পাকিস্তানের রাজনীতিতে প্যানডোরা পেপার্সের প্রভাব কী হতে পারে?  | বিশ্ব | DW | 06.10.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

পাকিস্তান

পাকিস্তানের রাজনীতিতে প্যানডোরা পেপার্সের প্রভাব কী হতে পারে? 

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত বেশ কয়েকজনের নাম এসেছে প্যানডোরা পেপার্সে৷ তবে, এই নিয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা৷

ইন্টারন্যাশনাল কনসর্টিয়াম অফ ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস (আইসিআইজে)-এর প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, পাকিস্তানের বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী সামরিক কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী এবং গণমাধ্যমকর্মী অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে মিলিয়ন মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিদেশে পাচার করেছেন৷

অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের জোটটির তদন্তে সাতশ'র বেশি প্রভাবশালী পাকিস্তানির নাম বেরিয়ে এসেছে৷ রবিবার এসব তথ্য প্রকাশিত হলে পাকিস্তানে আলোড়ন সৃষ্টি হয়৷

তবে, অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের তদন্তে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নাম উঠে আসেনি৷ দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ঘোষণা দিয়ে ২০১৮ সালে ক্ষমতায় আসেন তিনি৷ তার নির্বাচনের প্রচারণার পুরোটাই ছিল দুর্নীতবিরোধী অবস্থানকেন্দ্রিক৷

আইসিআইজে'র অনুসন্ধানে পানি ব্যবস্থাপনামন্ত্রী মোনিস এলাহি এবং অর্থমন্ত্রী শওকত তারিনের নাম রয়েছে৷ ১৪টি অফশোর ফাইনেন্সিয়াল ফার্ম থেকে ফাঁস হওয়া প্রায় ১২ মিলিয়ন গোপন নথি ঘেঁটে এসব তথ্য প্রকাশ করেছেন অনুসন্ধানী সাংবাদিকেরা৷

প্যানডোরা পেপারসে প্রকাশিত তথ্য নিয়ে বেশ দ্রুতই অবশ্য প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ইমরান খান৷ রোববার টুইটারে তিনি লিখেছেন,‘‘প্যানডোরা পেপারসে নাম থাকা আমাদের সব নাগরিকদের বিরুদ্ধে তদন্ত করা হবে এবং যদি কোনো অনিয়ম প্রমাণিত হয় তাহলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়া হবে৷''

খান লিখেছেন, ‘‘আমি এই মারাত্মক অন্যায়কে জলবায়ু পরিবর্তন সংকটের মতোই একইভাবে বিবেচনা করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি৷ এটা অনিয়ন্ত্রিত থাকলে ধনী এবং গরীবের মধ্যে অসমতা আরো বাড়বে কেননা দ্বিতীয় শ্রেণির মধ্যে দরিদ্রতা বাড়ছে৷ ফলে গরীব দেশগুলো থকে ধনী দেশগুলোতে অর্থনৈতিক অভিবাসনের হার অনেক বেড়ে যাবে গোটা বিশ্বে আরো অর্থনৈতিক এবং সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টি করবে৷''

এদিকে, দেশটির বিরোধী দলের রাজনীতিবিদরা মন্ত্রিপরিষদের যেসব সদস্য এবং তাদের সহযোগীদের নাম প্যানডোরা পেপারসে এসেছে, তাদের সবাইকে পদত্যাগ করে তদন্তের মুখোমুখি হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন৷

পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) সদস্য সাজিয়া মারি এই বিষয়ে বলেন, ‘‘আমরা ইমরান খানের মধ্যে আগের মতো প্রতিক্রিয়া দেখিনি যখন তিনি বিরোধী দলে ছিলেন এবং পানামা পেপারস প্রকাশিত হয়েছিল৷''

তিনি বলেন, ‘‘এবার আর আগের মতো উচ্ছ্বাস দেখা যাচ্ছে না কারণ কিছু নামের সঙ্গে খানের মন্ত্রিসভার সংযোগ রয়েছে৷ যারা জড়িত তাদের পদত্যাগ করা উচিত৷''

কিছু বিশেষজ্ঞ মনে করছেন প্যানডোরা পেপারসে অনেকের নাম থাকলেও তা পাকিস্তানের বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলতে পারবে না৷

‘‘এর কারণ মূলত খানের নিজের নাম তালিকায় আসেনি৷ এবং তিনি বেশ দ্রুতই জোরালো প্রতিক্রিয়ার মাধ্যমে বিষয়টির তদন্তের ঘোষণা দিয়েছেন,'' বলেন ওয়াশিংটনভিত্তিক উডরো উইলসন সেন্টার ফর স্কলারস এর দক্ষিণ এশিয়া বিশেষজ্ঞ মাইকেল কুগেলম্যান৷

রাজনৈতিক বিশ্লেষক মেহমেল সারফরাজও মনে করেন, কারো বিরুদ্ধে একেবারে সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থা নেয়া না হলে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে তেমন কোনো পরিবর্তন ঘটবে না৷

তিনি বলেন, ‘‘প্যানডোরা পেপারসে যাদের নাম প্রকাশিত হয়েছে তারা যদি তদন্তের নির্দোষ প্রমাণিত না হওয়া অবধি পদ থেকে সরে দাঁড়ান, তাহলে তা সরকারের জন্য সমস্যা তৈরি করতে পারে৷'' 

হারুন জানজুয়া (ইসলামাবাদ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন