1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
প্রতীকী ছবিছবি: Jakub Porzycki/NurPhoto/imago images

নেপথ্যে চলছে ইউক্রেন-রাশিয়ার সাইবার যুদ্ধ

৯ মে ২০২২

ইউক্রেনের যুদ্ধে নিরীহ মানুষের ভয়াবহ অবস্থার দৃশ্য গোটা বিশ্বকে নাড়িয়ে দিচ্ছে৷ মূল যুদ্ধের পাশাপাশি সাইবার যুদ্ধ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংঘাতও কম হচ্ছে না৷ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আজকের সংকটকে ভিন্ন মাত্রা দিচ্ছে৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%AA%E0%A6%A5%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%87-%E0%A6%9A%E0%A6%B2%E0%A6%9B%E0%A7%87-%E0%A6%87%E0%A6%89%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%AF%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%A7/a-61734467

অনলাইনেও ইউক্রেন-রাশিয়া লড়াই

এ পর্যন্ত হ্যাকারদের এমন বাহিনী কখনো দেখা যায়নি৷ ইউক্রেনকে রাশিয়ার ডিজিটাল হামলারও মোকাবিলা করতে হচ্ছে৷ ইউক্রেনের উপ প্রধানমন্ত্রী ও ডিজিটাল বিষয়ের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী মিখাইলো ফেডেরভের ডাকে সাড়া দিয়ে আড়াই লাখেরও বেশি স্বেচ্ছাসেবী সে দেশের আই-টি সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছেন৷ রাশিয়ার উপর সাইবার হামলাই তাঁদের লক্ষ্য৷ অক্সফোর্ড ইনফরমেশন ল্যাবসের জর্জিয়া অসবোর্ন বলেন, ‘‘সেই বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে দেশপ্রেমী হ্যাকিং অ্যাক্টিভিস্ট রয়েছে৷ তারা কখনো বিঘ্ন ঘটাচ্ছে, কখনো বা সরকারের ওয়েবসাইট বিকল করে লজ্জাজনক অবস্থা সৃষ্টি করছে৷ কিন্তু আমার মতে সাইবার যুদ্ধের ঘোষণা তারা করে নি, বরং বিবৃত করছে৷''

মূলত অস্ত্রের জোরেই ইউক্রেনে যুদ্ধ চালানো হচ্ছে৷ শহরে বোমাবর্ষণ, আবাসন ধ্বংসের কারণে মানুষকে ভিটেমাটি ছেড়ে পালাতে হচ্ছে৷ দৃশ্যমান সেই যুদ্ধের পাশাপাশি দুই পক্ষই অনলাইন ও ডিজিটাল হামলাও চালাচ্ছে৷ সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ হিসেবে স্টেফান দুগ্যাঁ মনে করেন, ‘‘সাইবার হামলা ঘটলে পানি, খাদ্য, জ্বালানি ও স্বাস্থ্য পরিষেবার মতো ক্ষেত্রে বিঘ্ন ঘটে৷ সংঘাতের ঝুঁকির মধ্যে আমরা এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছি৷'' 

অনলাইনেও ইউক্রেন-রাশিয়া লড়াই

তবে পথে ট্যাংক নামার আগেই হ্যাকাররা ইউক্রেনের উপর হামলা চালিয়েছে৷ সরকার ও ব্যাংকের ওয়েবসাইট বিকল করে দেওয়া হয়েছে এবং সংক্রমিত কম্পিউটারে ম্যালওয়্যার তথ্য নষ্ট করে দিয়েছে৷

২০১৪ সালে ইউক্রেনে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের উপর বড় আকারের সাইবার হামলা ঘটেছিল৷ ২০১৫ ও ২০১৬ সালে হ্যাকাররা শীতের মাঝে বিদ্যুৎ নেটওয়ার্কের একটা অংশ বন্ধ করে দিয়েছিল৷ ২০১৭ সালে এক সাবোটাজ সফটওয়্যার হার্ড ডিস্ক ও সার্ভার মুছে দিয়েছিল৷ জর্জিয়া অসবোর্ন বলেন, ‘‘২০১৭ সালে নোটপেটিয়া নামের বড় আকারের এক হামলার ফলে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে শিল্পজগতের ক্ষতি হয়েছিল৷ মেয়ার্স্ক নামের জাহাজ কোম্পানিও সেই ধাক্কা সামলেছে৷ অনেক শিল্পের উপর এমন হামলায় গোটা বিশ্বে প্রায় এক হাজার কোটি ডলার অংকের ক্ষতি হয়েছে৷ অর্থাৎ বিশ্বব্যাপী এর বড় প্রভাব টের পাওয়া গেছে৷''

রাশিয়া থেকে সন্দেহভাজন সাইবার হামলা আজও বন্ধ হয়নি৷ গুপ্তচরবৃত্তির মাধ্যমে তথ্য চুরি থেকে শুরু করে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মতো অবকাঠামোর উপর ডিজিটাল হামলা ঘটছে৷ সামরিক বাহিনীর যোগাযোগও লক্ষ্যবস্তু হয়ে উঠেছে৷ গিসেকে ও ডেভরিয়েন্ট কোম্পানির কর্ণধার রাল্ফ ভিন্টারগ্যার্স্ট বলেন, ‘‘ভুলবেন না, আজ প্রতিটি ট্যাংক, প্রত্যেকটি বিমানে উন্নত কম্পিউটার বসানো রয়েছে, যেগুলি নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত৷ সেই সব যন্ত্রের মধ্যে বড় আকারের সাইবার প্রযুক্তি রয়েছে৷''

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ইউক্রেন রাশিয়ার হামলার মোকাবিলা করছে৷ ডিজিটাল মন্ত্রী মিখাইলো ফেডেরভ তাঁর যুদ্ধবিরোধী অভিযানে টুইটার ব্যবহার করছেন৷ ইন্টারনেট চালু রাখতে তিনি ইলন মাস্ককে অনুরোধ করেছেন৷ মাস্ক সেই অনুরোধে সাড়াও দিয়েছেন৷

তিনি বিদেশি কোম্পানিগুলির উদ্দেশ্যে রাশিয়াকে বয়কট করার ডাক দিয়েছেন৷ ইতোমধ্যে অসংখ্য কোম্পানি সে দেশ ত্যাগ করেছে৷ অর্থনৈতিক ক্ষতির মাত্রা বিশাল হয়ে উঠছে৷ অক্সফোর্ড ইনফরমেশন ল্যাবসের জর্জিয়া অসবোর্ন বলেন, ‘‘ডিজিটাল মন্ত্রী হিসেবে ফেডেরভ টুইটারে অত্যন্ত সক্রিয়৷ তিনি রাশিয়ার ব্যবসাবাণিজ্য বয়কট করতে কোম্পানি প্রধানদের উপর চাপ দিচ্ছেন৷''

কম্পিউটার ভাইরাসের তুলনায় বোমার কারণে ধ্বংসলীলার মাত্রা অনেক বেশি হলেও আজ সমান্তরালভাবে বাস্তব ও ডিজিটাল যুদ্ধ চলছে৷

প্রতিবেদন: হ্যুটার/লাৎসাক/এসবি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Bangladesch | Dhaka Karwan Market

মূল্যস্ফীতির আরো চাপে সাধারণ মানুষ

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান