পাখির ঝাঁকের অভিনব ছবি তোলেন স্পেনের ফটোগ্রাফার | অন্বেষণ | DW | 18.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

পাখির ঝাঁকের অভিনব ছবি তোলেন স্পেনের ফটোগ্রাফার

আকাশে পাখির ঝাঁক দেখতে কার না ভালো লাগে? স্পেনের এক ফটোগ্রাফার শুধু সেই মুহূর্ত নয়, পাখির ঝাঁকের এক অভিনব সার্বিক চিত্র সৃষ্টি করছেন৷ হাইস্পিড ফটোগ্রাফির কৌশল এমন অসাধারণ সৃষ্টিকর্ম সম্ভব করে তুলছে৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

স্পেনের কাটালুনিয়া অঞ্চলে লা টেরেটা উপত্যকায় ঘূর্ণিঝড়ের আকৃতি দেখা যাচ্ছে৷ পিরেনিজ পর্বতের দক্ষিণে একঝাঁক শকুনি উড়ে বেড়াচ্ছে৷ স্পেনের ফটোগ্রাফার চাভি বো সেই ঘটনা দৃশ্যমান করে তুলছেন

আকাশে পাখিদের চক্রাকারে ওড়ার দৃশ্য ধরে রাখতে চাবি-কে সেকেন্ডে কয়েক ডজন ছবি তুলতে হয়৷ চাভি বো তাঁর উদ্যোগের ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘‘একটি শকুনির আরও ছবি তোলা আমার উদ্দেশ্য নয়৷ এমন অনেক ছবি রয়েছে৷ বরং প্রকৃতির নতুন ধরনের সৌন্দর্য দেখাতে চাই৷ পাখিদের ওড়ার ছন্দ সেই সৌন্দর্য সৃষ্টি করে৷''

তাঁর কাজ অনেকটা ক্যালিগ্রাফি-ভিত্তিক শিল্পকর্মের মতো৷ পাখিরাই আকাশে সেই রেখা সৃষ্টি করে৷ যেমন পানকৌড়িদের সুন্দর প্যাটার্ন বা নক্সা, হেরিং গাল পাখিদের যাত্রাপথ অথবা আইসল্যান্ডের আকাশে ফালমার ও পাফিন পাখির চলাচল৷

চাভি বো বার্সেলোনা শহরে থাকেন৷ ৮ বছর ধরে তিনি ‘অর্নিটোগ্রাফিস' নামের ছবির প্রকল্প নিয়ে কাজ করছেন৷ গ্রিক ভাষায় পাখি ও লেখার সমন্বয়ে শব্দটি গঠন করা হয়েছে৷ এককালের ফ্যাশন ফটোগ্রাফার এখন গোটা বিশ্বে নিজের তোলা পাখিদের পরাবাস্তব ছবি বিক্রি করেন৷ চাভি বলেন, ‘‘এমন প্যাটার্ন চিরকাল আমাদের কাছে অদৃশ্য ছিল৷ কারণ আমরা কোনো একটি মুহূর্তে তা দেখতে পাই৷ আর এখানে একটি ছবির মধ্যে বেশ কয়েক সেকেন্ডের ঘটনা স্থান পেয়েছে৷ এ যেন কয়েক সেকেন্ডকে একটি মুহূর্ত হিসেবে দেখার মতো অভিজ্ঞতা৷ সেটা অসম্ভব হলেও আমরা তা করতে পারি৷''

ভিডিও দেখুন 04:17

তাঁর ক্যামেরায় শুধু পাখির ঝাঁকের ছবি

একটি ছবি সৃষ্টি করতে চাভি বো কয়েক'শ ছবি নিখুঁতভাবে পর পর সাজান৷ সামান্য ব্যবধানে তোলা ফটোগুলি ‘ক্রোনোফোটাগ্রাফি' প্রক্রিয়ায় একত্র করা হয়৷ ঊনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে এই কৌশল সৃষ্টি হয়েছিল৷ ১৮৭৮ সালে এডওয়ের্ড মাইব্রিজ এই প্রক্রিয়ার সাহায্যে প্রমাণ করতে পেরেছিলেন, যে ঘোড়া দৌড়ানোর সময়ে কয়েক মিলিসেকেন্ডের জন্য শূন্যে ভাসে৷

চাভি বো-র ছবিগুলিতে অবশ্য এককভাবে কোনো পাখি চেনা যায় না বলা চলে৷ তিনি বলেন, ‘‘পাখিদের নড়াচড়ার প্যাটার্নই আসল বিষয়৷ অনেকে তার মধ্যে ডিএনএ শৃঙ্খল, তার অথবা কম্পিউটার গ্রাফিক দেখতে পান৷ সেটাই আমার আগ্রহের কারণ৷ প্রথমবার দেখলে ঠিক কী চোখে পড়ে?''

ছোটবেলায় চাভি বো তাঁর পিতামহের সঙ্গে অসংখ্য পাখি পর্যবেক্ষণ করতেন৷ তখন থেকেই পাখি তাঁর বিস্ময়ের কারণ৷ মোটিফ খুঁজতে তাঁকে বেশিদূর যেতে হয় না৷ কারণ তাঁর মতে, সব জায়গায় পাখি মানুষের চারিপাশেই রয়েছে৷ যেমন বার্সেলোনা শহরের পার্ক দে লা সিইউতাদেলা-য়৷ চাভি বলেন, ‘‘এই মুহূর্তে আমাদের চারপাশে কত পাখি, নানা রকম শব্দ ও ধ্বনি রয়েছে৷ কিন্তু আমরা সবসময়ে নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত থাকি বলে সে সব টের পাই না৷ আমরা মানুষের মনে কৌতূহল জাগিয়ে তুলতে চাই৷ তারা উপরে তাকিয়ে যেন এই সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারে৷''

হাইস্পিড ফটোগ্রাফির সাহায্যে ব্যস্ত জীবনের মাঝে একটু বিরতি৷ চাভি বো সময়কে সন্নিবিষ্ট করে অদৃশ্যকে দৃশ্যমান করে তুলছেন৷

ক্রিস্টিয়ান ভাইবেসান/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন