পদার্থ বিজ্ঞানকে জনপ্রিয় করতে শুরু হচ্ছে ‘ফিজিক্স অলিম্পিয়াড’ | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 02.01.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

পদার্থ বিজ্ঞানকে জনপ্রিয় করতে শুরু হচ্ছে ‘ফিজিক্স অলিম্পিয়াড’

সত্যেন্দ্রনাথ বোস, স্যার জগদীশ চন্দ্র বসুর মতো বাঙালি পদার্থবিজ্ঞানীর দেখা পাওয়া যাচ্ছে না বহুদিন৷ বর্তমান প্রজন্ম বিজ্ঞান চর্চায় ততটা আগ্রহী নয়৷ তরুণদের মধ্যে উৎসাহ আবার ফিরিয়ে আনতে আয়োজন করা হচ্ছে ফিজিক্স অলিম্পিয়াডের৷

default

বর্তমান প্রজন্ম বিজ্ঞান চর্চায় ততটা আগ্রহী নয়

জানুয়ারি মাসেই শুরু হচ্ছে অলিম্পিয়াড৷ আয়োজনের দিক দিয়ে এবারেরটা হবে দ্বিতীয়৷ তবে প্রথমবার শুধু ঢাকায় হলেও এবার বাংলাদেশ জুড়েই হবে সেটা৷ ফলে দেশের সব এলাকার শিক্ষার্থীরা তাদের মেধা দেখানোর সুযোগ পাবে৷

প্রতিটি বিভাগ থেকে শিক্ষার্থী বাছাইয়ের পর ফেব্রুয়ারিতে ঢাকার নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে মূল প্রতিযোগিতা৷ তিনটি গ্রুপ নির্ধারণ করা হয়েছে৷ সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ফেলা হয়েছে গ্রুপ এ'তে, নবম ও দশম শ্রেণি থাকছে গ্রুপ বি'তে, আর একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা গ্রুপ সি'তে৷

পদার্থবিদ্যা বিষয়ে কুইজ প্রতিযোগিতা, প্রতিবেদন ও প্রজেক্ট উপস্থাপন, সেমিনার ও ভিডিও শো'র আয়োজন থাকবে অলিম্পিয়াডে৷

প্রতিযোগিতার মাধ্যমে পাঁচজনকে বাছাই করা হবে৷ যাদেরকে জুলাইতে এস্টোনিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য ৪৩ তম বিশ্ব ফিজিক্স অলিম্পিয়াডে নিয়ে যাওয়া হবে৷ এর আগে একবারই বাংলাদেশ ঐ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল৷ তাতে ‘বেস্ট নিউকামার অ্যাওয়ার্ড'সহ তিনটি পদক জিতেছিল বাংলাদেশ৷ থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ঐ অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কোচ হিসেবে গিয়েছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. আরশাদ মোমেন৷

Bangladesch Schüler Schulkasse in Dhaka Prüfung

তাঁর কাছে জানতে চেয়েছিলাম কেন এই আয়োজন? তিনি বললেন, ‘‘শিক্ষার্থীদের কাছে পদার্থবিদ্যা তথা বিজ্ঞানচর্চাকে জনপ্রিয় করে তোলাই এর মূল উদ্দেশ্য৷''

ফিজিক্স অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. খোরশেদ আহমেদ কবির বলেন, ভারত প্রথম ইন্টারন্যাশনাল ফিজিক্স অলিম্পিয়াডে অংশ নেয়ার পর থেকেই ভারতে শিক্ষার মান উন্নত হয়েছে৷ তাই বাংলাদেশের জন্য এ ধরনের আয়োজন যথেষ্ট গুরুত্ব বহন করে৷

সহ-সভাপতি ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, এর মাধ্যমে ভালো ছেলেমেয়ে বাছাই করে তাদেরকে সত্যিকারের বিজ্ঞানী হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করা হবে৷

তবে অলিম্পিয়াড আয়োজকদের নানা সমস্যার কথা বললেন ঢাবি অধ্যাপক ড. মোমেন৷ তিনি বলছেন, পাঁচ ছয় বছর আগে থেকে বাংলাদেশে গণিত অলিম্পিয়াড হচ্ছে৷ সেটা বেশ জনপ্রিয়তাও পেয়েছে৷ ফলে স্পন্সররাও আর্থিক সহায়তা নিয়ে এগিয়ে এসেছে৷ কিন্তু ফিজিক্স অলিম্পিয়াডটা যেহেতু নতুন তাই স্পন্সর পেতে কিছুটা অসুবিধা হচ্ছে৷

কিন্তু তারপরও সাফল্যের সঙ্গে অলিম্পিয়াড আয়োজনের ব্যাপারে আশাবাদী ড. মোমেন৷ তিনি বলছেন, বিশ্ব অলিম্পিয়াডের জন্য চূড়ান্তভাবে যে পাঁচজনকে বাছাই করা হবে তারা ছাড়াও আরো বিশ জনকে নিয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে - যেন আগের চেয়েও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এবার ভাল করা যায়৷

ফিজিক্স অলিম্পিয়াড সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে লগ ইন করুন www.bdpho.org এই সাইটে৷ এছাড়া ফেসবুকেও পাবেন একটি গ্রুপ৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন