পরিযায়ীদের আগমনে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 30.05.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

পরিযায়ীদের আগমনে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ

পরিযায়ী শ্রমিকরা পশ্চিমবঙ্গে ফেরার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার৷ নমুনা সংগ্রহ করা হলেও দ্রুত পরীক্ষা হচ্ছে না৷ উদ্বেগ বাড়ছে প্রশাসনের৷

গোটা দেশের নিরিখে পশ্চিমবঙ্গে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার অপেক্ষাকৃত কমই ছিল৷ কিন্তু পরিযায়ী শ্রমিকদের রাজ্যে ফেরা শুরু হওয়ার সঙ্গে তাল মিলিয়ে এই হার বেড়ে চলেছে৷ দীর্ঘ দু'মাসের লকডাউন পর্ব পার করে পশ্চিমের রাজ্যগুলি থেকে ট্রেনে করে শ্রমিকদের প্রত্যাবর্তন শুরু হয়েছে৷ এখনো পর্যন্ত তিন লাখের বেশি শ্রমিক রাজ্যে পৌঁছেছেন৷ বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, মুর্শিদাবাদ, মালদহ, উত্তর দিনাজপুর, হুগলিসহ বিভিন্ন জেলায় এসে পৌঁছেছে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন৷ এই ট্রেন থেকে নামার পর শ্রমিকদের থার্মাল স্ক্রিনিং করা হচ্ছে৷ রাখা হচ্ছে অস্থায়ী তাঁবুতে৷ তারপর পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে নির্দিষ্ট জেলায়৷ শ্রমিকরা মূলত আসছেন মহারাষ্ট্র ও গুজরাত থেকে৷ ভারতে সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমণ হয়েছে মহারাষ্ট্রে৷ এর ফলে গত কয়েক দিনে পশ্চিমবঙ্গে করোনা পজিটিভ রোগীর সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে অনেকটাই৷ এই রোগীদের সিংহভাগই পরিযায়ী শ্রমিক

পূর্ব বর্ধমান থেকে বাঁকুড়া, হুগলি থেকে বীরভূম, সর্বত্রই একই ছবি দেখা যাচ্ছে৷ বৃহস্পতিবারের বুলেটিন অনুযায়ী, ২৪ ঘণ্টায় ৩৪৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন৷ একদিনের হিসেবে এই হার সর্বোচ্চ৷ অত্যন্ত দ্রুত গতিতে বেড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পশ্চিমবঙ্গে সাড়ে চার হাজার ছাড়িয়েছে৷ লাফিয়ে বাড়ছে করোনার উপসর্গসহ রোগীর সংখ্যাও৷

বৃহস্পতিবার ১৭টি ট্রেনে মহারাষ্ট্রের মুম্বই, পুনে, সোলাপুর, নাগপুর থেকে হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিক পশ্চিমবঙ্গে ফিরেছেন৷ গুজরাতের জামনগর থেকে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন এসে পৌঁছেছে পুরুলিয়ায়৷ রাঢ়বঙ্গের এই জেলা এতদিন গ্রিন জোনে ছিল৷ সেখানেও এই সপ্তাহে প্রথম করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে৷

কীভাবে রাজ্য সরকার এই শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা দিচ্ছে? বাঁকুড়ার ডেপুটি সিএমওএইচ চিকিৎসক সজল বিশ্বাস ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাইরে থেকে এলে ১৪ দিনের জন্য হোম কোয়ারান্টিনে রাখা হচ্ছে৷ উপসর্গ থাকলে পরীক্ষা করা হচ্ছে৷ যদি কারো রিপোর্ট পজিটিভ আসে, তাহলে পাঠানো হচ্ছে দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতলে৷ পরিযায়ী শ্রমিকরা আসার পর সংক্রমণের হার অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে৷’’

অডিও শুনুন 02:31

‘কাঁচামাল শেষ হয়ে গিয়েছে বলে শ্রমিকদের তাড়িয়ে দিচ্ছে’

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টে কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে, ১ মে থেকে এখনো পর্যন্ত ৯১ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিক তাঁদের কর্মস্থল থেকে নিজেদের রাজ্যে ফিরে গিয়েছেন ট্রেনে, বাসে৷ ফলে সব রাজ্যই কমবেশি এই সমস্যার মুখে পড়েছে৷ শ্রমিক সংগঠনগুলির বক্তব্য, এই পরিযায়ীদের কথা কেন্দ্র বা রাজ্য সরকার ভাবেইনি৷ তাই কয়েকশ মাইল হেঁটে বা নদী পার করে, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ হারানো শ্রমিকরা রওনা দিয়েছেন গন্তব্যের উদ্দেশে৷ চিকিৎসকরাও সংকটের কথা স্বীকার করে মানবিকতার প্রশ্নটি সামনে রাখছেন৷ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা মেডিক্যাল সার্ভিস সেন্টারের রাজ্য সম্পাদক, চিকিৎসক অংশুমান মিত্র বলেন, ‘‘লকডাউনের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই এই প্রক্রিয়া শুরু করতে হতো৷ কিন্তু তখন কর্পোরেট সংস্থা চেয়েছিল, তাদের কারখানা চালানোর জন্য কর্মী রেখে দিতে৷ এখন কাঁচামাল শেষ হয়ে গিয়েছে বলে শ্রমিকদের তাড়িয়ে দিচ্ছে৷’’ তিনি জানান, ‘‘এত বেশি সংখ্যায় নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে রিপোর্ট দ্রুত পাওয়া যাচ্ছে না৷ অনেক প্রতিষ্ঠান নমুনা নিতেও চাইছে না৷’’

নমুনা পরীক্ষা, শ্রমিকদের কোয়ারান্টিনে রাখা থেকে তাঁদের উপর নজরদারি, এই প্রক্রিয়া অবশ্যই ধাক্কা খেয়েছে ঘূর্ণিঝড় আমফানের জেরে৷ এর ফলে পরিযায়ীদের সঙ্গে এলাকাবাসীর সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে না৷ বিশেষ করে দুই ২৪ পরগনা, হুগলি, হাওড়া, পূর্ব মেদিনীপুরে স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর ক্ষতি হয়েছে ঝড়ে৷ এর মধ্যে পরিযায়ী শ্রমিকদের ঢল নামায় নমুনা পরীক্ষার বিষয়টি রাজ্য সরকারের কাছে বড় চ্যালেঞ্জের হয়ে দাঁড়াচ্ছে৷ রাজ্যের ৩৮টি পরীক্ষণাগারে ৪৫ হাজারেরে বেশি নমুনা পড়ে রয়েছে, যার পরীক্ষা এখনো হয়নি৷ এগুলির অধিকাংশই পরিযায়ী শ্রমিকদের৷ নাইসেড-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, রোজ ৫০০টি করে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে, যদিও এই হারে পরীক্ষা করলেও জমে থাকা নমুনার ফল পেতে অনেকটাই সময় লাগবে৷ ইতিমধ্যে এসে যাবেন আরো পরিযায়ী শ্রমিক, জমা পড়বে আরো সোয়াব নমুনা৷ ফলে আশঙ্কা বাড়ছে, আগামী দিনগুলিতে যত বেশি সংখ্যায় নমুনা পরীক্ষা করা হবে, রাজ্যে ততই বাড়বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন