নেদারল্যান্ডসে আশ্রয় চাইলেন আসিয়ার আইনজীবী | বিশ্ব | DW | 07.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নেদারল্যান্ডসে আশ্রয় চাইলেন আসিয়ার আইনজীবী

সম্প্রতি ব্লাসফেমি আইনে মৃত্যুদণ্ডের হাত থেকে রেহাই পাওয়া পাকিস্তানের খ্রিষ্টান নারী আসিয়া বিবির আইনজীবী নেদারল্যান্ডসে রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন৷ দেশজুড়ে বিক্ষোভের কারণে বর্তমানে প্রাণের ঝুঁকি রয়েছে আসিয়া ও তাঁর আইনজীবীর৷

ব্লাসফেমি আইনে প্রায় এক দশক জেলে থাকার পরআসিয়া বিবি মৃত্যুদণ্ড থেকে রেহাই পান৷ তাঁর হয়ে মামলাটি লড়ছিলেন আইনজীবী সাইফ-উল-মুলুক৷ অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট আসিয়ার মৃত্যুদণ্ডাদেশ খারিজ করে৷

এই রায়ের প্রতিবাদে কট্টর ইসলামপন্থিরা লাহোর ও ইসলামাবাদের মূল সড়ক অবরোধ করে ও এই মামলার সাথে যুক্ত বিচারকদের এবং যাঁরা আসিয়াকে মুক্ত করতে সহযোগিতা করেছেন, প্রকাশ্যে তাঁদের মৃত্যু কামনা করেন৷ রায় ঘোষণার আগে, কট্টরপন্থি মৌলভী খাদিম হুসেইন রিজভি রাস্তায় নেমে লাখো মানুষকে বিক্ষোভে অংশ নিতে আহ্বান জানিয়েছিলেন৷ প্রতিটি বড় শহরে লোকজনকে জমায়েত হওয়ার নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, যাঁরা মহানবীকে (সা.) ভালোবাসেন তাঁদের উচিত আসিয়া বিবির মুক্তির বিরোধিতা করা৷

এই মামলা ঘিরে বর্তমানে পাকিস্তান বিভাজিত৷ সুপ্রিম কোর্টের রায় আসিয়ার পক্ষে৷ কিন্তু কট্টরপন্থিদের সাথে হাত মিলিয়ে সরকার ইতিমধ্যে এই রায়ের পুনর্বিবেচনা করতে দিচ্ছে৷ শুধু তাই নয়, আসিয়ার দেশ ছেড়ে কোনো নিরাপদ দেশে যেতে পারার সম্ভাবনাও কমে যাচ্ছে দ্রুত৷

ডয়চে ভেলেকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে আসিয়ার স্বামী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে ও ক্যানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর কাছে এ বিষয়ে সাহায্য চেয়েছেন৷

যদিও আসিয়াকে জেল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে, তবুও তাঁর ওপর সর্বক্ষণ নজর রাখা হচ্ছে বলে ডয়চে ভেলেকে জানান পাকিস্তানের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরি৷

তিনি বলেন, ‘‘আসিয়ার জন্য কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ পাকিস্তানে তিনি সম্পূর্ণ নিরাপদ৷''

মন্ত্রীর আশ্বাস সত্ত্বেও আসিয়া বা আইনজীবী সাইফ-উল-মুলুকের ভয় কমছে না৷

ব্লাসফেমি আইনে অভিযুক্ত আসিয়ার আইনজীবী নেদারল্যান্ডসের একটি সংবাদ মাধ্যমকে ইতিমধ্যে জানিয়েছেন তাঁর প্রাণের ঝুঁকির কথা৷ সেখানে তিনি নেদারল্যান্ডসে রাজনৈতিক আশ্রয়ের জন্য আবেদন করার কথাও উল্লেখ করেছেন৷

এর আগে ডয়চে ভেলেকে সাইফ বলেন যে, তাঁর নিরাপত্তা এখন সারা বিশ্বের দায়িত্ব৷ কারণ এখন তিনি আক্রান্ত হলে ভবিষ্যতে পাকিস্তানে ব্লাসফেমি আইনের বিরুদ্ধে আর কোনো আইনজীবীই লড়তে রাজি হবেন না৷

এসএস/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন