নির্বাচনের আগে নেতানিয়াহুর ভয়ঙ্কর ঘোষণা | বিশ্ব | DW | 11.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইসরায়েল

নির্বাচনের আগে নেতানিয়াহুর ভয়ঙ্কর ঘোষণা

আবার প্রধানমন্ত্রী হলে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের অধিকৃত জর্ডান উপত্যকা ও ডেড সি-র উত্তরাংশ ইসরায়েলের অন্তর্ভুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছেন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু৷ তার এই ঘোষণার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে আরব বিশ্ব৷

আগের নির্বাচন শেষে জোট সরকার গঠনে ব্যর্থ হওয়ায় আবার ভোট চাইতে হচ্ছে নেতানিয়াহুকে৷ আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর নির্বাচন৷ নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে ততই প্রচারণায় সর্বশক্তি নিয়োগ করছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী৷ মঙ্গলবার এক সমাবেশে তিনি বলেছেন, ‘‘ নতুন সরকার গড়ার পর জর্ডান উপত্যকা ও ডেড সি-র উত্তরাংশে ইসরায়েলি সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চাই৷''

১৯৬৭ সালের যুদ্ধের সময় পূর্ব জেরুসালেমসহ পশ্চিম তীর, গাজা ও সিরিয়ার গোলান মালভূমি দখল করে নেয় ইসরায়েল৷ এরপর ১৯৮০ সালে পূর্ব জেরুসালেম এবং ১৯৮১ সালে দেশটি গোলান মালভূমি নিজেদের অন্তর্ভুক্ত করে নেয়৷ এসব আগ্রাসী উদ্যোগ দীর্ঘদিন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়নি৷ তবে সম্প্রতি ডনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন যুক্তরাষ্ট্রের অনুসৃত নীতি থেকে সরে এসে দু'টি পদক্ষেপেরই স্বীকৃতি দেয়৷

ইসরায়েলে প্রতিক্রিয়া

মঙ্গলবারের নির্বাচনি সভায় দেয়া নেতানিয়াহুর ভাষণ ইসরায়েলের প্রধান টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়৷ ১৭ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টির লড়ইটা হবে ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টির সঙ্গে৷ ব্লু অ্যান্ড হোয়াইট পার্টির এক নেতা ইয়াইর লাপিদ নেতানিয়াহুর বক্তব্যের  তীব্র প্রতিবাদ করেছেন৷

তিনি বলেন, ‘‘এটা স্রেফ নির্বাচনি কৌশল৷ তবে এই কৌশল সফল হবার নয়, কারণ, মিথ্যাটা খুবই স্বচ্ছ৷'' ইয়াইর লাপিদ মনে করেন, ‘‘ তিনি (নেতানিয়াহু) ওই এলাকাগুলো অন্তর্ভুক্ত করতে চান না, তিনি চান ভোট অন্তর্ভুক্ত করতে৷''   

আরববিশ্বে প্রতিবাদ ও নিন্দা

নেতানিয়াহুর ঘোষণার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে জর্ডান, তুরস্ক ও সৌদি আরব৷ ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে ‘আগ্রাসন' এবং ‘বিপজ্জনক পদক্ষেপ' বলে আরব লীগও এর নিন্দা জানিয়েছে৷ ওআইসি-র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরি সভা ডেকেছে সৌদি আরব৷ ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শ্তায়েহ স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, ‘‘ফিলিস্তিনের কোনো এলাকা নেতানিয়াহুর নির্বাচনি প্রচারের অংশ নয়৷''

এসিবি/ কেএম (এএফপি, এপি, ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন