পাকিস্তানে সম্ভাব্য জঙ্গি আস্তানায় হামলার দাবি ভারতের | বিশ্ব | DW | 26.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান-ভারত

পাকিস্তানে সম্ভাব্য জঙ্গি আস্তানায় হামলার দাবি ভারতের

ভারতীয় সৈনিকদের উপর ভয়াবহ হামলার জবাবে পাকিস্তানে অবস্থিত সম্ভাব্য জঙ্গি আস্তানায় হামলা চালিয়েছে ভারত৷ ইসলামাবাদ অবশ্য জানিয়েছে ভারতীয় হামলায় কোনো প্রাণহানি ঘটেনি, তবে নতুন দিল্লির দাবি, ‘অনেক যোদ্ধা' নিহত হয়েছে৷

পাকিস্তানের মাটিতে অবস্থিত সম্ভাব্য জঙ্গি আস্তানায় মঙ্গলবার হামলা চালানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে ভারত সরকার জানিয়েছে, নিজের দেশ রক্ষায় উদ্যোগ নেয়ার অধিকার দেশটির রয়েছে৷ বিমান হামলায় ‘অনেক যোদ্ধা' নিহত হয়েছে বলেও দাবি ভারতের৷

কাশ্মীরে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর বহরে হামলার জবাবে এই বিমান হামলা চালানো হয়েছে৷ নতুন দিল্লির দাবি, কাশ্মীরে সেই হামলা চালিয়েছিল পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী ‘জৈশ-ই-মোহাম্মদ'৷ সেই হামলায় অন্তত ৪০ ভারতীয় আধা-সামরিক সেনা নিহত হয়েছিল, যা ১৯৮৯ সালে কাশ্মীরে বিদ্রোহ শুরুর পর থেকে ভারতীয় বাহিনীর উপর সবচেয়ে বড় হামলা৷

পাকিস্তানে জঙ্গি আস্তানায় হামলা প্রসঙ্গে ভারতের মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী প্রকাশ জাভাদেকার বলেন, ‘‘আমাদের দেশ রক্ষায় এটা একটি দরকারি পদক্ষেপ ছিল৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এব্যাপারে সশস্ত্র বাহিনীকে নিজেদের মতো সিদ্ধান্ত গ্রহণের অনুমতি দিয়েছিলেন৷''

দেশটির পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখালি এক সংবাদ সম্মেলনে জনিয়েছেন, বিমান হামলায় জৈশ-ই-মোহাম্মদ এর অনেক , প্রশিক্ষক, সিনিয়র কমান্ডার এবং জিহাদি নিহত হয়েছে৷

এদিকে, পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর মুখমাত্র মেজর জেনারলে আসিফ গফুর দাবি করেছেন, ভারতীয় বিমানগুলো তাড়াহুড়া করে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরেরবালাকোটে কিছু বোমা ফেলে গেছে৷

বালাকোটের পুলিশ প্রধান ছগির হোসেন বার্তা সংস্থা এপিকে বলেছেন, অপেক্ষাকৃত কম জনবসতিপূর্ণ বন এলাকায় ভারতীয় যুদ্ধবিমান থেকে বোমা ফেলা হয়েছে৷ তিনি দাবি করেন, ‘‘এতে কোনো প্রাণহানি হয়নি৷ এমনকি বোমা ফেলায় ভূমিতেও কোনো ক্ষতি হয়নি৷''

ঘটনাস্থলের আশেপাশের গ্রামবাসীরা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন যে, স্থানীয় সময় মঙ্গলবার ভোরে তারা চারটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছেন, এবং বোমার টুকরোর আঘাতে শুধুমাত্র একজন আহত হয়েছেন৷ 

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে বৈরি সম্পর্ক থাকা দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে ১৪ ফেব্রুয়ারির হামলার পর থেকে উত্তেজনা আরো বেড়েছে৷ কাশ্মীর অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে অতীতে দুইবার যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিল ভারত এবং পাকিস্তান৷

এআই/জেডএইচ (এপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন