পবিত্র কোরান নিয়ে ‘পরীক্ষা′ করলো পশ্চিমারা | বিশ্ব | DW | 10.12.2015
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

পবিত্র কোরান নিয়ে ‘পরীক্ষা' করলো পশ্চিমারা

প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে ‘ইসলামিক স্টেট’ ও ইসলাম ধর্মের মধ্যে একটা সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করছে বিশ্ব৷ ইসলাম মানেই জঙ্গিবাদ, ইসলাম মানেই যুদ্ধ – এমন ধারণা উঁকি মারছে যত্রতত্র৷ কিন্তু কোরান কি সত্যি এতটা আগ্রাসী?

আসন্ন মার্কিন নির্বাচনে রিপাবলিকান দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প তো বলেই দিলেন, ‘‘অ্যামেরিকার প্রতি মুসলিমদের বিদ্বেষ এত তীব্র যে তা ‘ধারণারও বাইরে'৷ এই ঘৃণার উৎস কী এবং অ্যামেরিকার জন্য তা কী হুমকি সৃষ্টি করেছে, তা পুরোপুরি বুঝে না ওঠা পর্যন্ত মুসলিমদের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা চালু রাখতে হবে৷''

আচ্ছা, তাহলে পাশ্চাত্য কি সত্যিই মুসলমানদের বাসের অযোগ্য? কোরান আর বাইবেল কি তবে একে অপরের পরিপন্থি? এ প্রশ্ন জেগেছিল পশ্চিমেরই কিছু তরুণের মাথায়৷ যুক্তি-তর্কে না গিয়ে ওরা একটা ‘এক্সপেরিমেন্ট' বা পরীক্ষা করবে বলে স্থির করলো৷

ভিডিওটা দেখলেই বুঝবেন৷ তবে পরীক্ষাটা অনেকটা এ রকম৷ একটি বাইবেল নিয়ে তার ওপর পবিত্র কোরানের মলাট দিয়ে দিলো ওরা৷ তারপর ধর্মগ্রন্থটির যে অংশগুলি পাশ্চাত্যের আধুনিক সভ্যতার সঙ্গে খাপ খায় না, সেগুলি আলাদা আলাদা করে চিহ্নিত করলো৷ ব্যাস্, ‘হোমওয়ার্ক' শেষ৷ এরপর রাস্তায় গিয়ে সাধারণ মানুষের কাছে সেই অংশগুলো পড়ে শোনালো ওরা৷ মজার বিষয়, উপস্থিত সকলেই কিন্তু ঐ অংশগুলোকে কোরানের অংশ বলে মেনে নিলেন, এমনকি নারী বিদ্বেষী অংশগুলিও৷ কী লেখা ছিল বইটায়? নারীকে হতে হবে ধীর-স্থির, শান্ত৷ তাকে পুরুষের ইচ্ছা-অনিচ্ছার সঙ্গে তাল মানিয়ে চলতে হবে৷ ঔদ্ধত্য নয়, বরং পুরুষের আধিপত্য মেনে নেয়াই নারীর গুণ৷ নারীদের উচ্চ শিক্ষার প্রয়োজন নেই, নারীকে শাসন করতে হবে, প্রয়োজনে তার হাত কেটে ফেলতে হবে৷ আর সমকামিতা? দু'জন পুরুষ যদি যৌন সম্ভোগ করে তবে তাদের হত্যা করা স্রেয়৷

কি? এমনটা কি আজকের দিনে ভাবা যায়? প্রশ্ন করা হলো সকলকে৷ ‘‘অসম্ভব৷ আজকের দিনে এর কোনো অর্থই হয় না৷''

আবারো নতুন প্রশ্ন রাখা হলো৷ আচ্ছা, বাইবেলের সঙ্গে কোরানের পার্থক্য কোথায় বলুন তো? ‘‘কোরান অনেক বেশি আগ্রাসী৷'' ‘‘বাইবেলে নারীকে অনেক বেশি সম্মান দেয়া হয়েছে৷'' ‘‘বাইবেল শান্তির কথা বলে, হিংসার নয়৷''

এখানেই শেষ নয়৷ একজন তো বলে উঠলেন, ‘‘পশ্চিমা বিশ্ব বাকস্বাধীনতায় বিশ্বাসী৷ পৃথিবী পালটে গেছে৷ অথচ এখনও এমন কিছু মানুষ আছে, যারা ঐ মান্ধাতা আমলের কিছু লেখাকে ‘শেষ কথা' বলে মেনে আসছে৷ এটা বদলানো দরকার৷ প্রয়োজন একটা সংস্কারের৷''

এবার পরীক্ষার শেষ পর্ব৷ মলাট খুলে ফেলা হতেই বেরিয়ে এলো ভেতরের বাইবেলটি৷ অবিশ্বাস্য, তাই না?

আসলে ইসলাম কথার অর্থ তো ‘শান্তি'৷ তাহলে মানুষের মধ্যে এমন ধারণা, অন্ধবিশ্বাস কোথা থেকে এলো? ‘‘হয়ত এটাও মিডিয়ারই সৃষ্টি'', বললেন একজন৷

বন্ধুরা, আপনার কী মনে হয়? বাইবেল আর কোরান – এই দুটি ধর্মগ্রন্থ কি তাহলে একে অপরের পরিপন্থি নয়?

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন