেপি সরকার বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি করতে চাইলেও, মমতার দাবি, তাঁর রাজ্যেই ঠিকমতো তিস্তার পানি মিলছে না, ভাটির দেশে বেশি পানি ছেড়ে দেয়ার প্রশ্নই ওঠে না৷

তবে ভারতের পানি নিয়ে টানাটানি শুধু অভ্যন্তরীণ রাজনীতি বললেও ভুল হবে, অনেকক্ষেত্রে সত্যিকার অর্থেই পানির সংকট ব্যাপক প্রবল হয়ে দেখা দিচ্ছে৷

কাবেরী নদীর উৎস কর্ণাটক রাজ্যে হলেও তা তামিলনাড়ুর মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত হয়ে সাগরে মিশেছে৷ কাবেরী নদীর পানিবণ্টন নিয়ে ভারতের প্রতিবেশী দুই রাজ্য কর্ণাটক ও তামিল নাড়ুর বিবাদ কয়েক দশকের৷ দুই রাজ্যই বলছে কৃষিতে সেচের জন্য এই পানি দরকার৷

শেষ পর্যন্ত এ বিবাদ গড়িয়েছে আদালত পর্যন্তও৷ ২০১৬ সালে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট কর্ণাটক রাজ্যকে প্রতিবেশী তামিলনাড়ুতে আরো বেশি পানি সরবরাহ করার নির্দেশ দিয়ে এক রায় দেয়৷ রায়ের প্রতিবাদে কর্ণাটকের রাজধানী বেঙ্গালুরুতে ব্যাপক বিক্ষোভ হয়, পুলিশের গুলিতে নিহত হয় একজন৷

আসি বাংলাদেশের কথায়৷ ছোটবেলা থেকে পড়ে আসছি, বাংলাদেশ দেশ৷ শত শত নদীর পলিতে গড়ে ওঠা বিশ্বের বৃহত্তম এই বদ্বীপে পানি নিয়ে কখনও চিন্তা করতে হবে, ভাবা যায়?

কয়েক বছর আগে পানি নিয়ে রিপোর্ট করতে গিয়ে বেশ কিছু নতুন তথ্য জানতে পেরেছিলাম৷ প্রথমত, মাটির নীচে যে পানির পকেট থাকে, যাকে একুয়াফার বলা হয়, সেখান থেকে দ্রুতই পানি নিঃশেষ হচ্ছে৷

নদীর পানি পরিশোধন করে বেশিরভাগ পানির চাহিদা মেটানোর কথা কয়েক বছর আগে বলেছিলেন ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক৷ সরকারের নাকি যমুনা নদী থেকে পানি পরিশোধন করে ঢাকায় চাহিদা মেটানোর প্রকল্প বাস্তবায়নের পরিকল্পনা ছিল৷ কিন্তু এই কয়েক বছরেও সে বিষয়ে কোনো আপডেট নজরে আসেনি৷

ঢাকার একুয়াফারে যে পরিমাণ চাপ পড়ছে, কংক্রিটের জঙ্গলে পরিণত হওয়ার কারণে বৃষ্টির পানি, এবং আমাদের ব্যবহৃত পানি স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় তা পূরণ করতে পারছে না৷

ঢাকার চারপাশে চার নদী – বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা আর বালু৷ তুরাগ আর বালু তো আমরা দখল করতে করতে ধীরে ধীরে মৃতপ্রায় নদীতে পরিণত করেছি৷ বুড়িগঙ্গা আর শীতলক্ষ্যা বেঁচে আছে ধুঁকে ধুঁকে৷ যে পানি আমাদের অফুরন্ত সম্পদ হতে পারতো, সেটিকেই আমরা বছরের পর বছরে ধরে খুন করছি৷

ওয়াসার পানি শতভাগ বিশুদ্ধ বলে বেশ তোপের মুখে রয়েছেন ওয়াসার মহাব্যবস্থাপনা পরিচালক৷ এর কয়েকদিন আগেই একটি টিভি চ্যানেলে ঢাকায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে ওয়াসার পরিকল্পনা নিয়ে প্রতিবেদনে তাঁর সাক্ষাৎকারে শুনলাম৷ অবাক হয়ে শুনলাম, আমাকে ৫-৬ বছর আগে তিনি যে কথাগুলো বলেছিলেন, সেই একই পদে বসে থেকে এত বছর পরেও একই বক্তব্য দিয়েই যাচ্ছেন৷ এর মধ্যে আমার ক্যারিয়ারে পরবর্তন চলে এসেছে, কাজেও বিস্তর পরিবর্তন এসেছে, ওনার ‘ভদ্রলোকের এক কথায়' কোনো পরিবর্তন আসেনি৷

তবে ভূ-গর্ভস্থ পানির অতিব্যবহার আর ভূ-উপরিস্থ পানির দূষণ আমাদের কোন পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছে, পানির অভাবে মৃত্যুর কাছাকাছি যাওয়ার আগ পর্যন্ত হয়ত আমরা চোখ বন্ধ করেই থাকবো৷

বিভিন্ন পরিসংখ্যানমতে, পৃথিবীর এক বিলিয়ন মানুষ, অর্থাৎ প্রতি সাত জনে একজন নিরাপদ পানি পান না৷ প্রতি বছর ৩৪ লাখ মানুষ পানির দূষণ, ও পানি সংক্রান্ত রোগবালাইয়ের কারণে মৃত্যুবরণ করেন৷ তারপরও আমাদের সেদিকে যথেষ্ট নজর নেই৷

শেষ করি রাইনের গল্প দিয়ে৷

রাইন নদীর নিজের কোনো মাছ নেই৷

ইউরোপের ঠিক মধ্যিখানে ৬টা দেশের ওপর দিয়ে বয়ে গেছে রাইন নদী৷ নেদারল্যান্ডস, ফ্রান্স, জার্মানি, অস্ট্রিয়া, লিশটেনশ্টাইন এবং সুইজারল্যান্ড৷

মূলত রাইনের বড় অংশ পড়েছে জার্মানিতেই৷ আর এই নদীর তীর ঘেঁষেই গড়ে উঠেছিলো সভ্যতা৷ শিল্প বিপ্লবের সময় থেকে পানির প্রয়োজন, নদীপথের যাতায়াত, বর্জ্য নিষ্কাষণ সব মিলিয়ে রাইনের পাড়েই গড়ে ওঠে বড়বড় সব শিল্পকারখানা৷

বিশ শতকের ৭০ থেকে ৮০ সালের দিকে এই দূষণ চরম আকার ধারণ করে৷ রাইনকে তখন বলা হতো ইউরোপের পয়ঃনিষ্কাশন প্রণালী৷

একসময় রাইন নদীর স্যামন ছিলো বিশ্ববিখ্যাত৷ স্বাদে, গন্ধে অতুলনীয়৷ কিন্তু পরে ধীরে ধীরে এত বিষাক্ত হয়ে ওঠে রাইন, শুধু স্যামন না, সব ধরনের মাছই এই নদী থেকে বিলুপ্ত হয় চিরতরে৷

মরার ওপর খাঁড়ার ঘা৷ ১৯৮৬ সালে সুইজারল্যান্ডের বাসেলে ঘটে বিশাল এক রাসায়নিক দুর্ঘটনা৷ রাইনের পানিতে বিষাক্ত রাসায়নিক মিশে কয়েকশ' কিলোমিটার ভাটিতেও প্রায় সব প্রাণী মারা যায়৷ 

HA Asien | Anupam Deb Kanunjna

অনুপম দেব কানুনজ্ঞ, ডয়চে ভেলে

অথচ সেই বছরই যখন ডাচ পানিসম্পদ মন্ত্রী নিলি ক্রোয়েস বললেন, ‘আমি নদীতে স্যামন মাছ ফেরত চাই', স্বভাবতই সবাই তাঁকে পাগল বলেই ধরে নিয়েছিল৷

কিন্তু এই পাগলাটে মহিলা তা বাস্তবে করে দেখিয়েছিলেন৷ এই কাজে খরচ হয়েছিল প্রায় ২৫ বিলিয়ন ইউরো৷ অর্থাৎ, প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকা, যা বাংলাদেশের এখনকার জাতীয় বাজেটের অর্ধেকের চেয়েও বেশি৷

ছয় দেশ মিলে গঠন করে আন্তর্জাতিক রাইন রক্ষা কমিশন৷

রাইন নদীকে মোটামুটি পরিষ্কার করা গেছে গত তিন দশকের আপ্রাণ চেষ্টায়৷ মাছও ধীরে ধীরে ফিরতে শুরু করেছে৷

ছয় দেশের রাইন নদী দূষণমুক্ত করা গেলে এক দেশের বুড়িগঙ্গা কেন হবে না! সমস্যাটা কীসে?

ব্রিটিশ কবি স্যামুয়েল টেইলর কোলরিজের ‘দ্য রাইম অফ দ্য এনশিয়েন্ট মেরিনার' কবিতার একটি পংক্তি মনে পড়ছে৷ ‘ওয়াটার ওয়াটার এভরিহোয়্যার, নর অ্যানি ড্রপ টু ড্রিঙ্ক', অর্থাৎ সবদিকে পানি, কিন্তু পান করার পানি নেই৷ এই দীর্ঘ-কবিতায় নাবিকদের পথ দেখিয়ে নিয়ে যাওয়া এক অ্যালবাট্রস পাখিকে গুলি করে হত্যা করেন এক নাবিক৷ ফলশ্রুতিতে পথহারা নৌকার সবাইকে আটকে পড়তে হয় অ্যান্টার্কটিকার পানিতে৷

আমরাও কি সেই বোকা এনশিয়েন্ট মেরিনারে পরিণত হচ্ছি দিন দিন? যে পানি আমাদের বাঁচিয়ে রেখেছে, সে পানিকে আমরাই ধ্বংস করছি নিজ হাতে৷ ‘পানির অপর নাম জীবন'যদি হয়ে থাকে, আমরাও কি তাহলে আত্মহত্যার দায়ে অভিযুক্ত নই?

এনশিয়েন্ট মেরিনার বা প্রাচীন নাবিক পাগল হয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে নিজের বোকামির গল্প সবাইকে বলে বেড়াত৷ আমাদের বোকামির গল্প বলার জন্য হয়ত কেউ বেঁচেও থাকবে না৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন