পশ্চিমবঙ্গের অর্থনীতি সামলাতে নোবেলজয়ী অভিজিৎ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 07.04.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

পশ্চিমবঙ্গের অর্থনীতি সামলাতে নোবেলজয়ী অভিজিৎ

করোনা সংক্রমণ পশ্চিমবঙ্গ এবং সারা দেশেই এক অর্থনৈতিক অচলাবস্থা তৈরি করেছে৷ পরবর্তী সঙ্কট থেকে বাঁচতে এক আন্তর্জাতিক কমিটি গড়ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি, যাতে থাকবেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ ব্যানার্জি৷

অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী অভিজিৎ ব্যানার্জি ও এসথার ডুফলো৷

অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী অভিজিৎ ব্যানার্জি ও এসথার ডুফলো৷

করোনা পরবর্তী পরিস্থিতিতে রাজ্যের আর্থিক অবস্থা বিপর্যস্ত হবে, তখন দরকার বিশেষজ্ঞের পরামর্শ৷ তাই একটি আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা কমিটি গড়ার কথা সোমবার ঘোষণা করলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি

সোমবার রাজ্য সচিবালয় নবান্নে এই ঘোষণার সময় মুখ্যমন্ত্রী বলেন, লকডাউনের কারণে রাজ্য অচল হয়ে আছে৷ ব্যবসা বাণিজ্য কিছুই হচ্ছে না৷ রাজস্ব আদায় বন্ধ রয়েছে সরকারের৷ আরও কতদিন এই পরিস্থিতি চলবে জানা নেই এবং ভবিষ্যতেও কী হবে, বোঝা যাচ্ছে না৷ ফলে একটি করোনা রেসপন্স টিম গঠন করছে রাজ্য সরকার, অভিজিৎ ব্যানার্জি যে দলে সামিল হবেন৷

ঠিক দুদিন আগেই এক আলোচনায় নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ দম্পতি অভিজিৎ ব্যানার্জি এবং এস্থার দুফলো বলেছিলেন, সাধারণ গরীব মানুষের ভাতের ব্যবস্থা করতে না পারলে এই লকডাউন অর্থহীন হয়ে যাবে৷ কারণ মানুষ তখন রোগ সংক্রমণের পরোয়া না করে ভাতের খোঁজে বেরোবে৷ এর পাশাপাশি তারা দুজনেই বলেন, ভারতে অর্থনীতির মন্দাবস্থা কাটাতে সাধারণ মানুষের হাতে অর্থ আসতে হবে, যাতে তাঁরা খরচ করতে পারেন৷ যাতে বাজারে ভোগ্যপণ্যের চাহিদা তৈরি হয়৷ এই কথাই তারা এর আগেও বলেছিলেন৷ মানুষকে উপার্জনের সুযোগ করে দেওয়ার যে যে পথ তারা বাতলেছিলেন, তার অনেক কিছুই মমতা ব্যানার্জির কর্মসংস্থান পরিকল্পনার সঙ্গে মিলে গিয়েছিল৷

মুখ্যমন্ত্রী এদিন জানিয়েছেন, বিদেশ ফেরত যাদের কোয়ারেন্টাইনে যেতে হচ্ছে, তাদের আলাদা থাকার বন্দোবস্ত করতে তিনি রাজ্যের দুই, তিন ও চার তারা হোটেলগুলিকে অনুরোধ করেছিলেন৷ ৩১টি হোটেল রাজি হয়েছে৷ মোট ৬৪০টি ঘর কম ভাড়ায় তারা দিতে প্রস্তুত৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন