পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচনের ইস্যু ‘বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী’ | বিশ্ব | DW | 04.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচনের ইস্যু ‘বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী’

আসামের মতো পশ্চিমবঙ্গেও অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করতে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি তৈরি করতে চায় বিজেপি৷ দলের সভাপতি অমিত শাহ সম্প্রতি এই মন্তব্য করায় রাজ্যের রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে বিতর্ক৷

ভারত ভাগের পর জনতার একাংশ পূর্ব পাকিস্তান থেকে ভারতে এসেছেন৷ আবার ভারত থেকেও একাংশ পূর্ব পাকিস্তানে গেছেন৷ বহু মানুষ তাদের ভিটেমাটি হারিয়েছেন৷ এই স্থানান্তর এক অর্থে বাধ্যতামূলকই ছিল৷

দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে দেশ বিভাজনের সময় যে পরিস্থিতি, তার সঙ্গে সাম্প্রতিক বিতর্কের যোগ নেই৷ ১৯৪৭ সালের বহু পরেও দেখা গিয়েছে, সীমান্ত দিয়ে মানুষের যাতায়াত থামেনি৷ বিভিন্ন কারণে অসংখ্য মানুষ সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে প্রবেশ করেছে৷ গোড়া থেকেই বিজেপির বক্তব্য, বাংলাদেশ থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষ ভারতে অনুপ্রবেশ করেছে৷ সেই অনুপ্রবেশে এখনও লাগাম টানা যায়নি৷ তাই জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসি তৈরি করে অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করা হবে৷ 

অডিও শুনুন 03:19

‘সন্ত্রাসবাদীরা এর পিছনে আছে কি না দেখতে হবে’

নির্বাচনের মরসুমে এই বিষয়টি ফের সামনে আনছে বিজেপি৷ দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ আগেও এ কথা বলেছেন৷ সম্প্রতি উত্তরবঙ্গের এক সভায়ও তিনি বলেন, আসামের মতো পশ্চিমবঙ্গেও এনআরসি হবে৷ বিজেপি যদি ফের ক্ষমতায় আসে তাহলে অবৈধভাবে ভারতে বসবাসকারীদের বিতাড়িত করা হবে৷

নানা মত

অনুপ্রবেশের বিষয়টি নিয়ে হিন্দুত্ববাদী বিজেপির প্রচারের পেছনে তাদের রাজনৈতিক কৌশল রয়েছে৷ বাংলাদেশ থেকে এপারে আসা মানুষদের সিংহভাগই যেহেতু সংখ্যালঘু, তাদের প্রসঙ্গ সামনে এনে নির্বাচনে সমর্থন বাড়াতে চাইছে তারা৷

অনুপ্রবেশ সম্পর্কে পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের অবস্থান এতটা কঠোর নয়৷ আসামে এনআরসি নিয়ে তারা তীব্র আপত্তি জানিয়েছিল৷ তৃণমূলের ভাষায়, নাগরিকপঞ্জি আসলে বাঙালিদের দেশছাড়া করার অপচেষ্টা৷ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ভারত থেকে একজন বাঙালিকে বের করে দেওয়া যাবে না৷ ধর্মের নামে ভেদাভেদ করতে দেওয়া হবে না৷ ভোটের মুখে সে কথাটাই জোরের সঙ্গে বলছে তৃণমূল৷

কলকাতা পুরনিগমের ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর রেহানা খাতুন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বিজেপি হিন্দু-মুসলমানের ভেদ তৈরি করতে চাইছে৷ সে কারণে এই ইস্যু তুলছে৷ আমরা ভেদাভেদে বিশ্বাস করি না৷ সবাই মিলেমিশে থাকি৷ আমার ওয়ার্ডকে তাই মিনি ইন্ডিয়া বলে৷'' 

রেহানা যে এলাকার জনপ্রতিনিধি, সেখানে নানা জাতি-ধর্মের মানুষের বাস৷ কলকাতার সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের কাছে মহম্মদ আলি পার্কের আশেপাশে অবাঙালি অধ্যুষিত এই এলাকা৷ সেখানকার দীর্ঘদিনের কাউন্সলির রেহানার বক্তব্য, ‘‘কাউকে তাড়িয়ে দেব বলা সহজ৷ তার পাশে দাঁড়ানো বড় কথা৷ কেউ আমার দেশের বিরুদ্ধে কাজ করলে তাকে সাজা দিতে হবে৷ কিন্তু, সবাইকে দুষ্কৃতিকারী বললে চলবে না৷''

বিজেপি অবশ্য একে ভেদাভেদের রাজনীতি বলে মানতে রাজি নয়৷ তারা বলছে, যে-কোনো উপায়ে অনুপ্রবেশ রুখতে হবে৷ নইলে এখানকার মানুষ বিপন্ন হয়ে পড়বে৷ বুধবার পশ্চিমবঙ্গে একটি জনসভায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ফের অনুপ্রবেশকারীদের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন৷ বিজেপির অভিযোগ, অনুপ্রবেশকারীদের বৈধতা দিয়ে নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক মজবুত করতে চাইছে তৃণমূল, তাতে আখেরে দেশের ক্ষতি হচ্ছে৷

বিজেপির কৃষক নেতা রামকৃষ্ণ পাল ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলার মানুষ বুঝতে পেরেছে, অনুপ্রবেশের ফলে তাদের ক্ষতি হচ্ছে৷ রুটি-রুজিতে ভাগ বসাচ্ছে বিদেশ থেকে আসা মানুষরা৷ এর ফলে সামাজিক, সাংস্কৃতিক ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে৷ এমনকি রাজনৈতিক ভারসাম্যও বদলে যাচ্ছে৷ রাজনৈতিক জয়-পরাজয় নির্ধারিত হচ্ছে অনুপ্রবেশকারীদের ভোটে৷ দেশের নিরাপত্তার সঙ্গে বিষয়টি জড়িত৷ বিজেপি তাই অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করতে বদ্ধপরিকর৷ এটা কথার কথা নয়৷''

বাংলাদেশ থেকে বহু হিন্দু ভারতে এসেছে৷ তারাও কি অনুপ্রবেশকারী নয়? এ ক্ষেত্রে বিজেপি নেতার বক্তব্য, ‘‘শরণার্থী ও অনুপ্রবেশকারীর মধ্যে পার্থক্য আছে৷ রাষ্ট্রপুঞ্জের ব্যাখ্যা অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তি যদি তাঁর দেশে নিরাপত্তার অভাববোধ করেন, তাহলে তিনি অন্য দেশে আশ্রয় নিতে পারেন৷ তাঁকে শরণার্থী হিসেবে দেখতে হবে৷ তাই অমুসলমানরা শরণার্থী৷ কিন্তু, বাংলাদেশের কোনো মুসলিম নাগরিক তাঁর দেশে অত্যাচারের মুখে পড়ে ভারতে আসছেন, এটা হতে পারে না৷ তাই তাঁকে অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত করতে হবে৷''

উল্লেখ্য, ১৯৫১ সালের ‘শরণার্থী কনভেনশন' অনুযায়ী বিশ্বের প্রায় সব দেশের শরণার্থীনীতি নির্ধারিত হয়৷ এই চুক্তিতে বিশ্বের অনেক রাষ্ট্র সই করলেও ভারত করেনি৷ সে কারণে ভারতে আসা শরণার্থীরা কেউই আন্তর্জাতিক মানের সাথে সামঞ্জস্য রেখে সুযোগ-সুবিধা পান না৷ শুধু তাই নয়, ভারতের আইন অনুযায়ী, কিছু বিশেষ ক্ষেত্র ছাড়া, ভারত ভাগের পরবর্তী কিছু বছরে আসা মানুষদের ‘রিফিউজি সার্টিফেকেট' বা শরণার্থীপত্র প্রদান করা হতো, যা আজ আর প্রচলিত নেই৷ ফলে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন থেকে যায়, এই নতুন ‘বাংলাদেশি শরণার্থীর' সংজ্ঞা আসলে কী?

ভোটার কার্ডে সমস্যা

বনগাঁ, বসিরহাট ইত্যাদি সীমান্ত লাগোয়া এলাকায় বসবাসকারী অনেকেরই পরিচয়পত্র নেই বিভিন্ন কারণে৷ বিজেপির এনআরসি ইস্যুতে তাঁরাও যথেষ্ট শঙ্কিত এবং ভোটার কার্ড সংগ্রহের জন্য তৎপর৷ বনগাঁ লোকালের নিত্যযাত্রী আমিনা বেগম বলেন, ‘‘এখান থেকে চলে যেতে বললে তো মুশকিল৷ তার চেয়ে ভোটার কার্ডে নাম তোলার চেষ্টা করব৷'' সে ক্ষেত্রে ভোটার কার্ডে নাম তোলা কতটা সহজ হবে? কাউন্সিলর রেহানা খাতুন জানান, ‘‘অনেকে বিহার, ইউপি থেকে এসেছেন, বিয়ে করে সংসার করেছেন৷ কিন্তু কোনো ভোটার কার্ড নেই৷ এদের সবাইকেই আমরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার কার্ডের কথা বলেছি৷ এছাড়াও যাদের কার্ড নেই, তাদেরও ভোটারকার্ড করতে বলছি৷ লোকসভা মিটে গেলে পুজোর পর থেকে আবার ভোটার কার্ডে নাম তোলার ব্যবস্থা শুরু করব৷'' 

অডিও শুনুন 02:55

‘বাংলার মানুষ বুঝতে পেরেছে, অনুপ্রবেশের ফলে তাদের ক্ষতি হচ্ছে’

অনুপ্রবেশ যখন ইস্যু

পশ্চিমবঙ্গের জনসমষ্টির এক চতুর্থাংশ মানুষ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের৷ তারা প্রধানত তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থক বলে মনে করা হয়৷ তার বিপরীতে যে সিংহভাগ সংখ্যাগুরু ভোট, তা একজোট করতে চাইছে বিজেপি৷ সে কারণেই অনুপ্রবেশের ইস্যুকে এতটা গুরুত্ব দিচ্ছে বিজেপি৷ এমনটাই মত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের৷

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক অনিন্দ্য বটব্যাল বলেন, ‘‘বেআইনিভাবে কেউ এ দেশে বসবাস করলে তাকে চিহ্নিত করা যেতেই পারে৷ কিন্তু, এটাকে ভোটের ইস্যু করে তোলা কাম্য নয়৷ আসামে বিজেপি তাদের ইশতাহারেই বলেছিল নাগরিকপঞ্জির কথা৷ পশ্চিমবঙ্গেও অনুপ্রবেশের সমস্যা রয়েছে৷ এখানেও তারা সেই ইস্যু তুলছে৷''

অনুপ্রবেশের সঙ্গে দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার প্রশ্নটি জড়িত বলে মত অধ্যাপক অনিন্দ্যর৷ তিনি বলেন, ‘‘বেআইনিভাবে যারা ভারতে আছে, তারা কী উদ্দেশ্যে এখানে এসেছে, সেটা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন৷ সন্ত্রাসবাদীরা এর পিছনে আছে কি না দেখতে হবে৷ বর্ধমানের খাগড়াগড়ে বিস্ফোরণের পর তদন্তে বাংলাদেশের জঙ্গি সংগঠনের যোগসাজশের তথ্য উঠে এসেছিল৷ কী পরিস্থিতি বা উদ্দেশ্যে এ দেশে কেউ ঢুকে পড়ল, সেটা বিচার করা জরুরি৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন