নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ঘুসের অভিযোগ | বিশ্ব | DW | 14.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ঘুসের অভিযোগ

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ঘুস দেয়া-নেয়ার অভিযোগ আনার পর্যাপ্ত প্রমাণ আছে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ৷ তবে এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন নেতানিয়াহু৷

বৃহস্পতিবার ইসরায়েলের পুলিশ জানায়, তারা প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে ঘুস ও প্রতারণার অভিযোগ আনার সুপারিশ করছেন৷ তাদের কাছে এ সংক্রান্ত পর্যাপ্ত তথ্যপ্রমাণ আছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ৷

‘কেস ১০০০' শীর্ষক একটি মামলায় নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে দুই লক্ষ ৮৩ হাজার ডলারের সমপরিমাণ উপহার নেয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে৷ এতে বলা হয়, ইসরায়েলি বিলিওনেয়ার ও হলিউডের প্রযোজক আরনন মিলচান ও অস্ট্রেলিয়ান মোগল জেমস পেকারের কাছ থেকে উপহার হিসেবে দামি সিগার, অলংকার আর শ্যাম্পেন নিয়েছেন নেতানিয়াহু৷ এসব উপহার দেয়ার মাধ্যমে মিলচান তাঁর ব্যবসার জন্য কর সুবিধা পাওয়ার চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে৷

এদিকে, ‘কেস ২০০০' শীর্ষক মামলায় নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে শীর্ষস্থানীয় এক পত্রিকার সম্পাদককে বিশেষ সুবিধা দেয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে৷ বিনিময়ে নেতানিয়াহু ঐ পত্রিকায় ইতিবাচক কাভারেজ চেয়েছিলেন৷

পুলিশের এসব অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে মন্তব্য করেছেন নেতানিয়াহু৷ টেলিভিশনে দেয়া এক বক্তব্যে তিনি বলেন, এর আগেও কয়েকবার তাঁর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ আনা হয়েছিল, কিন্তু পরে কিছু পাওয়া যায়নি৷

অভিযোগের পরও তাঁর সরকার দায়িত্ব পালন করে যাবে বলে জানান নেতানিয়াহু৷ ২০১৯ সালে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে তিনি আবারও ভোটারদের সমর্থন পাবেন বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি৷

বিরোধী রাজনীতিকরা নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে এসব অভিযোগকে কাজে লাগিয়ে সুবিধা নিতে চাইছেন৷ বিরোধী দলের নেতা অভি গ্যাবি বলেছেন, ‘‘নেতানিয়াহুর যুগ শেষ৷'' উল্লেখ্য, গত ১২ বছর ধরে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন নেতানিয়াহু৷

এখন কী হবে?

পুলিশের এসব অভিযোগের কারণে আইনগতভাবে ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য নন নেতানিয়াহু৷ তবে এখন যদি দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দায়ের করেন এবং পরে সেটি প্রমাণিত হয়, তাহলে নেতানিয়াহুকে পদত্যাগ করতে হবে৷ ২০০৯ সালে এমন অভিযোগে অভিযুক্ত হওয়ার পর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী কে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে মামলা দিয়ে শিশু নির্যাতন আর কত? হয়েছিল৷

জেডএইচ/এসিবি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন