পরিবেশ বিপর্যয়ের মোকাবিলা করছেন নারীরা | অন্বেষণ | DW | 09.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

পরিবেশ বিপর্যয়ের মোকাবিলা করছেন নারীরা

দক্ষিণ আফ্রিকায় পরিবেশ বিপর্যয়ের ধাক্কা বিশেষ করে দরিদ্র ও কৃষ্ণাঙ্গ শ্রেণিকে আঘাত করে৷ নারীদের জন্য তা দুর্বিষহ হয়ে ওঠে৷ এক সাহসি নারী অভিনব এক প্রকল্পের মাধ্যমে আশার আলো আনছেন৷

দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গ শহরের মধ্যে ও চারিদিকে খনির আবর্জনা স্তূপ৷ আর্সেনিক, সীসা, দস্তা ও তেজস্ক্রিয় ইউরেনিয়াম মাটিকে বিষাক্ত করে তুলেছে৷ গত কয়েক বছরে আরও ঘনঘন জোরালো বৃষ্টি ও বালুঝড় দেখা যাচ্ছে৷ ফলে বাতাস বিষাক্ত ধুলা গোটা এলাকায় আরও ছড়িয়ে দিচ্ছে৷

ডিভিলে মোকোয়েনা এমনই এক প্রেক্ষাপটে পরিবেশ অ্যাক্টিভিস্ট হয়ে উঠেছেন৷ তাঁর দিদির দুই ছেলে রয়েছে৷ সোয়েটো টাউনশিপে বাপের বাড়িতেই তারা থাকে৷ সেই বাড়িতেই ডিভিলে ছেলেবেলা কাটিয়েছেন৷ জলবায়ু পরিবর্তনযে সবার আগে গরিব মানুষের ক্ষতি করে, তাঁর দ্রুত সেই উপলব্ধি হয়েছিল৷ ডিভিলে বলেন, ‘‘জলবায়ু পরিবর্তন শুধু পরিবেশের সমস্যা নয়৷ সেটি উন্নয়নের উপর প্রভাব রাখে, মানবাধিকার খর্ব করে, সামাজিক সমস্যা হয়ে ওঠে৷ জলবায়ু পরিবর্তনের পরিণতির দিকে নজর দিয়ে তার প্রস্তুতি নিয়ে ভাবনাচিন্তা করলে বোঝা যায়, যে নারী ও শিশুরা সবচেয়ে বেশি বিপন্ন৷''

ভিডিও দেখুন 05:20
এখন লাইভ
05:20 মিনিট

পরিবেশ রক্ষায় নারীদের লড়াই

ডিভিলে দক্ষিণ আফ্রিকায় অ্যাপারথাইড বা বর্ণবৈষম্যের যুগে বড় হয়েছেন৷ শৈশবেই তিনি টের পেয়েছিলেন, কীভাবে দরিদ্র ও কৃষ্ণাঙ্গদেরই খনির আবর্জনার স্তূপ সামলাতে হয়৷ শ্বেতাঙ্গ ধনী পাড়া থেকে নিরাপদ দূরত্বে, টাউনশিপগুলির পাশেই সেই আবর্জনা ফেলা হতো৷

নারীদের দ্বিগুণ সমস্যার মুখে পড়তে হতো৷ পরিবেশ বিপর্যয়ের ফলে সবার ক্ষতি হলেও পিতৃতান্ত্রিক সমাজে তাদের আত্মরক্ষার সুযোগ ছিল অনেক কম৷ ডিভিলে-কেও সেই সমস্যার মোকাবিলা করতে হয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘ঐতিহ্য অনুযায়ী পুরুষরা বিয়ের পর প্রথম সন্তান হিসেবে ছেলে প্রত্যাশা করে৷ আমার জন্মের পর বাবা-মা দেখলেন, তাদের তৃতীয় সন্তানও মেয়ে৷ বাবা বললেন, যথেষ্ট হয়েছে, আর মেয়ে নয়৷ আমার নামের অর্থও তাই – ‘যথেষ্ট হয়েছে'৷''

ডিভিলে চার বোনের মধ্যে তৃতীয় ছিলেন৷ তাঁর বাবা ছিলেন গর্বিত পুরুষ৷ তিনি পরিবারের দেখাশোনা করতেন৷ কিন্তু অন্যদিকে ঐতিহ্যও মেনে চলতেন৷ তাই মেয়েদের প্রশিক্ষণে বিনিয়োগের কোনো কারণ দেখেননি৷

ডিভিলে তা সত্ত্বেও উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেছেন৷ পড়াশোনার খরচ চালানোর জন্য যথেষ্ট আয় করতেন৷ প্রথমে ব্যাংকের কেরানি হিসেবে, তারপর বড় এক জাতীয় সংবাদপত্রের বিপণন বিভাগে কাজ করেছেন৷ একই সময়ে তিনি বিভিন্ন সামাজিক প্রকল্পেও সক্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি৷ তারপর চাকুরি ছেড়ে সোয়েটো টাউনশিপে পরিবেশ সংরক্ষণে প্রচার অভিযান আয়োজন শুরু করেন তিনি৷

আজ তিনি দক্ষিণ আফ্রিকায় ‘জেন্ডার ইনটু আর্বান ক্লাইমেট চেঞ্জ' নামের এক উদ্যোগের সমন্বয়ক৷ জলবায়ু পরিবর্তনের পরিণতি সামলানোর ক্ষেত্রে গোটা বিশ্বে নারীদের ভূমিকা জোরালো করছেন তিনি৷ জোহানেসবার্গ শহরে এক কর্মশালায় সমন্বয়করা নিজেদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করছেন ও চ্যালেঞ্জের কথা বলছেন৷

দক্ষিণ আফ্রিকায় এই উদ্যোগ দু'টি শহরের সঙ্গে কাজ করে – শোয়ানে ও জোহানেসবার্গ৷ ডিভিলে শহুরে এলাকায় পরিবেশবান্ধব কৃষিকাজে বিশেষভাবে আগ্রহী৷ জোহানেসবার্গ শহরের মাঝে জুবার্ট পার্কে সেই স্বপ্ন এর মধ্যেই বাস্তব হয়ে উঠেছে৷

পরিত্যক্ত এক গ্রিনহাউসে আজ শাকসবজি ও জড়িবুটির চাষ হচ্ছে৷ এই সমবায় দুই বেকার নারীকে কাজ দিয়েছে৷ ডিভিলে মোকোয়েনা বলেন,  ‘‘এই দুই তরুণীর বাসার কাছে নিজস্ব জমি রয়েছে৷ স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে তাঁরা গ্রিনহাউসের দেখাশোনা করেন৷'' 

ভিডিও দেখুন 01:11
এখন লাইভ
01:11 মিনিট

জলবায়ু পরিবর্তনে পুরুষের চেয়ে মেয়েদের ক্ষতি হয় বেশি

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে কৃষি পদ্ধতিরও পরিবর্তন করতে হচ্ছে৷ ‘গার্ডেন ফর দি উইমেন' প্রকল্প নারীদের আরও টেকসই পদ্ধতিতে উৎপাদনের প্রশিক্ষণ দেয়৷ এভাবে তারা নিজের আয় বাড়িয়ে সমাজে খাদ্য নিরাপত্তা বাড়াতে পারবে৷ সেই প্রকল্পে যুক্ত মামোসওয়েউ সোয়াবি৷ তিনি বলেন, ‘‘গ্রিনহাউসে আমরা অরগ্যানিক শাকসবজি চাষ করি৷ এই প্রয়াস আমাদের নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে সাহায্য করছে৷ স্থানীয় বাজারেই আমরা শাকসবজি বিক্রি করি৷ ফলে প্রতি সপ্তাহে আমাদের আয় হয়৷''

রাজনীতিকদের নজর আকর্ষণ করা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ৷ শহর কর্তৃপক্ষ গ্রিনহাউস সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল৷ তবে একেবারে শেষ মুহূর্তে অর্থায়ন কমিয়ে দেওয়া হয়৷ ডিভিলে বলেন, ‘‘এখনো দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবে৷ তবে তাদের রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের মূল্যায়ন, তাদের সমালোচনা করে উন্নতির প্রস্তাব পেশ করতে করতে আমরা ক্লান্ত হবো না৷ ঘাটতি দেখলেই মুখ খুলবো৷''

এমন কাজের জন্য তাঁর সাহস ও ধৈর্যের শেষ নেই৷

স্টেফান ম্যোল/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও