1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: Dan Kitwood/PA Wire/empics/picture alliance
সমাজমিয়ানমার

নির্জন কারাবাসে সু চি

২৪ জুন ২০২২

এতদিন তাকে রাখা হয়েছিল গোপন স্থানে, এবার অং সান সু চি-কে নির্জন কারাবাসে রাখা হলো।

https://p.dw.com/p/4DAAT

মিয়ানমারে সেনা মুখপাত্র জানিয়েছেন, এতদিন দেশের আইন অনুসারেই সু চি-কে গোপন স্থানে রাখা হয়েছিল। এবার তাকে রাজধানীর জেলে রাখা হয়েছে। তবে তিনি নির্জন কারাবাসে আছেন। 

২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি সু চি-কে গ্রেপ্তার করা হয়। নির্বাচিত সরকারকে সরিয়ে দিয়ে সেনা তখন ক্ষমতা দখল করেছিল। প্রথমে সু চি-কে তার বাড়িতে আটক করে রাখা হয়। পরে তাকে কোনো অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। কোথায় তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তা বলা হয়নি। তবে অনুমান করা হচ্ছিল কোনো সেনা ঘাঁটিতে আছেন সু চি।

সূত্রকে উদ্ধৃত করে সংবাদসংস্থা এএফপি জানিয়েছে, ৭৭ বছর বয়সি সু চি আগের মতোই মানসিক দিক থেকে শক্ত আছেন। তিনি এই ধরনের পরিস্থিতির মোকাবিলায় অভ্যস্ত। তাই তিনি বিচলিত নন।

জাতিসংঘের বিশেষ দূত টম অ্যান্ড্রুজ বৃহস্পতিবার বলেছেন, মিয়ানমারে মানবাধিকার সংক্রান্ত পরিস্থিতি খুবই খারাপ। সেনা-অভ্যুত্থানের পর বিক্ষোভ থামাতে গিয়ে গুলি চলেছে। প্রচুর মানুষ মারা গেছেন। বিরোধীদের আটক করা হয়েছে। তিনি বলেছেন, আন্তর্জাতিক দুনিয়া কিছুই করছে না। ফলে মিয়ানমারের অবস্থা খারাপ হচ্ছে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এশিয়ার ডেপুটি ডিরেক্টর ফিল রবার্টসন আলজাজিরাকে  বলেছেন, সেনা শাসকরা সু চি ও তার সমর্থকদের শাস্তি দিতে চাইছে। তারা দেখাতে চাইছে, তারা খুবই কড়াভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করছে। তারা দেখাতে চাইছে, সু চি তার পরিচারক-পরিচারিকা এবং কুকুর নিয়ে থাকতে পারবেন না, তাকে নির্জন কারাবাসেই থাকতে হবে।

তার মতে, এর ফলে দেশজুড়ে সু চি-র সমর্থকদের মধ্যে সেনাশাসকদের বিরুদ্ধে অসন্তোষ প্রবল হয়েছে। কিন্তু সামরিক শাসকরা কোনো কথা শুনছে না। তারা নিজেদের মতো করে কাজ করছে। এর ফলে পরিস্থিতি খারাপের দিকে যেতে পারে।

সু চি-র বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ আছে। বিচারে তার ১৫ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে।

জিএইচ/এসজি (এএফপি, রয়টার্স, এপি)

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

বিএনপি কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের একটি মুহূর্ত

সমাবেশের আগেই সংঘাত-প্রাণহানি, কী হবে ১০ ডিসেম্বর?

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান