পরিবেশ রক্ষা: ফ্রান্স জুড়ে মাক্রোঁর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ | বিশ্ব | DW | 10.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ফ্রান্স

পরিবেশ রক্ষা: ফ্রান্স জুড়ে মাক্রোঁর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁ পরিবেশ রক্ষায় যথেষ্ট ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। ফ্রান্স জুড়ে তাই বিক্ষোভ পরিবেশরক্ষা কর্মীদের।

ফ্রান্সে পরিবেশ নিয়ে মাক্রোঁর বিরুদ্ধে পথে বিক্ষোভকারীরা।

ফ্রান্সে পরিবেশ নিয়ে মাক্রোঁর বিরুদ্ধে পথে বিক্ষোভকারীরা।

পরিবেশের বদল রুখতে একটি বিল এনেছেন মাক্রোঁ। কিন্তু পরিবেশবিদ ও অধিকাররক্ষা কর্মীরা মনে করছেন, মাক্রোঁ বিলে যে ব্যবস্থার কথা বলেছেন, তা যথেষ্ট নয়। তাই রোববার ফ্রান্স জুড়ে বিক্ষোভ দেখান তারা।

দেশজুড়ে ১৬০টা প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে। সংগঠকদের দাবি, তাতে এক লাখ ১৫ হাজার মানুষ যোগ দিয়েছেন। বেশ কিছু এনজিও ও ট্রেড ইউনিয়ন বিক্ষোভে যোগ দেয়। যোগ দেন ছাত্ররাও। পুলিশ অবশ্য বলছে, সব মিলিয়ে বিক্ষোভকারীর সংখ্যা ৪৭ হাজারের মতো।

প্যারিসে বিক্ষোভে অংশ নেয়া প্যাট্রিশিয়া বলেছেন, তিনি প্রেসিডেন্ট মাক্রোঁকে নিয়ে হতাশ। পরিবেশ রক্ষায় তিনি উপযুক্ত ব্যবস্থা নেননি।

মাক্রোঁর পরিকল্পনা

মাক্রোঁর বিল ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে পাস হয়েছে। সেই বিলে বলা হয়েছে, ফ্রান্সের ভিতরে যেখানে প্লেনে যেতে খুব বেশি হলে আড়াই ঘণ্টার মতো লাগে এবং যেখানে ট্রেনে যাওয়া যায়, সেখানে ট্রেনে যেতে হবে। ইলেকট্রিক গাড়ির ব্যবহার বাড়ানো হবে।  যে সব বহুতল ভবনে প্রচুর বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়, তার নবীকরণ হবে।

Frankreich Demo für Klimaschutz in Paris

প্যারিসে বিক্ষোভের ছবি।

২০১৭ সালে মাক্রোঁ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তিনি পরিবেশ নিয়ে গণভোট করবেন। কিন্তু ফ্রান্সের একটি সাপ্তাহিক রোববার জানিয়েছে, সেই পরিকল্পনা আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে। ফ্রান্সের সংবিধান অনুসারে এই গণভোট নিতে হলে পার্লামন্টের উভয়কক্ষে তা অনুমোদন করাতে হয়। কিন্তু উচ্চকক্ষ সেনেটে মাক্রোঁ-বিরোধী রিপাবলাকিন পার্টির সংখ্যাগরিষ্ঠতা আছে। তাদের সঙ্গে পরিবেশ সংক্রান্ত গণভোট নিয়ে মতৈক্যে পৌঁছতে পারেননি মাক্রোঁ। তিনি অবশ্য বলেছেন, গণভোটের সিদ্ধান্ত বাতিল করা হচ্ছে না।

পরিবেশ রক্ষার জন্য

ফ্রান্স ১০ হাজার কোটি টাকার করোনা-প্যাকেজ হাতে নিয়েছে। তাতেও যানবাহনের থেকে নির্গত ধোঁয়া কমাবার ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া ২০৩০ সালের মধ্যে গ্রিনহাউস গ্যাসের পরিমাণ ১৯৯০ সালের তুলনায় ৫৫ শতাংশ করা হবে। গত মাসে ইইউ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ২০৫০ সালের মধ্যে 'ক্লাইমেট নিউট্রাল'-এর লক্ষ্য নিয়ে চলবে তারা।

জিএইচ/এসজি( এপি, রয়টার্স, এএফপি)