পলাশকে কি কারাগারে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে? | বিশ্ব | DW | 07.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

পলাশকে কি কারাগারে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে?

পঞ্চগড় জেলা কারাগারে পলাশ কুমার রায় নামের এক আইনজীবীকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে৷ ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়েছে৷ তবে কারা কর্তৃপক্ষ এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

গত ২৬ এপ্রিল সকালে পঞ্চগড় জেলা কারাগারে পলাশ অগ্নিদগ্ধ হন৷ ৩০ এপ্রিল দুপুরের দিকে তিনি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান৷  এর আগে ২৫ মার্চ পঞ্চগড়ে একটি মানববন্ধন থেকে তাঁকে আটক করে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছিল৷ তিনি সেখানেই ছিলেন৷ অগ্নিদগ্ধ হওয়ার দিনই তাঁকে আরেকটি মামলায় হাজিরার জন্য ঢাকা পাঠানোর কথা ছিল৷

পলাশ মৃত্যুর আগে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে একটি বক্তব্য দিয়ে গেছেন৷ তাতে তিনি বলেছেন, ‘‘কারাগারের ভিতরে দু'জন লোক তাঁর শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়৷'' মৃত্যুর আগে পলাশের এই বক্তব্য রেকর্ড করেছেন তাঁর ভাগ্নে প্রসেনজিৎ কুমার রায়৷

বার কাউন্সিলের তালিকাভুক্ত আইনজীবী পলাশ কুমার রায় ঢাকায় কোহিনুর কেমিক্যাল কোম্পানির আইন কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন৷ তাঁর গ্রামের বাড়ি পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলায়৷ বাবা প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা প্রণব কুমার রায়৷ মা সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মীরা রানি রায়৷ পলাশ নিজে এবার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যায়৷

অডিও শুনুন 00:57

‘‘কারাগারের ভিতরে দু'জন লোক তাঁর শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়''

মীরা রানি রায় ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘২০১৬ সালে কোহিনুর কেমিক্যাল কোম্পানি তাঁকে চাকরিচ্যুত করে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দেয়৷''

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তাঁর বিরুদ্ধে ৩১ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলা হয়েছিল ঢাকায়৷ ওই মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে গত ২৫ মার্চ দুপুরে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে পরিবারের লোকজন নিয়ে অনশন করেন পলাশ৷ পরে শহরের শের-ই-বাংলা পার্ক সংলগ্ন মহাসড়কে গিয়ে মানববন্ধন করেন৷ তিনি সেখানে হ্যান্ড মাইকে বক্তব্য দেন৷ বক্তব্যে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কিরুদ্ধে কটুক্তি করেছেন– এই অভিযোগে সেখান থেকে পুলিশ তাঁকে  আটক করে এবং রাজীব রানা নামে একজন তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেন৷ ওই মামলায় কারাগারে পাঠানো হয় তাঁকে৷

মীরা রানি রায় জানান, ‘‘এরপর কয়েকবার জামিনের আবেদন করলেও তাঁর জামিন হয়নি৷ ২৬ এপ্রিল কারাগারে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে আমি জানতে পারি, সে অগ্নিদগ্ধ হয়েছে৷ কিন্তু আমাকে জানানো হয়নি৷ আমি পঞ্চগড় সদর হামপাতালে যাই৷ সেখানে আমাকে বাধা দেয়া হয়৷ এরপর তাকে রংপুর কারাগারে পাঠানো হয়৷ রংপুর কারাগার তাকে রংপুর হাসপাতালে ভর্তি করে৷ সেখান থেকে ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়৷ আমি বারবার বলার পরও তার চিকিৎসার অবহেলা করা হয়৷ তার শরীরের ৪০ ভাগ পুড়ে গিয়েছিল৷ আমি জেলারকে বলেও তার দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারিনি৷ আমার ছেলে হাত উঁচিয়ে আমাকে বারবার দু'টি আঙুল দেখিয়েছে আর মুখে দুই জন, দুই জন বলার চেষ্টা করেছে৷''

তিনি অভিযোগ করেন, ‘‘জেলে থাকা অবস্থায় কিছু লোক আমার ছেলের সাথে দেখা করে তাকে হুমকি দিয়েছে৷ তারা তার ছবিও তুলে নিয়ে গেছে৷ এছাড়া কোহিনুর কেমিক্যাল কোম্পানির লোকজন আমার ছেলের ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করতে লোক পাঠিয়েছিল৷ আমার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে কারাগারের ভিতরে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে৷''

অডিও শুনুন 05:04

শরীরে আগুন লাগা অবস্থায় বাথরুম থেকে বের হন পলাশঃ জেলার

পঞ্চগড় জেলা কারাগারের জেলার মুশফিকুর রহমান পলাশের মায়ের অভিযোগ অস্বীকার করে ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাথরুমে গিয়ে পলাশ লাইটার দিয়ে নিজের শরীরে নিজেই আগুন দিয়েছে৷ পলাশ সিরোসিসে ভোগার কারণে আমরা তাঁকে কারা হাসপাতালে রেখেছিলাম৷ বাথরুমটি হাসপাতালের পাশেই, বাইরে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘সে শরীরে আগুন লাগা অবস্থায় বাথরুম থেকে বের হয়৷ কারাগারের লোকজন আগুন নেভায়৷''

বাথরুমে পলাশকে লাইটার দিয়ে নিজের শরীরে আগুন দিতে কেউ দেখেছে কিনা  এবং কিভাবে দেখলো তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘না, আমি শুনেছি৷ কেউ দেখেনি৷ ধারণা থেকে বলছি৷''

তিনি জানান, ‘‘ওইদিন তাঁকে ঢাকায় পাঠানোর কথা ছিল৷ ঢাকায় কোহিনুর কেমিক্যাল কোম্পানির দায়ের করা অর্থ আত্মসাতের একটি মামলায় ২৮ এপ্রিল তাঁর হাজিরার তারিখ ছিল৷''

তিনি আরো দাবি করেন, ‘‘পলাশের চিকিৎসায় কোনো দেরি আমরা করিনি৷ যেহেতু কারাগারের বিষয়, তাই সব কিছু কারাবিধি অনুযায়ী করতে হয়েছে৷ আমরা দ্রুততার সঙ্গে পরদিনই তাঁকে ঢাকা মেডিক্যালে পাঠিয়েছি৷''

এই ঘটনায় সোমবার হাইকোর্টে বিচারবিভাগীয় তদন্ত দাবি করে রিট করেন আইনজীবী ব্যারিস্টার  ছায়েদুল ইসলাম সুমন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘তিনি কারা হেফাজতে থাকা অবস্থায় অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন৷ পরে মারা গেছেন৷ এটা কারা কর্তৃপক্ষের দায়৷ আর তিনি মারা যাওয়ার আগে যে বক্তব্য দিয়ে গেছেন, তাতে তিনি বলেছেন, দু'জন লোক তাঁর গায়ে কোরোসিন ছুড়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে৷ আমরা এটাকে হত্যাকাণ্ডই বলছি৷ আমরা এই ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছি৷ আজ (মঙ্গলবার) রিটের আংশিক শুনানি হয়েছে৷''

ওই অডিও রেকর্ডটি ডয়চে ভেলের হাতেও এসেছে৷ অডিওতে পলাশ বলেছেন, ‘‘২০১৩ সালে তিনি কোহিনুর কেমিক্যাল কোম্পানিতে আইন কর্মকর্তা হিসেবে যোগ দেন৷

অডিও শুনুন 07:25

‘আমার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে পুড়িয়ে হত্যা করেছে’

এরপর তাঁকে সরকারি জমি দখলসহ নানা অবৈধ এবং অনৈতিক কাজ করতে বলা হয়৷ কিন্তু তিনি তাতে রাজি হননি৷ ২০১৬ সালে তিনি চাকরি থেকে ইস্তফা দেন৷ এরপর তাঁর বিরুদ্ধে ৩১ লাখ টাকা আত্মসাতের মিথ্যা মামলা দেয়া হয়৷ গত ২৫ মার্চ পঞ্চগড়ে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কটুক্তির আরেকটি মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়৷ কারাগারে গিয়ে তাঁকে কয়েক দফা হুমকি দেয়া হয় এবং তার ছবি তোলা হয়৷ তিনি জেলারকে বিষয়টি জানালেও জেলার বিষয়টি আমলে নেননি৷ এরপর ২৫ এপ্রিল সকাল ১০টার দিকে টাইগার (এক ধরনের এনার্জি ড্রিংক)-এর বোতল থেকে  দু'জন লোক কী যেন ছুড়ে দিয়ে আমার গায়ে আগুল লাগিয়ে দেয়৷''

৩০ এপ্রিল দুপুরে ঢাকা মেডিক্যালে মৃত্যুর কিছুক্ষণ আগে এই বক্তব্য দেন পলাশ৷ আর তাঁর বক্তব্য মোবাইল ফোনে রেকর্ড করেন তাঁর ভাগ্নে প্রসেনজিৎ কুমার রায়৷ প্রসেনজিৎ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তখন তাঁর শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল৷ আমরা ভাবিনি তিনি মারা যাবেন৷ তিনি কী মনে করে যেন আমাকে বললেন, তোমার মোবাইলে রেকর্ড হয়? আমি কিছু কথা বলতে চাই৷ এরপর তিনি বললেন এবং আমি আমার মোবাইল ফোনে তাঁর কথা রেকর্ড করি৷ তার  আধা ঘণ্টা পর তিনি মারা যান৷''

এ বিষেয়ে কোহিনুর কেমিক্যাল কোম্পানির বক্তব্য জানার চেষ্টা করেও কাউকে পাওয়া যায়নি৷ প্রতিষ্ঠাননটির প্রধান কার্যালয়ের রিসিপশন থেকে তুহিন নামে একজন বলেন, ‘‘এ বিষয়ে কথা বলার জন্য কেউ অফিসে নেই৷ আর উনি আমাদের এখানে এখন চাকরি করেন না৷''

এদিকে পলাশের মৃত্যুর ঘটনায় এখনো কোনো মামলা হয়নি৷ পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু আক্কাস আহমেদ বলেন, ‘‘আমার থানায় তাঁর বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তির মামলা আছে৷ মারা যাওয়ার পর কেউ মামলা করেনি৷ আর সে তো ঢাকায় মারা গেছে, মামলা হলে সেখানে হবে৷''

নিহত পলাশ কুমার রায়ের মা বলেন, ‘‘আমরা এখনো মামলা করিনি৷ কিভাবে কী করব বুঝে উঠতে পারছি না৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন