নির্বাচন ঘিরে সহিংসতা | বিশ্ব | DW | 30.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

নির্বাচন ঘিরে সহিংসতা

ভোটগ্রহণ শুরুর পর থেকে বিভিন্ন এলাকায় সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে৷ এখন পর্যন্ত দেশের কয়েকটি এলাকায় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংসতায় নিহত হয়েছেন ১২ জন৷ আহত ৬৪ জন৷ গ্রেপ্তার হয়েছেন ৮ জন৷

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

চট্টগ্রাম, রাজশাহী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নোয়াখালী, বগুড়া, কক্সবাজার, দিনাজপুর, রাঙ্গামাটি এবং কুমিল্লায় সহিংসতায় হতাহতের ঘটনা ঘটেছে৷

রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় ভোট কেন্দ্রের সামনে আওয়ামী লীগের এক কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে৷ রাজশাহী- ৩ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী আয়েন উদ্দিন জানান, রোববার দুপুরে উপজেলার জাহানাবাদ ইউনিয়নে পাকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের সামনে এ ঘটনা ঘটে৷ রোববার সকাল সোয়া ১০টার দিকে পটিয়ার পশ্চিম মালিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র দখল নিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সংঘর্ষে নিহত হন আবু সাদেক৷ তিনি দক্ষিণ মালিয়ারা গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে৷ আবু সাদেক বিএনপির সমর্থক ছিলেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন৷

রাঙামাটির কাউখালী উপজেলার ঘাগড়ায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমর্থকদের সংঘর্ষে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাসেরউদ্দিন নিহত হয়েছেন৷ সকাল সাতটার দিকে ঘাগড়া ইউনিয়নের কাসখালী এলাকায় দুই দলের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়৷ হামলায় গুরুতর আহত বাসের উদ্দিনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান৷ এ হামলায় ১৫ জন আহত হন৷ 

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে ত্রিমুখী সংঘর্ষে গুলিতে একজন নিহত হয়েছেন৷ কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার পশ্চিম বেলাস্বর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে পুলিশের গুলিতে মজিবুর রহমান নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন৷ এ সময় মিজানুর রহমান নামের আরেক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হন৷ যশোর-৩ (সদর) আসনের বিএনপি প্রার্থী অনিন্দ্য ইসলামের ওপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা৷যশোর শহরের বারন্দীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গেলে দুর্বৃত্তরা তাঁর গাড়ির ওপর হামলা চালায়৷

এপিবি / এসিবি (সূত্র: বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, প্রথম আলো)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন