1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান

নিষেধাজ্ঞার মধ্যে র‍্যাবের দিনকাল

তানজীর মেহেদী
৪ নভেম্বর ২০২২

দেড় যুগ আগের কথা৷ ২০০৪ সালে জাতীয় ও স্বাধীনতা দিবসের প্যারেডে অংশ নেয়ার মাধ্যমে দেশের মানুষের সামনে হাজির হয় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)৷

https://p.dw.com/p/4J4fl
Bangladesch Dhaka - Rapid Action Batallion (RAB)
ছবি: picture-alliance/AP Photo/A. Nath

দেশের উন্নতির পথে ‘অস্থিতিশীল আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতিকে' অন্যতম বাধা আখ্যা দিয়ে পুলিশের কার্যক্রমকে আরও গতিশীল করতে ‘এলিট ফোর্স' হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয় র‍্যাব৷ ওই বছরের ১৪ এপ্রিল অর্থাৎ পয়লা বৈশাখের দিন রমনা বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণের আয়োজনে নিরাপত্তার দায়িত্ব পায় বাহিনীটি৷ এর মধ্য দিয়ে অপারেশনাল কাজ শুরু করে তারা৷

১৮ বছরের পথ চলায় কলেজ পড়ুয়া লিমনের পায়ে গুলি করা, নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনার পর এলিট ফোর্সটি সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে ২০২১ সালের ১০ ডিসেম্বর৷

ওইদিন ‘গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনে জড়িত থাকার' অভিযোগ এনে র‍্যাব এবং সংস্থাটির কয়েকজন কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র৷ মানবাধিকার লঙ্ঘনের মধ্যে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, গুম, নির্যাতনকে ইঙ্গিত করেছে দেশটি৷

যদিও অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে এসেছে বাংলাদেশ৷ বরং সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমনে বাহিনীর ভূয়সী প্রশংসা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই৷ কিন্তু তারপরেও নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর ধাক্কা খেয়েছে বাহিনীটি৷

গত ৬ অক্টোবর গণভবনে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনেও র‍্যাব প্রসঙ্গে কথা বলেন সরকারপ্রধান৷

সেদিন তিনি বলেছেন, ‘র‍্যাবের ওপরে তারা (যুক্তরাষ্ট্র) যখন স্যাংশন দিল, আমার প্রশ্নটা হচ্ছে র‍্যাব সৃষ্টি করেছে কে? র‍্যাব সৃষ্টি তো আমেরিকার পরামর্শ৷ আমেরিকা র‍্যাব সৃষ্টি করার পরামর্শ দিয়েছে৷ আমেরিকা তাদের ট্রেনিং দেয়৷ তাদের অস্ত্রশস্ত্র, তাদের হেলিকপ্টার, এমনকি তাদের ডিজিটাল সিস্টেম, আইসিটি সিস্টেম-সবই আমেরিকার দেয়া৷'

বাংলাদেশে সন্ত্রাস দমনে র‍্যাব বিশেষ ভূমিকা রাখায় যুক্তরাষ্ট্র ‘নাখোশ' হয়েছে কিনা, সেদিন সে প্রশ্নও তুলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী৷

নিজেদের পক্ষে সাফাই গেয়ে বাহিনীর সদ্য বিদায়ী মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন দাবি করেছেন, পরিস্থিতি সামাল দিতে একেবারেই বাধ্য না হলে র‍্যাব সদস্যরা কখনও গুলি ছোড়েন না৷

২৮ সেপ্টেম্বর রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে বিদায়ী বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘র‍্যাব পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে যেখানে যেটুকু প্রয়োজন পড়ে, আইন মেনে সেটুকু শক্তি প্রয়োগ করে৷ আমরা যখন আক্রান্ত হই, তখনই আমাদের পাল্টা জবাব দিতে হয়৷

‘সিচ্যুয়েশন যেমন ডিমান্ড করে, আমরা ঠিক তেমন ব্যবস্থা নিয়ে থাকি৷ এমন কখনও হয় না যে, কেউ আমাদের ধাক্কা দিল আর আমরা গুলি করে দিলাম৷ র‍্যাবের প্রত্যেক সদস্যকে এসব বিষয়ে নিয়মিত প্রশিক্ষণ দেয়া হয়৷ এলিট ফোর্স হিসেবে আমাদের সবসময় চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে কাজ করতে হয়৷'

র‌্যাব মহাপরিচালকের এমন বক্তব্য কিংবা নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বাংলাদেশ সরকার কূটনৈতিক প্রচেষ্টার মধ্যেও যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের অবস্থানে এখনও অনড়৷ ঢাকায় দেশটির রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস বলেছেন, র‍্যাবের ওপর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হলে মানবাধিকার রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সংস্কার ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে৷

এ দুটো বিষয় নিশ্চিত হলে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য আবেদন করা যাবে বলে গত ৩১ মে ঢাকার এক অনুষ্ঠানে জানিয়েছিলেন তিনি৷

মাসখানেকের কিছু বেশি হলো নতুন মহাপরিচালক পেয়েছে র‍্যাব৷ এখন এলিট ফোর্সের নেতৃত্ব দিচ্ছেন পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত আইজিপি (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসা এম খুরশীদ হোসেন৷

নতুন মহাপরিচালক অবশ্য পিটার হাসের সংস্কার প্রস্তাব একেবারে উড়িয়ে দিয়েছেন৷ দায়িত্ব নিয়ে ১ অক্টোবর ধানমন্ডি-৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এ বিষয়ে সরাসরি প্রশ্ন করা হয় তাকে৷

জবাবে র‍্যাব মহাপরিচালক বলেছিলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে র‍্যাব সংস্কারের কোনো প্রশ্নই দেখি না৷ কারণ আমরা এমন কোনো কাজ করছি না যার জন্য র‍্যাবকে সংস্কার করতে হবে৷ আমরা আমাদের জন্য নির্ধারিত যে বিধি আছে, সেই বিধিবিধান অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছি৷ আমরা আইনের বাইরে কোনো কাজ করি না৷ সে ক্ষেত্রে সংস্কারের তো প্রশ্নই ওঠে না৷'

পরের দিনই উল্টো বক্তব্য দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল৷ তিনি বলেছেন, র‍্যাব সব সময়ই সংস্কারের মধ্যেই আছে৷ তিনি বলেন, ‘আমাদের জানতে হবে তারা অন্যায়টা কী করেছে৷ আর সংস্কারের কথা বলতে, র‍্যাব তো সব সময় সংস্কারের মধ্যেই আছে৷ আমরা সব কিছু আধুনিকায়ন করছি৷ যেটা প্রয়োজন সেটাই দিচ্ছি৷'

তবে মানবাধিকার সংস্থাগুলো অবশ্য কিছুটা স্বস্তির খবরই দিচ্ছে৷ মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্র তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে, এ বছরের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চার জন ব্যক্তির গুম হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ যাদের মধ্যে একজন ফিরে এসেছেন৷ অপরজনের কথা জানিয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী৷ এখনও নিখোঁজ দুই জন৷

তবে বিচার বহির্ভূত হত্যা ও নিরাপদ হেফাজতে মৃত্যুর ক্ষেত্রে বছরের প্রথম ৯ মাসে ১৫টি ঘটনার কথা উল্লেখ করেছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র৷ ১৫টি ঘটনার মধ্যে পাঁচটির দায় দিয়েছে এলিট ফোর্স র‍্যাবকে৷ তাদের দেয়া হিসাব অনুযায়ী গ্রেপ্তারের আগেই র‍্যাবের ‘ক্রসফায়ার'-এ নিহতের সংখ্যা তিন৷

র‍্যাব ও এর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার কারণেই বিচারবহির্ভূত হত্যা কমেছে বলে মনে করেন ঢাকায় দেশটির রাষ্ট্রদূত পিটার হাস৷ তিনি বলেছেন, এই নিষেধাজ্ঞা কোনো শাস্তি নয়, বাহিনীটিকে শুদ্ধ করার সুযোগ৷ ২৯ সেপ্টেম্বর রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান তুলে ধরেন তিনি৷

গত ৩১ অক্টোবর র‍্যাব-৯-এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সিলেটে গিয়ে র‍্যাব প্রধান এম খুরশীদ হোসেন বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞায় যেসব অভিযোগ করা হয়েছিল, আমরা তার তদন্ত করেছি৷ সব অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়নি৷ ইতোমধ্যে সবগুলো অভিযোগের জবাব দেয়া হয়েছে৷'

নতুন মহাপরিচালক দায়িত্ব নেয়ার পর র‍্যাবকে আবারও বেশ সক্রিয় দেখা যাচ্ছে৷ সম্প্রতি পাহাড়েও জঙ্গি বিরোধী অভিযানে নেমেছে সংগঠনটি৷ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীটি চায়, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদীদের কাছে যাতে র‍্যাব হয় একটি আতঙ্কের নাম৷

দীর্ঘ ১৮/১৯ বছর ধরে পালিয়ে থাকা আসামিদের আইনের কাছে সোপর্দ করার ক্ষেত্রেও সম্প্রতি মুন্সিয়ানা দেখিয়েছে র‍্যাব৷ এর মধ্যে আছে কক্সবাজারে ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার এড়াতে ১৮ বছর আত্মগোপনে থাকা আব্দু মুনাফ নামের এক ব্যক্তি৷

Tanjir Mohammad Mehedi Chowdhury DW Praktikant aus Bangladesch
তানজীর মেহেদী, সাংবাদিকছবি: Privat

ময়মনসিংহে বিশ্বজিৎ কুণ্ডু হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজা পাওয়া পলাতক আসামি সুমন ওরফে পেটকাটা সুমনকে সাত বছর পর গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব৷

ফেনীর সোনাগাজীতে মাকে বেঁধে অস্ত্রের মুখে ১৩ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামি লাতু মিয়া দীর্ঘ ১৯ বছর পলাতক থাকার পর সম্প্রতি ধরা পড়েছে র‍্যাব হাতে৷

বহুল আলোচিত বিশ্বজিৎ হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি মোশাররফ হোসেনকে প্রায় ১০ বছর পর গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী৷ নেত্রকোণার সদরে যুবক হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজা পাওয়া পলাতক আসামিকে ১৭ বছর পর গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব৷

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে অবদান রাখার পাশাপাশি সুন্দরবনকে দস্যু মুক্ত ঘোষণার ক্ষেত্রেও র‍্যাব অগ্রগণ্য ভূমিকা রেখেছে৷ মাদক নির্মূলে র‍্যাবের অনেক সাফল্য থাকলেও কথিত বন্দুকযুদ্ধে টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক নিহত হওয়ার ঘটনাও প্রশ্নবিদ্ধ করেছে তাদের৷ মৃত্যুর আগ মুহূর্তে পিতার সঙ্গে শিশুকন্যার সেই আকুলতা, ‘আব্বু, তুমি কানতেছ যে...?'-সহজে মুছে যাবে না মানুষের মন থেকে৷

যদিও র‍্যাবের দাবি, নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দায়িত্বটি সরকারের৷ তারা তাদের নীতিতে অবিচল থেকে কাজ করে যাবে দেশ ও মানুষের কল্যাণে৷

বিশ্লেষকরা মনে করেন, এমন নিষেধাজ্ঞা দৃশ্যত না হলেও একটি বাহিনীকে নাজুক করে দিতে পারে৷ যদিও মাঠের রাজনীতিতে সরকারের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি পুরো দায় দিয়ে আসছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কাঁধেই৷

সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা থাকে, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কখনও জনগণের অধিকার হরণ নয়, বরং তাদের সুরক্ষায় কাজ করবে, অপরাধীকে দাঁড় করাবে আইনের কাঠগড়ায়৷ র‍্যাব তার ভাবমূর্তি কতোটা ফিরিয়ে আনতে পারবে সেটা নির্ভর করবে তাদেরই কর্মকাণ্ডে৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

রাশিয়া এলজিবিটিকিউ

এলজিবিটিকিউ নিয়ে পুটিনের নতুন ফরমান

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ
প্রথম পাতায় যান