পলের জন্য স্প্যানিশ সম্মান | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 23.07.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

পলের জন্য স্প্যানিশ সম্মান

সকালে ঘুম থেকে উঠে জাভি আর্নান্দেজের ভিমরি খাওয়াই স্বাভাবিক৷ কারণ স্প্যানিশ এই ফুটবলারের আট নম্বর জার্সিটি আরেকজনের দখলে চলে গেছে৷ কে সে, যে কি না বার্সেলোনার এই তারকাকে হটিয়ে দিলো৷ সে আর কেউ নয়, অক্টোপাস পল৷

default

পল

আসলে সময়টা এখন পলেরই৷ জীবনের শুরুটা যাই হোক না কেন, শেষটা সব দিক দিয়েই ভরিয়ে দিচ্ছে পলকে৷

জার্মানির সাতটি খেলার ফলাফল আগাম বলে দিয়ে এবারের বিশ্বকাপে ঝড় তোলে পল৷ শেষে ফাইনালে স্পেনের বিজয়ের খবর দিয়ে তো সে রীতিমতো হিরো৷ তাই আবাস জার্মানিতে হলেও স্প্যানিশদের কাছে ‘বীরের' মর্যাদাই পাচ্ছে পল৷ ফুটবল দুনিয়ায় কুলীন হিসেবে বিবেচিত হলেও এতদিন ধরে অধরা বিশ্বকাপ এবার ধরা দিয়েছে আলফ্রেদো দি স্তেফানোর দেশের কাছে৷ এই খুশিতে স্প্যানিশরা কৃতজ্ঞ পলের কাছেও৷ আর তার প্রকাশও ঘটছে৷

ও কারবাইনো, স্পেনের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর৷ সেই শহরটি সম্মানসূচক নাগরিকত্ব দিয়েছে পলকে৷ আর এই জন্য পলকে স্পেন যেতে হয়নি৷ ওই শহরের মেয়র কার্লোস মন্তেস নিজেই এসেছেন জার্মানির ওবারহাউজেন শহরে৷ জার্সির সঙ্গে নিজের একটি প্রতিকৃতিও পেয়েছে পল৷ আর পুরো অনুষ্ঠানটিই হয়েছে ওবারহাউসেনের সী লাইফ অ্যাকুরিয়ামে৷ যেখানে বসেই নিজের কৃতিত্ব জাহির করে পল৷

বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে জার্মানির হারের খবর বলে নিজ দেশে অনেকের বিরাগভাজন হয়েছিলো পল৷ তখন অবশ্য এগিয়ে এসেছিলো স্প্যানিশরা৷ এমনকি পলকে ‘রাজনৈতিক আশ্রয়' দেওয়ার কথাও বলেছিলেন স্পেনের হর্তা-কর্তারা৷ অনেক স্প্যানিশই চায় পলকে তাদের দেশে নিয়ে যেতে৷ তাদের আবেদন-নিবেদনে বাধ্য হয়ে সী লাইফ অ্যাকুয়ারিয়ামের কাছে প্রস্তাবও পাঠায় মাদ্রিদ জাদুঘর৷ তবে তা প্রত্যাখ্যাত হয়৷ সী লাইফ অ্যাকুরিয়াম জানিয়ে দেয়, পলকে বিক্রি করার কিংবা ভাড়া দেওয়ার কোনো ইচ্ছা তাদের নেই৷

বিশ্বকাপ তো শেষ, ওই সময়ে না হয় ভবিষ্যদ্বাণী করে সময় পার করছিলো, এখন কী করবে পল? অলস সময় কাটাবে? না, তা হতে দিচ্ছে না সী লাইফ অ্যাকুরিয়াম৷ তার জন্য একটি কাজও ঠিক করেছে তারা৷ অক্টোপাস পল এখন কাজ করবে বিলুপ্তপ্রায় গ্রিক কচ্ছপের জন্য, সী লাইফের এজেন্ট হিসেবে৷ দেখা যাক, নতুন দায়িত্বে পল কতটা সফল হয়৷

প্রতিবেদন: মনিরুল ইসলাম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন