পশ্চিমবঙ্গে টানা দু′মাস স্কুল ছুটি কেন? | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 25.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

পশ্চিমবঙ্গে টানা দু'মাস স্কুল ছুটি কেন?

ঘূর্ণিঝড়ের ধাক্কায় পশ্চিমবঙ্গের স্কুলে গরমের ছুটির মেয়াদ বেড়েছে৷ আপাতত টানা দু'মাস বন্ধ থাকছে স্কুল৷ রাজ্য সরকারের এই পদক্ষেপে পঠনপাঠনের ক্ষতি হচ্ছে বলে অভিযোগ পড়ুয়া ও অভিভাবকদের৷

চলতি মে মাসের গোড়ার দিকে দক্ষিণ ও পূর্ব ভারতের দিকে ধেয়ে এসেছিল ঘূর্ণিঝড় ফণি৷ পশ্চিমবঙ্গেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আভাস দিয়েছিল আবহাওয়া দপ্তর৷ তার জেরেই রাজ্য সরকার তড়িঘড়ি সিদ্ধান্ত নেয়, স্কুলে ছুটি দেওয়া হবে৷ প্রতি বছরের মতো গরমের জন্য স্কুল ছুটি দেওয়ার কথাই ছিল৷ ফণির আতঙ্কে গরমের ছুটি এগিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষা দপ্তর৷ তারা নির্দেশিকা জারি করে বলে, ৬ মে থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত বন্ধ থাকবে স্কুল৷ এই সিদ্ধান্তে তীব্র প্রতিক্রিয়া হয় রাজ্যে৷ শিক্ষামহল থেকে শুরু করে অভিভাবকরা প্রশ্ন তোলেন দীর্ঘ ছুটির ফলে ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়ার ব্যাপক ক্ষতি হবে৷ এই ক্ষতি পরে সামলে ওঠা যাবে না৷ নির্দিষ্ট পাঠ্যসূচি ক্লাসে পড়ানোর সময় পাবেন না শিক্ষকেরা৷ এ নিয়ে শিক্ষক মহলের একাংশের মধ্যেও রয়েছে ক্ষোভ৷

আপত্তি শিক্ষামহলেই

রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ শুরু করে পড়ুয়ারা৷ তাদের সঙ্গে ছিলেন অভিভাবকরাও৷ উত্তর থেকে দক্ষিণবঙ্গে বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে৷ অবিলম্বে স্কুল খোলার দাবিতে ডুয়ার্সের নাগরাকাটায় পড়ুয়ারাই শহর পরিক্রমা করে আন্দোলন করে৷ তা নিয়ে সরকারের অবশ্য হেলদোল নেই৷ অভিভাবকদের বক্তব্য, ঘূর্ণিঝড়ের নামে ছুটি এগিয়ে এনে ও বাড়তি ছুটির ব্যবস্থা করে সরকার শিক্ষা-ব্যবস্থার মূলে কুঠারাঘাত করেছে৷  গঙ্গারামপুরের অভিভাবক বিবেকানন্দ গায়েনের বক্তব্য, ‘‘আমার ছেলে সরকারি স্কুলে পড়ে৷ এমনিতেই সিলেবাস শেষ হয় না৷ নানা কারণে স্কুল ছুটি থাকে৷ প্রাইভেট টিউশন যাদের নেই, তাদের ক্ষেত্রে একটানা স্কুল বন্ধ থাকলে যে পড়াশোনাই বন্ধ হয়ে যাবে৷'' দশম শ্রেনির পড়ুয়া সৌম্য রায় বলে, ‘‘কিছু প্র্যাকটিকেলের কাজ স্কুলেই ভালো করে হয়৷ সেগুলো তো আর প্রাইভেট টিউশনি দিয়ে হবে না৷ সে ক্ষেত্রে খুব অসুবিধায় পড়ছি৷'' শিক্ষকদের একাংশও এ নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন, যদিও তাঁরা সংবাদমাধ্যমের কাছে স্বনামে মুখ খুলতে নারাজ৷ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বহরমপুরের একটি মাদ্রাসার শিক্ষক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাৎসরিক ক্যালেন্ডার ধরে আমাদের পঠনপাঠন এগোতে হয়৷ প্রতি বছরই ২০-২৫ দিন গরমের ছুটি থাকে৷ কিন্তু তার থেকে বেশি ছুটি থাকলে পড়ানোর কাজটায় বাধা পড়ে৷ প্র্যাকটিকেল ক্লাসের ক্ষেত্রে সমস্যা আরো বেশি৷ ছুটির মধ্যেই ২১ মে মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল বেরিয়েছে৷ উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে ভর্তির ক্ষেত্রে কোনো কাজই করা যাচ্ছে না৷''

অডিও শুনুন 08:31

‘এর মধ্যেও বেসরকারি স্কুলগুলো ঠিকই দিব্যি চলছে’

মিড ডে মিলের ক্ষেত্রে সমস্যা

রাজ্য সরকার ঘূর্ণিঝড়ের পাশাপাশি প্রচণ্ড দাবদাহকে কারণ হিসেবে তুলে ধরেছে৷ কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, সেজন্য গরমের ছুটি প্রতি বছরই থাকে৷ সেটা এতটা বাড়িয়ে দেওয়ার কী যুক্তি রয়েছে? এখন ভারতের স্কুলে একটি পর্যায় পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের দুপুরের আহার দেওয়া হয়৷ এই মিড-ডে মিল দেওয়ার লক্ষ্য, দরিদ্র পরিবারের পড়ুয়াদের স্কুলে টেনে আনা৷ এতে তাদের অন্নের চাহিদা মিটবে, একইসঙ্গে শিক্ষা দেওয়া যাবে৷ স্কুলছুটদের সংখ্যা কমানোও ছিল মিড-ডে মিল চালুর লক্ষ্য৷ কিন্তু স্কুল বন্ধ থাকলে দুপুরের খাবার মিলবে না৷ অর্থাৎ শুধু পড়াশোনার ক্ষতি নয়, অনেক ছেলেমেয়ে একবেলার আহার থেকেও বঞ্চিত হবে স্কুল বন্ধ থাকায়৷ মিড-ডে মিলের সঙ্গে স্কুলে আয়রন ট্যাবলেট দেওয়া হয়৷ সেটাও পাবে না কচিকাঁচারা৷ এর ফলে অপুষ্টিতে ভোগার আশঙ্কা বাড়বে৷ পশ্চিম মেদিনীপুরের জঙ্গলমহল এলাকার বেলপাহাড়ির একটি প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক বলেন, ‘‘আমার স্কুলের ১৮৬ জন পড়ুয়া আছে৷ এরা সবাই মিড-ডে মিলের উপর একবেলা নির্ভর করে৷ কিন্তু স্কুল বন্ধ থাকলে ওদের দুপুরের খাবার দেওয়া যাবে না৷ সুতরাং এই অবকাশ ওদের কাছে খুবই সমস্যার৷'' অনেকের মতে, এর ফলে স্কুলছুটদের সংখ্যা আবার বাড়বে৷ স্কুল ছুটি দেখে গরিব বাবা-মায়েরা সন্তানদের আবার কাজে পাঠানোর ব্যবস্থা করবেন৷ সমাজকর্মী আব্দুল হালিম জানান, ‘‘বিড়ি শ্রমিকের কাজ করে বহু শিশু৷ তাঁদের ক্ষেত্রে এ কথা প্রযোজ্য হতে পারে যে কোনো সময়েই৷'' 

নেপথ্যে রাজনীতি?

রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্তের পিছনে এসব কারণ ছাপিয়ে উঠে আসছে রাজনীতির প্রসঙ্গ৷ বিরোধীরা বলছে, ভোটের কথা ভেবেই নিখাদ এই রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত৷ শিক্ষকদের আর্থিক দাবিদাওয়া পূরণের আশু সম্ভাবনা না থাকায় ছুটি দিয়ে ক্ষতিপূরণ করতে চেয়েছে সরকার৷ লোকসভা নির্বাচনে শিক্ষক ও তাঁর পরিবারের ভোটকে নিজেদের অনুকূলে আনতে এই কৌশল নিয়েছিল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস৷ ভোটকর্মীদের একাংশ নির্বাচনের আগেই রাজ্যে হিংসার বিরুদ্ধে পথে নেমেছিলেন৷ তাঁরা নির্বাচনে নিরাপত্তা নিশ্ছিদ্র করার দাবি তোলেন৷ এই ভোটকর্মীদের একটা বড় অংশ শিক্ষক৷ রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মত, ক্ষোভ সামাল দিতে ছুটির দাওয়াই দিয়েছিল তৃণমূল সরকার৷ যদিও নির্বাচনের ফলে তার প্রতিফলন দেখা যায়নি৷

বঙ্গীয় প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির প্রাক্তন সভাপতি ও অল বেঙ্গল স্টেট এডুকেশন কমিটির সাধারণ সম্পাদক কার্তিক মান্না ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘গরমেও স্কুল চালানোর একটি নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া আছে৷ বেসরকারি স্কুল দিব্যি চলছে৷ গরমই যদি কারণ হয়, তাহলে বিকল্প পথে সকালের দিকে মর্নিং স্কুল খোলা হচ্ছে না কেন? আর ঘূর্ণিঝড়ের বিপদ ছিল দু-তিনদিনের জন্য৷'' রাজনীতি প্রসঙ্গে শিক্ষা প্রশাসন ও আন্দোলনের সঙ্গে দীর্ঘদিন যুক্ত কার্তিকের বক্তব্য, ‘‘শিক্ষকদের একটু ফুরসত দিতে চেয়েছে রাজ্য সরকার৷ ভোটের কাজ করতে যেতে তাঁদের ছুটির জন্য তদ্বির করতে হয়৷ টানা ছুটি দিয়ে সেই ঝক্কি দূর করা হয়েছে৷ এর ফলে রাজ্য সরকারের প্রতি শিক্ষকদের মনোভাব ভালো হবে৷ কিন্তু, এতে শিক্ষার আসল উদ্দেশ্য ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে৷''

অডিও শুনুন 02:05

‘সরকার যখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তার পিছনে নির্দিষ্ট ভাবনা রয়েছে’

শাসক দল অনুমোদিত সংগঠন পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণেন্দু বিষই ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সরকার যখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তার পিছনে নির্দিষ্ট ভাবনা রয়েছে৷ তবে দরকার পড়লে ছুটি কমিয়ে দেওয়া যেতে পারে, এ কথাও বলা হয়েছে৷ রাজ্যে তাড়াতাড়ি বর্ষা এলে ৩০ জুন পর্যন্ত স্কুল বন্ধ রাখা না-ও হতে পারে৷ সেক্ষেত্রে ছুটি অনেকটাই কমে যাবে৷'' মিড ডে মিলের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘পুজোর ছুটির সময়েও তো পড়ুয়ারা মিড ডে মিল পায় না৷ তাছাড়া এখন ২টাকা কিলো দরে চাল পাচ্ছেন মানুষ৷ এত দারিদ্র্য নেই যে পড়ুয়াদের মিড ডে মিলের ওপর নির্ভর করে থাকতে হবে৷''

কার্তিক মান্নার কথায়, ‘‘শিক্ষকেরা বা ছাত্ররা কেউই এত ছুটি চাইছেন না৷ জোর করে ছুটি দেওয়া হচ্ছে৷ শিক্ষাবিরোধী এই দৃষ্টিভঙ্গি আদতে শিক্ষাকে বেসরকারিকরণের চেষ্টা৷ এর বিরোধিতা চলছে৷ পশ্চিমবঙ্গে বর্ষা আসে জুনের দ্বিতীয় সপ্তাহে৷ তখন গরমের দাপটও থাকে না৷ ফলে ছুটিটা নিষ্প্রয়োজন ও অযৌক্তিক৷''  সোশাল মিডিয়ায় নানারকম মিম ও জোক ঘোরাঘুরি করছে এই নিয়ে৷ সেখানে অনেকে টিপ্পনি কেটেছেন, মিড ডে মিলের খরচ কমাতেই সরকারের এই সিদ্ধান্ত৷ অনেকে বলছেন, ঝড় আসার আগেই স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে৷ উন্নয়নের চোটে সে স্কুল আর খোলা হয়নি৷ আপাতত দাবদাহ কমলে স্কুল খোলে কিনা, সেটাই দেখার৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন