নির্বাচন কমিশন আঁতাতে লিপ্ত : বদিউল আলম মজুমদার | বিশ্ব | DW | 27.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সাক্ষাৎকার

নির্বাচন কমিশন আঁতাতে লিপ্ত : বদিউল আলম মজুমদার

নির্বাচন কমিশনের জনগনের আস্থা নেই বলে মন্তব্য করেছেন  সুশানের জন্য নাগরিক (সুজন)-এর সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার৷ বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠ নির্বাচন সম্ভব নয় বলেও ডয়চে ভেলেকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মন্তব্য করেন তিনি৷

ডয়চে ভেলে: ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে আপনার পর্যবেক্ষণ কী? সুষ্ঠ নির্বাচন হওয়ার মতো পরিস্থিতি বিদ্যমান আছে কিনা?

বদিউল আলম মজুমদার: এ নির্বাচন নিয়ে ব্যাপক উদ্বেগের কারণ রয়েছে৷ কেননা, এ নির্বাচন কমিশনের নিরেপক্ষতা নিয়ে ব্যাপক প্রশ্ন রয়েছে৷  গত জাতীয় নির্বাচনে তারা নিজেদের বিতর্কের উর্ধ্বে রাখতে পারেনি, অনেক কারসাজির আশ্রয় নিয়েছে ৷ বস্তুত জাতীয় নির্বাচনে যা হয়েছে তা মূলত এক ধরনের অশুভ আঁতাত৷ নির্বাচন কমিশন, এক শ্রেণীর সরকারী কর্মকর্তা, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী  ও সরকারি দলের সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা মিলে এ আঁতাত তৈরি করেছিল৷ যে কারণে এই নির্বাচনের কমিশনের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে জনমনে ব্যপক সন্দেহ রয়েছে৷ তাদের কাছ থেকে একটি সুষ্ঠ নির্বাচনের আশা করা দুরাশা ছাড়া আর কিছুই না৷

সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ব্যবহার করা হবে বলে জানানো হয়েছে৷  এ বিষয়টিকে কীভাবে দেখেন?

ইভিএম একটি বড় অংশের ভোটরদের ভোট প্রদান থেকে বঞ্চিত করছে৷  আমরা যদি গত জাতীয় নির্বাচনের দিকে তাকাই, তাহলে দেখা যায় ২৯৪ টি কেন্দ্রে সাধারণ ব্যলট আর বাকীগুলোতে ইভিএম ব্যবহার করা হয়েছে৷ ইভিএমে ভোট পড়েছে ৫১ দশমিক ৪২ শতাংশ আর পেপার ব্যালটে ৮০ দশমিক ৮০৷ তাহলে ৩০ শতাংশের ফারাক কেন৷ সেক্ষেত্রে বলা যেতে পারে ৩০ শতাংশ মানুষ ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে৷ হয় ইভিএমের ত্রুটি অথবা জটিলতা, কিংবা ইভিএমের প্রতি মানুষের অনীহা থেকেই ৩০ শতাংশ মানুষ ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে৷৷ এ দায়ভার কে নেবে? এ পদ্ধতির যৌক্তিকতা কোথায়? সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইভিএম-এর ব্যবহার তাই একটি মস্ত বড় ভুল হবে৷ কেননা ভোটররা যদি ভোট দিতে না পারেন, আপনার পদ্ধতি যদি ভোটরদের মাঝে অনীহা তৈরি করা, তাহলে সেটি কোনভাবেই গ্রহনযোগ্য কোন ব্যবস্থা নয়৷

বিএনপি একদিকে সরকারকে অবৈধ বলছে, নির্বাচন কমিশনের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করছে আবার এই সরকার ও একই নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে৷  বিএনপির এ অবস্থাকে কীভাবে মূল্যায়ন করেন?

রাজনৈতিকভাবে বিএনপির নেতৃত্ব ব্যর্থ হয়েছে, তারা অনেক দুর্বল অবস্থানে চলে এসেছে৷  যদিও তাদের অনেক জনসমর্থন আছে বলে অনেকে মনে করে৷  তবে নির্বাচনে তাদের অংশগ্রহণের বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবে দেখতে হবে৷ একটি রাজনৈতিক দল যদি ক্ষমতায় আসতে চায় তাহলে তাকে নির্বাচনে অংশ নিতে হবে৷ এদিকে তারা যদি নির্বাচনে না যায় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ক্ষমতাসীনেরা যে সকল অভিযোগ করছে, সে অভিযোগলো আরো  শক্তিশালী হবে৷৷ আমার মনে হয় না নির্বাচনে যাওয়া ছাড়া তাদের আর কোন উপায় আছে৷  তবে বিএনপি রাজপথে সরব হতে না পারার কারণ হলো যে, রাজপথ যদি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ও সরকারি দলের অংগসংগঠনের দখলে থাকে তাহলে সেখানে সরব হওয়া অসম্ভব৷

গত জাতীয় নির্বাচন ও পরবর্তী সময়ের স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের নির্বাচনগুলোতে ভোটরদের উপস্থিতি কম ছিল ৷ সিটি কর্পোরেশনের এ  নির্বাচনটিকে ভোটারদের দৃষ্টিকোণ থেকে কীভাবে ব্যাখ্যা করবেন?

ভোটারদের কম উপস্থিতির কারণ অনেক৷ যেমন অনেকের ধারণা আমি ভোট দিলেও কিছুই যায় আসে না৷ আবার অনেকে ভাবছেন আমি ভোট দিতে গেলে ভোট দিতে যে পারবো তার নিশ্চয়তা নেই৷ নির্বাচন বিষয়ে মানুষের মধ্যে ব্যপক অনাস্থা ও অনীহা সৃষ্টি হয়েছে৷  যা আমাদের নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ভেঙ্গে ফেলেছে৷ এটি একটি অশনি সংকেত, কারণ নির্বাচনই একমাত্র সুষ্ঠ, শান্তিপূর্ণ ও নিয়মকান্ত্রিকভাবে ক্ষমতা বদলের পন্থা৷  এটি বিলুপ্ত হয়ে গেলে তা কারো জন্যই মঙ্গল বয়ে আনবে না৷

আপনি বলছে নির্বাচন কমিশন ‘আঁতাত‘ করছে তাই নির্বাচন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে৷ কিন্তু আসছে নির্বাচন নিয়ে তো নাগরিক সমাজকে সরব হতে দেখা যাচ্ছে না৷ এটি কেন হচ্ছে?

সিভিল সোসাইটিকে ধ্বংস করে দিয়েছে৷ দুয়েকজন ছাড়া সিভিল সোসাইটির অধিকাংশই অনুগত ও সুবিধাপ্রাপ্ত৷ দুর্ভাগ্যবশত দুয়েকটি গণমাধ্যম ছাড়া কেউ দায়িত্বও পালন করছে না৷ সেলফসেন্সরশিপ ব্যাপক আকার ধারণ করেছে৷

এ অবস্থা থেকে উত্তরণের পথ কী বলে আপনি মনে করেন?

এ নির্বাচন কমিশন আমাদের মহা অনিষ্ট করে ফেলেছে৷ তাদের স্বউদ্যোগে পদত্যাগ করা উচিত৷  তা না হলে  সুপ্রিম জুডিসিয়াল কাউন্সিল গঠন করে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করা উচিত৷  বর্তমানে যে সমস্যা চলছে তার সমাধান আমাদের নিজেদেরই খুঁজে বের করতে হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন