পরমাণু কর্মসূচি স্থগিত করেছে উত্তর কোরিয়া | বিশ্ব | DW | 21.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

পরমাণু কর্মসূচি স্থগিত করেছে উত্তর কোরিয়া

এক ঐতিহাসিক ঘোষণায় উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য পারমাণবিক কর্মসূচি স্থগিত করেছেন৷ এমনকি একটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাস্থলও একেবারে বন্ধ করে দিয়েছে তারা৷

উত্তর কোরিয়ার কেন্দ্রীয় বার্তা সংস্থা কেসিএনএ জানিয়েছে এ কথা৷বার্তা সংস্থাটির মতে, এই ঘোষণা তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর করা হয়েছে, এবং এর মধ্য দিয়ে পারমাণবিক অস্ত্র কমিয়ে আনা ও এর ব্যবহার থেকে বিরত থাকার বিশ্বব্যাপী যে উদ্যোগ সেখানে উত্তর কোরিয়াও যুক্ত হলো

ঘোষণায় কিম বলেন, গত জানুয়ারিতে যখন যতটা পরমাণু শক্তি অর্জন করা প্রয়োজন ততটা করা হয়ে গেছে বলে তিনি জানিয়েছিলেন, তখনই কোরীয় উপদ্বীপে শান্তির সুবাতাস বইতে শুরু করেছিল৷

তিনি বলেন যে, আর কোনো ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার প্রয়োজন হবে না৷

তবে যে পরমাণু শক্তি অর্জন করেছে উত্তর কোরিয়া, যাকে তা কমিয়ে আনার কোনো পরিকল্পনা আছে কিনা, তা নিয়ে কিছুই বলেননি কিম৷

ঘোষণার পর টুইট বার্তায় প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ তিনি লিখেছেন, ‘‘উত্তর কোরিয়া ও বিশ্বের জন্য সুখবর এটি৷''

এটাকে একটা ‘বড় অগ্রগতি' বলে উল্লেখ করে তিনি লেখেন যে, কিমের সঙ্গে সাক্ষাতের অপেক্ষায় আছেন তিনি৷

এদিকে, জার্মান বার্তা সংস্থা ডিপিএ'র কাছে উত্তর কোরিয়া বিশেষজ্ঞ হার্টমুট কোসচিক বলেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে শান্তি আলোচনার আগে উত্তর কোরিয়া তাদের অবস্থান পোক্ত করে নিয়েছে৷

‘‘কয়েকটি সফল পারমাণবিক পরীক্ষা চালিয়ে কিম তাঁর জায়গা এতটাই পোক্ত করে ফেলেছেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তিনি শান্তি আলোচনায় সমান সমান লড়াই চালিয়ে যেতে পারবেন৷''

কিমের এই ঘোষণাকে সাধুবাদ জানিয়েছে চীনও৷ তারা জানিয়েছে যে, উত্তর কোরিয়ার অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও কোরীয় উপদ্বীপে পরমাণু শক্তি কমিয়ে আনার ব্যাপারে কাজ করবে তারা৷

দক্ষিণ কোরিয়া এই ঘোষণাকে কোরীয় উপদ্বীপকে ‘পরমাণু অস্ত্রমুক্ত' করার ক্ষেত্রে ‘অর্থপূর্ণ অগ্রগতি' বলে চিহ্নিত করেছে৷

এক বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে যে, আন্তঃকোরীয় ও উত্তর কোরিয়া-যুক্তরাষ্ট্র সম্মেলনকে সামনে রেখে তাদের এই উদ্যোগ খুব ইতিবাচক পরিবেশ তৈরি করবে৷

জাপান অবশ্য একটু সতর্কভাবে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে৷ প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বলেছেন, ‘‘আমরা উত্তর কোরিয়ার ঘোষণাকে সাধুবাদ জানাই৷ তবে আমাদের দেখতে হবে সত্যিকারভাবে কী উপায়ে পরমাণু অস্ত্র কমিয়ে আনা যায়৷''

আগামী শুক্রবার ঐতিহাসিক আন্ত:কোরীয় শীর্ষ বৈঠক৷ এ বৈঠকে ১৯৫৩ সালে শেষ হওয়া কোরিয়া যুদ্ধের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তির জন্য একটি শান্তি চুক্তি স্বাক্ষর হবার কথা৷ এছাড়া উপকূলকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করার বিষয়েও আলোচনা হবার কথা রয়েছে৷

এছাড়া আগামী জুনে কিম ও ট্রাম্পের বৈঠক হবার কথা রয়েছে৷

জেডএ/ডিজি (ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়