পরিবেশ বিপর্যয়ের শিকার পাকিস্তানের এক জেলে সম্প্রদায় | অন্বেষণ | DW | 04.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

পরিবেশ বিপর্যয়ের শিকার পাকিস্তানের এক জেলে সম্প্রদায়

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পাকিস্তানের এক জেলে সম্প্রদায়ের প্রাচীন সংস্কৃতি আজ বিপন্ন৷ মাছের অভাবে হ্রদের উপর ভাসমান গ্রামের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে৷

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে মানচার হ্রদের উপর শুধু হাউসবোট নিয়ে মোহানা জেলে সম্প্রদায়ের ভাসমান গ্রাম৷ অনেক প্রজন্ম ধরে মোহানারা নৌকার উপর বাসা বেঁধে থাকেন৷ কিন্তু মানচার হ্রদের ইকোসিস্টেমের অবনতির ফলে জেলেদের অর্থনৈতিক ক্ষতির মাত্রা বেড়ে চলেছে৷ ভাসমান গ্রামের বাসিন্দা হুসনা মাই বলেন. ‘‘এখানেই আমার জন্ম, এখানেই বিয়ে হয়েছে৷ আমার সন্তানরাও এখানে বড় হয়েছে৷ আমার আট সন্তান৷ আমার স্বামী বধির, তাই আমি তাঁর সঙ্গে মাছ ধরতে যাই৷ এক কিলো মাছ পেলে বিক্রি করে সন্তানদের জন্য রুটি কিনি৷'' 

নৌকার এই গ্রামে মৌলিক পরিষেবারও অভাব রয়েছে৷ এক ঘরের বোট হাউসে রান্নার জন্য ছোট এক চুলা রয়েছে৷ হ্রদের আশেপাশের ঝোপঝাড় থেকে চুলার জন্য লাকড়ি সংগ্রহ করতে হয়৷ চরম আবহাওয়ার কারণে কাঠের নৌকায় থাকা আরও কঠিন হয়ে উঠছে৷ ভাসমান গ্রামের বাসিন্দা খেরি মাই বলেন, ‘‘ঝড়বৃষ্টি হলে আমাদের শিশুরা ও জিনিসপত্র ভিজে যায়৷ সে সময় রান্নাও করতে পারি না৷ তখন খালি পেটে তাদের শুতে যেতে হয়৷''

হুসনা মাই বলেন, যে হ্রদের পানি পান করার যোগ্য নয়৷ পরিষ্কার পানীয় জল কেনার সামর্থ্যও তাদের নেই৷ তিনি বলেন, ‘‘শিশুদের ক্ষুধা কে সইতে পারে! কেউ নয়৷ পানি কিনলে শিশুদের জন্য খাবার কেনার টাকা আর থাকবে না৷ ফলে বাধ্য হয়ে শিশুদের দূষিত পানি খেতে দিতে হয়৷ কাছাকাছি কোনো হাসপাতাল নেই, স্কুলও নেই৷ পানির কোনো ফিল্টারও নেই৷''

এককালে মানচার হ্রদ জীববৈচিত্র্যের জন্য বিখ্যাত ছিল৷ মানুষ, মাছ, জলজ উদ্ভিদ ও পাখি মিলেমিশে সেখানে বাস করতো৷ কিন্তু গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশকে কৃষিকাজে ব্যবহৃত রাসায়নিক ও শিল্পক্ষেত্রের বর্জ্য হ্রদের পানি দূষিত করে তোলে৷

এমন দূষণের পরিণতি হিসেবে মাছের সংখ্যাও কমে গেলো৷ ফলে বাধ্য হয়ে মোহানাদের ভিটেমাটি ছেড়ে চলে যেতে হলো৷ মাছ ব্যবসায়ী গুলাম আকবর বলেন, ‘‘পানি দূষিত হবার আগে প্রতিদিন ২০টি মাছ ভরা ডাটসান ট্রাক পাঠানো হতো৷ অর্থাৎ দিনে প্রায় ৩৭,০০০ কিলো মাছ ধরা হতো৷ এখন সেই পরিমাণ কমে ১,১০০ থেকে ১,৮০০ কিলো ছুঁয়েছে৷''

সিন্ধু নদীর পশ্চিমে প্রায় ২০০ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের মানচার লেক অবস্থিত৷ সম্ভবত মোহেঞ্জোদারো সভ্যতার সময় থেকেই সেই হ্রদে বোট হাউসে বসবাসের ঐতিহ্য চলে আসছে৷ 

ভিডিও দেখুন 04:12

মাছের অভাবে যে গ্রামের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত

মিরবক্স মাল্লাহ মানচার হ্রদ সংরক্ষণের উদ্যোগে জড়িত৷ তাঁর মতে, মানচার হ্রদের বাসিন্দাদের জীবনযাত্রা আগে যথেষ্ট সমৃদ্ধ ছিল৷ কিন্তু মানচার হ্রদের দূষণের কারণে হাউসবোটে বসতির সংস্কৃতি ধারাবাহিকভাবে কমে চলেছে৷ মিরবক্স বলেন, ‘‘সত্তরটি রিভার্স অসমোসিস প্লান্টের জন্য বাজেট থাকা সত্ত্বেও আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা হলো, সেগুলি তৈরি হচ্ছে না৷ বেকারত্ব হলো দ্বিতীয় সমস্যা৷ এখানকার পানি আবার নির্মল হয়ে উঠলে আমাদের কৃষিকাজ, বন্যপ্রাণী ও গবাদি পশু স্থায়ীভাবে এখানে থাকতে পারবে৷''

মানুষের হস্তক্ষেপের কারণে প্রাকৃতিক মিষ্টি পানির হ্রদের মারাত্মক ক্ষতি করেছে৷ হ্রদের ইকোসিস্টেম সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে৷ তা না করলে এই ভাসমান গ্রামগুলি ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য শুধু কাহিনি হিসেবেই বেঁচে থাকবে৷

ইরফান আফতাব/এসবি