‘পশু মানুষ হতে পারে না, কিন্তু মানুষ খুব সহজেই পশু হতে পারে′ | আলাপ | DW | 29.01.2016
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

আলাপ

‘পশু মানুষ হতে পারে না, কিন্তু মানুষ খুব সহজেই পশু হতে পারে'

‘‘আমরা মানুষের অধিকার রক্ষায় যদি সফল হই, তাহলে প্রাণী অধিকার রক্ষায়ও সফল হবো৷'' ‘প্রাণী অধিকার' নিয়ে ডিডাব্লিউ-র বিশে আয়োজনের প্রতিবেদনগুলো পড়ে একজন পাঠক আমাদের ফেসবুক পাতায় এই মন্তব্য করেছেন৷

যে দেশে মানুষের অধিকারেরই ঠিক নেই, সে দেশে আবার প্রাণীর অধিকার! হ্যাঁ বাংলাদেশের প্রাণীর অধিকার সম্পর্কে পাঠক শাকিল বলছেন, ‘‘মানুষ হত্যার বিচার হয় এই দেশে? বিচারই বা করবে কারা? যারা বিচার করবে, আইন নিয়ন্ত্রণ করবে তারাই তো বড় বেশি আইন ভঙ্গ করে৷''

মো. সেলিমও অনেকটা তাই মনে করেন৷ বাংলাদেশে প্রাণী হত্যা, প্রাণী অধিকার সম্পর্কে তাঁর মন্তব্য, ‘‘বাংলাদেশে আইনের সঠিক প্রয়োগ নেই৷''

‘‘আমরা মানুষের অধিকার রক্ষায় যদি সফল হই, তাহলে প্রাণী অধিকার রক্ষায়ও সফল হবো৷ মানুষ শাসিত সমাজ, তাই মানুষের কথাই তো আগে বলতে হবে, তাই না? আমি অনেক মানুষকে বলতে শুনেছি মাছ, মাংস নাকি হিংসা আর অহংকার বৃদ্ধি করে৷ আর তা আজকের সমাজের দিকে তাকালে বোঝা যায়৷ মানুষগুলো জানোয়ারের চেয়ে হিংস্র হয়ে গেছে৷'' ফেসবুকে এই মন্তব্য করেছেন অর্জুন বৈদ্য৷

সুন্দরবনের বাঘ কমে যাওয়া নিয়ে ডয়চে ভেলের বন্ধু তাপস দেবনাথও বেশ চিন্তিত৷ যেমন

‘সুন্দরবনের বাঘ কমছে আর চোরাশিকারিরাই এর প্রধান শত্রু' – এই প্রতিবেদনটি পড়ে তাপস দেবনাথের মন্তব্য এরকম, ‘‘কমতে কমতে একদিন কিছুই থাকবে না, যে অবস্থা! তবে প্রাণীদের প্রতি একটু যত্নশীল হলে তবে ওরা সংখ্যায় বাড়বে৷''

অন্যদিকে চোরাশিকারীদের নিয়ে রসিকতা করে সাইফুল রফিক লিখেছেন, ‘‘বনে অনেকগুলা সিংহ ছাড়তে হবে, চোরাশিকারীদের ‘সাইজ' করার জন্য৷'' ‘সত্যি কথা' হারুন মুল্লাহর এই মন্তব্য৷

‘পশুর প্রতি নিষ্ঠুরতা ভয়ংকর মানসিক বিকৃতির পরিচয়' ডয়চে ভেলের আলাপ পাতায় এই শিরোনামের প্রতিবেদনটি পড়ে জলিলুর রহমান লিখেছেন, ‘‘পশু তো কখনও মানুষ হতে পারে না, কিন্তু মানুষ খুব সহজেই পশু হতে পারে৷ পশু নির্যাতন তারই এক চরম উদাহরণ৷ আর এই নির্যাতনকারী পশুরা শুধু পশুদের নয়, মানুষের সাথেও পৈশাচিক আচরণ করতে দ্বিধাবোধ করে না৷''

বিশ্বব্যাপী প্রাণীদের অধিকার নিয়ে কাজ করছে বেশ কিছু সংগঠন৷ তাদের কার্যক্রমে মানুষকে আকৃষ্ট করতে তারকাদের সহায়তা নেয় এ সব সংস্থা৷ পশু অধিকার নিয়ে এগিয়ে এসেছেন বেশ কয়েকজন তারকা আর তাঁদের ছবি দেখে ফেসবুক বন্ধু নাসির উদ্দিন ও জুলফিকার মাসুদ শোয়েবের কাছে বিষয়টি ভালো লেগেছে৷ জুয়েল আহমেদ তারকাদের ধন্যবাদ দিয়েছেন প্রাণী অধিকার রক্ষায় জনগণকে উৎসাহ দেয়ার জন্য৷

প্রাণীদের প্রতি আমাদের সদয় হওয়া উচিত বলে মনে করেন ফেসবুক বন্ধু রফিকুল ইসলাম৷ আর মোয়েম উদ্দিন প্রাণীদের খুব পছন্দ করেন বলে জানিয়েছেন৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন