পরিবেশ দূষণ মোকাবিলায় ডমিনিকান রিপাবলিকে উদ্যোগ | অন্বেষণ | DW | 21.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

পরিবেশ দূষণ মোকাবিলায় ডমিনিকান রিপাবলিকে উদ্যোগ

ক্যারিবীয় অঞ্চলের দেশ ডমিনিকান রিপাবলিকে দূষণ একটা বড় সমস্যা৷ এক ব্যক্তির উদ্যোগে সে দেশের সরকার জঞ্জাল রিসাইক্লিংয়ের পথে অগ্রসর হচ্ছে৷ সাধারণ মানুষও সেই উদ্যোগের সুফল টের পাচ্ছেন৷

সান ক্রিস্টোবাল শহরের নিগুয়া নদী সত্যি খুব সুন্দর হতে পারতো৷ কিন্তু নদীর তীর আবর্জনায় ভরা৷ মানুষ যেখানে পারে জঞ্জাল ফেলে৷ এমন পরিস্থিতি গণস্বাস্থ্যের জন্য বড় ঝুঁকি সৃষ্টি করছে৷ ডিওনিসিও ব্রিটো এ কারণে বেশ কিছুকাল ধরে ক্ষুব্ধ৷ তিনি সান ক্রিস্টোবাল শহরের দরিদ্র একটি পাড়ার স্থানীয় সমিতির সভাপতি৷ ডিওনিসিও বলেন, ‘‘এখানকার নদী জঞ্জালের কারণে মারাত্মকভাবে দুষিত হয়ে গেছে৷ ফলে গোটা এলাকার মানুষেরও ক্ষতি হচ্ছে৷ ইঁদুর, মাছি, মশা নানা রোগের জীবাণু বহন করছে৷ তাছাড়া অনেক শিশু জঞ্চালের মধ্যে হেঁটে বেড়ায়৷ সত্যি কথা বলতে কি, এসব দেখে আমার মনে খুব দুঃখ হয়৷''

তবে ডিওনিসিও ব্রিটো-র উদ্যোগে সেই পাড়ায় কিছু পরিবর্তন আসছে৷ তাঁর সঙ্গে স্থানীয় স্কুলে গেলে তার কিছুটা আন্দাজ পাওয়া যায়৷ সেই স্কুলকে সবাই ‘প্রকল্প' হিসেবেই জানে৷

এই উদ্যোগের ক্ষেত্রে শিক্ষা একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ৷ বিজ্ঞান শিক্ষক হুয়ান পাবলো ফাবিয়ান তাঁর ক্লাসে শিক্ষার্থীদের সামনে জঞ্জাল আলাদা করার গুরুত্ব তুলে ধরছেন৷ কারণ, সেটা না করলে গ্রিনহাউস গ্যাস সৃষ্টি হয়, জলবায়ুর জন্য যা ক্ষতিকর৷ বিজ্ঞান শিক্ষক হুয়ান পাবলো ফাবিয়ান বলেন, ‘‘কাঠের এই বাক্সে আমাদের অরগ্যানিক জঞ্জাল যাবে৷ বিশেষ কয়েক ধরনের পোকা ও ব্যাকটেরিয়ার কল্যাণে এই অরগ্যানিক জঞ্জালে পচন ধরে৷  সেটি ইঁদুর আকর্ষণ করে না৷ কোনো দুর্গন্ধ ছাড়াই ময়লা পচে যায়৷ ইঁদুররা তো দুর্গন্ধই পছন্দ করে৷''

ভিডিও দেখুন 05:30

পরিবেশ দূষণ মোকাবিলায় অভিনব উদ্যোগ

দুপুরে বিরতির সময় সেই তত্ত্ব হাতেনাতে যাচাই করার সুযোগ পাওয়া যায়৷ মধ্যাহ্নভোজের পর স্কুলপড়ুয়ারা অবশিষ্ট খাবারের উপযুক্ত অংশ ক্যান্টিনের পেছনে সার তৈরির জায়গায় ফেলে দেয়৷ সেখানেই এই জঞ্জাল জমা হয়৷

জাতীয় স্তরেও এমন ব্যক্তিগত উদ্যোগের সার্থকতা রয়েছে৷ জার্মানির আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা জিআইজেড ও একাধিক পরিবেশ সংগঠনের সহায়তায় রাজনৈতিক নেতা হিসেবে ফ্রানসিস্কো মাটোস গুরুত্বপূর্ণ আইনের একটি খসড়া সৃষ্টি করেছেন৷ অদূর ভবিষ্যতে সেটি সেনেটে অনুমোদন করা হবে বলে শোনা যাচ্ছে৷ এর আওতায় ভবিষ্যতে বেসরকারি কোম্পানিগুলিকে জাতীয় স্তরে এক রিসাইক্লিং প্রণালী গড়ে তুলতে সাহায্য করতে হবে৷ সেইসঙ্গে আবর্জনার সব খোলা বন্ধ করে দেওয়া হবে৷ রাজনৈতিক নেতা ফ্রানসিস্কো মাটোস বলেন, ‘‘এই আইনের মাধ্যমে সব বিষাক্ত এলাকা বিষমুক্ত করা হবে৷ একবার ভেবে দেখুন, কোনো দেশে ৩৫০টি কলুষিত আবর্জনার ডিপো রয়েছে, যার জন্য তারা নিজেরাই দায়ী৷ সেগুলি মেরামত করা কি সহজ কাজ? পুরানো ডিপো বন্ধ করতে আইন পাস হলে সরকার তা করতে বাধ্য হবে৷ সেটা হবে বিশাল অগ্রগতি ''

এখনো পর্যন্ত গোটা দেশে একটি মাত্র রিসাইক্লিং প্ল্যান্ট রয়েছে৷ ২০১৭ সালে সান্তিয়াগোতে সেটির উদ্বোধন হয়েছিল৷ সেখানে দৈনিক এক হাজার টনেরও বেশি আবর্জনা আসে৷ কোম্পানির সূত্র অনুযায়ী, তার মাত্র ১৫ শতাংশ পুনর্ব্যবহারের উপযোগী নয়৷ বাকিটা শিল্পের জ্বালানি বা কৃষিকাজের সারে রূপান্তরিত করা হয়, অথবা অন্যভাবে পুনর্ব্যবহার করা হয়৷

সান ক্রিস্টোবাল শহরে ফেরা যাক৷ নদীর তীরের যে অংশ পরিষ্কার করা হয়েছে, ডিওনিসিও ব্রিটো তার ফলে গর্বিত৷ সেখানে এক সময় আবর্জনার ডিপো ছিল, মাটি জঞ্জালে ঢাকা ছিল৷ তিনি সেই দিনের ছবি দেখালেন, যে দিন অনেক স্বেচ্ছাসেবী এসে জায়গাটা পরিষ্কার করেছিলেন৷ ডিওনিসিও ব্রিটো বলেন, ‘‘এখন এখানকার পরিবেশ আবার পরিষ্কার হয়ে গেছে, বাতাসও নির্মল, দূষণ দূর হয়েছে৷ ফলে মানুষও উৎসাহ পাচ্ছে৷ আগে তাঁদের এ বিষয়ে কোনো ধারণা বা জ্ঞান ছিল না৷ এই প্রকল্প তাঁদের জ্ঞান বাড়িয়েছে এবং তাঁরা সেই সুযোগের সদ্ব্যবহার করেছে৷''

স্থানীয় মানুষ আজ নদীর এই অংশে এমনকি সাঁতারও কাটতে পারেন৷ বিশেষ করে শিশুরা তার ফলে খুবই আনন্দ পাচ্ছে৷

ক্রিস্টোফর স্প্রিনগেট/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন