নূরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলার বাদীর ডিজিটাল আইনে মামলা | বিশ্ব | DW | 14.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

নূরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলার বাদীর ডিজিটাল আইনে মামলা

ফেসবুক লাইভে ‘দুশ্চরিত্রহীন' (সঠিক শব্দ দুশ্চরিত্রা) বলায় ডাকসুর সাবেক ভিপি নূরের বিরুদ্ধে এবার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেছেন ধর্ষক ও তাদের সহযোগীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে টিএসসির রাজু ভাস্কর্যে অনশনরত সেই ছাত্রী৷

গতকাল ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে নূরের বিরুদ্ধে মামলা করার কথা ভাবছেন বলে জানিয়েছিলেন তিনি৷ বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম জানায়, বুধবার ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের স্নাতকোত্তর পর্বের সেই শিক্ষার্থী মামলাটি করেন৷ এর আগে নূরসহ ছাত্র অধিকার পরিষদের ছয় নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণ, ধর্ষণে সহযোগিতা, চরিত্র হনন ও সাইবার বুলিংয়ের অভিযোগে তিনটি মামলা করেছিলেন তিনি৷

সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতের পেশকার শামীম আল মামুন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫, ২৯ ও ৩১ ধারায় করা মামলার আরজিতে দুইজনকে সাক্ষী করা হয়েছে৷

ধর্ষণ মামলার তিন সপ্তাহ পর রোববার মধ্যরাতে আসামিদের ধরতে পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় অভিযান শুরু করে৷ ফেইসবুক লাইভে এসে এক ঘণ্টারও বেশি সময় কথা বলেন ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূর৷ এক পর্যায়ে ধর্ষণ মামলার বাদী সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘‘একেবারেই হাস্যরসাত্মক, ছিঃ! আমরা ধিক্কার জানাই যে, এত নাটক করছে, যেই দুশ্চরিত্রাহীন, যে ধর্ষণের নাটক করছে৷''

এর মাধ্যমে তিনি নারীর অবমাননা করেছেন- এমন সমালোচনা শুরু হলে মঙ্গলবার নূর ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দুশ্চরিত্রহীন, মানে তাকে চরিত্রবান বা চরিত্রহীন কোনোটাই বলিনি৷ তিনি অন্যের প্ররোচনায় এসব কাজ করছেন৷'' এর জবাবে ধর্ষণের মামলা করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী বলেন, ‘‘নূর আগেই আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়েছিলো৷আর এখন ফেসবুক লাইভে আমাকে দুশ্চরিত্রা বললো৷ এতেই বোঝা যায় যে, তার আসল উদ্দেশ্য কী৷''

ধর্ষণ মামলার আসামিদের প্রকাশ্যে বিবৃতি দেয়া বা বক্তব্য রাখার সুযোগ থাকা উচিত নয় বলে মনে করেন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)- এর সাবেক নির্বাহী পরিচালক শিপা হাফিজ৷ তিনি বলেন, ‘‘মামলা হয়েছে, তদন্ত হবে৷ আদালতই দেখবে কে দোষী আর কে নির্দোষ৷ নূর তাকে যে দুশ্চরিত্রা বলেছেন,  সেটা একটি অপরাধ৷ আমাদের এখানে এটা চলে আসছে৷ কোনো নারী ধর্ষণ বা যৌনহয়রানির অভিযোগ করলেই এক গ্রুপ তার চরিত্র নিয়ে কথা বলা শুরু করে৷ তাদের উদ্দেশ্যই থাকে অপরাধীকে আড়াল করা৷''

নুরুল ইসলাম নূরের সমালোচনা করে মানবাধিকার কর্মী নূর খান বলেন, ‘‘মেয়েদের প্রতি নূরের যে কী ধরনের অশ্রদ্ধা তা তিনি ওই অভিযোগকারী ছাত্রীকে দুশ্চরিত্রা বলে প্রমাণ দিলেন৷ এই ধরনের কথা কোনো সুস্থ মানুষ বলতে পারেন না৷এটা নৈতিকতা ও আইনবিরোধী৷''

এসিবি/এডিকে (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন