পাকিস্তানি হিন্দুদের ভারতীয় উগ্রতাবাদীদের স্বাগত | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 24.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত-পাকিস্তান

পাকিস্তানি হিন্দুদের ভারতীয় উগ্রতাবাদীদের স্বাগত

পাকিস্তান ছেড়ে প্রতিবেশী ভারতে পাড়ি জমাচ্ছেন সংখ্যালঘু হিন্দুরা৷ এদিকে, নিজেদের দেশে সংখ্যালঘু নির্যাতনের অভিযোগে অভিযুক্ত উগ্র হিন্দুত্ববাদী নানা সংগঠন সীমান্তে তাদের স্বাগত জানাচ্ছে৷

সাত বছর আগে নিজের জন্মস্থান দক্ষিণ পাকিস্তানের হায়দারাবাদ ছেড়ে ভারতে পাড়ি জমান ধর্মবীর সোলাঙ্কি৷ তার সহযাত্রী অন্য হিন্দুদের মতো মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ পাকিস্তান ছেড়ে ভারতে শরণার্থী হন ধর্মবীর৷

নিজের জন্মভূমি, স্মৃতি যখন সীমান্ত পার হচ্ছিলেন তখন অনুভূতি কেমন ছিল? ‘‘আমার মনে হচ্ছিলো আমার পুনর্জন্ম হয়েছে'', এক কথায় উত্তর ধর্মবীরের৷ পাকিস্তান থেকে আসা আরো কয়েক শত শরণার্থীর সঙ্গে এখন ধর্মবীরও নতুন দিল্লির প্রান্তে এক কলোনিতে বাস করেন৷

পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দুরা ভারতের হিন্দুত্ববাদী সরকারের প্রণয়ন করা নাগরিকত্ব আইনে সুবিধা পেতে যাচ্ছেন৷ এই আইন অনুসারে ২০১৫ সালের আগে আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ থেকে আসা অমুসলিম শরণার্থীরা দ্রুত নাগরিকত্বের সুযোগ পাবেন৷

অভিযোগ রয়েছে, এই ‘বিতর্কিত' আইনের মাধ্যমে উগ্র হিন্দু জাতীয়তাবাদ উসকে দিয়ে নিজেদের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করাই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মূল লক্ষ্য৷

যেসব প্রতিবেশী দেশের অমুসলিম নাগরিকদের এই সুযোগ দেয়া হয়েছে সেসব দেশে ‘মুসলিমেরা সংখ্যাগরিষ্ঠ'৷ নতুন নাগরিকত্ব আইনে এই যুক্তি দিচ্ছে ভারত সরকার৷ কিন্তু একটি ধর্মকে বিশেষভাবে ‘আলাদা' করার মাধ্যমে এই আইন দেশটির সেক্যুলার সংবিধান পরিপন্থি বলে দাবি করছেন বিরোধীরা৷

জীবনমান ভালো হয়নি, নিরাপত্তা এসেছে

মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্তকে কয়েক দশকের বৈষম্য ও নির্যাতন থেকে পালানোর পথ হিসেবে দেখছেন পাকিস্তানের হিন্দু সংখ্যালঘুরা৷ ২০১৯ সালের মার্চ থেকে এখন পর্যন্ত ১৫ মাসে ১৬ হাজারেরও বেশি পাকিস্তানি শরণার্থীর আবেদন পাওয়ার কথা জানিয়েছে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷

আগের বছরগুলোর তুলনায় ভিসা দেয়ার পরিমাণও কয়েকশত থেকে কয়েক হাজারে পৌঁছেছে৷ করোনা মহামারির কারণে সীমান্তের বন্ধের আগ পর্যন্তই চলছিল শরণার্থীর ঢল৷

মহামারির কারণে নাগরিকত্বের প্রক্রিয়া আপাতত বন্ধ রয়েছে৷ ধর্মবীর মনে করেন, ‘‘নতুন নাগরিকত্ব আইন আমাদের মতো মানুষের জন্য জমি ও নাগরিক হিসেবে অন্যান্য সুবিধা পাওয়ার পথ করে দিয়েছে৷'' মজনু কা টিলা নামের একটি কলোনিতে থাকেন ধর্মবীর৷ যমুনা নদী পাড়ের শরণার্থী কলোনিটিতে অনেক তিব্বতী শরণার্থীও থাকেন৷ সেখানে পানি ও বিদ্যুতের কোনো ব্যবস্থা নেই৷ বেশিরভাগ শরণার্থীই দিনমজুর হিসেবে কাজ করেন৷ পাকিস্তানের চেয়ে জীবনের মান খুব একটা উন্নত হয়নি বলে মনে করেন শরণার্থীরা৷ কিন্তু তারপরও জীবনের নিরাপত্তা আগের চেয়ে অনেক বেশি বলে মনে করেন তারা৷

ধর্ম নিয়ে রাজনীতি

যমুনা নদীর পাড়ে কয়েক কিলোমিটার দূরে সিগনেচার ব্রিজের নীচে আরেক শিবিরে থাকেন কয়েকশ পাকিস্তানি হিন্দু পরিবার৷ আশেপাশের জঙ্গল থেকে গাছ কেটে কাঠ দিয়ে বাড়ি তৈরি করছেন তারা৷ শিবিরের বাসিন্দা ৩৫ বছরের নিরমা বাগড়ি বলেন, ‘‘এখানে অন্তত আমাদের মেয়ের জীবন নিরাপদ, সে নিজের ধর্ম পালন করতে পারবে৷'' সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে আসার আগে কেবল বলিউডের সিনেমা এবং দাদার কাছ থেকে শোনা গল্প ছিল ভারত সম্পর্কে তার একমাত্র অভিজ্ঞতা৷

নতুন দেশে ধীরে ধীরে মূল স্রোতে মিশে যাচ্ছেন শরণার্থীরা৷ কলোনির এক দম্পতি নাগরিকত্বও পেয়ে গেছেন৷ এতে তারা এতটাই আনন্দিত হয়েছেন যে সদ্য জন্ম নেয়া মেয়ের নামই রেখে দিয়েছেন ‘নাগরিকতা'৷

শরণার্থীদের প্রতি সহমর্মী হয়ে অনেক হিন্দু সংগঠনই সহায়তার হাত বাড়িয়েছে৷ খাবার, কাপড় তো বটেই সোলার লাইট এবং বসতবাড়ির নানা পণ্যও দান করেছেন অনেকে৷ কিন্তু এসব সংগঠনের সবগুলো অরাজনৈতিক নয়৷ রয়টার্স জানিয়েছে সিগনেচার ব্রিজের নীচের ক্যাম্পটিতে শিশুদের জন্য শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা পরিচালনা করছে উগ্রবাদী বিশ্ব হিন্দু পরিষদ৷

বিশ্ব হিন্দু পরিষদ সরকারে থাকা ভারতীয় জনতা পার্টি- বিজেপির সঙ্গে ব্যাপক ঘনিষ্ট এবং সংগঠনটির বিরুদ্ধে মুসলিম সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে৷ মোদী সরকারের অধীনে বিকশিত হতে থাকা নানা হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের মতো বিশ্ব হিন্দু পরিষদও ভারতে হিন্দু রাজত্ব প্রতিষ্ঠায় বিশ্বাস করে৷

যেসব হিন্দু পরিষ্দ কর্মী শরণার্থী ক্যাম্পে ঘুরে বেড়ান, তারা রয়টার্সের সাংবাদিকের কাছে নিজেদের পরিচয় প্রকাশ করতে চাননি৷ এমনকি অন্যান্য শরণার্থীদেরও গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে নিষেধ করেন তারা৷ এদের সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে ধর্মবীর সোলাংকি বলেন, ‘‘তারা কেবল আমাদের সাহায্য করার চেষ্টা করছে৷''

ভারতীয় মুসলিমদের ভাগ্যে কী রয়েছে?

ভারতের অনেক মুসলিম সংখ্যালঘুরও একই পরিণতি হতে পারে বলে আশঙ্কা বিশ্লেষকদের৷ মার্কিন কংগ্রেসের ইন্টারন্যাশনাল ফ্রিডম কমিশনের শুনানিতে ভারতের বিশেষজ্ঞ ও শিক্ষাবিদরা এ নিয়ে নিজেদের মত তুলে ধরেন৷ নতুন নাগরিকত্ব আইনে ভারতে দশকের পর দশক ধরে বাস করা বিশাল সংখ্যক মুসলিম সংখ্যালঘু নাগরিকত্ব হারাতে পারেন বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তারা৷

এই আইন অনুসারে নাগরিকত্ব বজায় রাখতে হলে ১৯৪৭ সালের আগে কারো পরিবার ভারতে এসেছে, এমন প্রমাণ দাখিল করতে হবে৷ তবে দেশভাগের পর থেকে কয়েক দশকে বিভিন্ন সময়ে পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আসা মুসলিমদেরই এমন কোনো বৈধ কাগজ নেই৷

ব্রাউন ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক আশুতোষ ভার্সনি বলেন, ‘‘সংখ্যালঘু মুসলিমদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়া হলে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে৷''

গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ অনুসারে জাতীয় নাগরিকত্ব নিবন্ধন - এনআরসিতে যারা নাম তুলতে ব্যর্থ হচ্ছেন, তাদের বিভিন্ন স্থানে সরকারি উদ্যোগে নির্মিত শিবিরে আটকে রাখা হবে৷ এমনকি প্রতিবেশী দেশগুলোতে তাদের জোর করে পুশব্যাক করার অভিযোগও উঠছে কোনো কোনো ক্ষেত্রে৷

এডিকে/কেএম (আরটিআর, এএফপি)

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন