নির্ঘুম ব্যস্ততায় বাংলাদেশি পতাকা নির্মাতারা | বিশ্ব | DW | 23.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ফুটবল

নির্ঘুম ব্যস্ততায় বাংলাদেশি পতাকা নির্মাতারা

বিশ্বকাপ শুরুর সময় যত ঘনিয়ে আসছে, উন্মাদনা যেন তত বাড়ছে৷ তবে ঢাকার মেরাজনগরে পতাকা তৈরির ব্যস্ততা শুরু হয়েছে আরও আগে৷ প্রতিদিন বিক্রি হচ্ছে হাজার হাজার ছোট বড় পতাকা৷

বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ব্যস্ততম দিন কাটছে বাংলাদেশের পতাকা নির্মাতাদের৷ নিজ দেশের পতাকা নয়, নেইমারের ব্রাজিলবা মেসির আর্জেন্টিনার পতাকা বানাচ্ছেন তাঁরা৷

ছোট একটা টেক্সটাইল কারখানা চালান কামাল হোসেন৷ ঢাকার মেরাজনগরে তার সেই কারখানায় গিয়ে দেখা গেল দারুণ ব্যস্ততা৷ রাশিয়ার বিশ্বকাপকে সামনে রেখে দম ফেলানোর সময় নেই কারখানার কারিগরদের৷

কাজের ফাঁকে পতাকা বানানোর মেশিন থেকে মাথা না তুলেই তিনি বলেন, ‘‘গত দু’মাস ধরে কাজ করে যাচ্ছি৷ কোনো কোনো দিন দুই ঘণ্টার জন্যও ঘুমাতে পারি নাই৷’’

ক্রিকেট সবচেয়ে জনপ্রিয় হলেও প্রতি চার বছর পরপর ফুটবল বিশ্বকাপের উন্মাদনায় মেতে উঠে বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষ৷ মেরাজনগরের ঘরে ঘরে পতাকা নির্মাণের ব্যস্ততা রয়েছে৷ ১৪ জুন শুরু হতে যাওয়া রাশিয়া বিশ্বকাপকে সামনে রেখে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল সমর্থকদের রয়েছে বিপুল পতাকার চাহিদা৷ মেরাজনগরের প্রতিটি বাড়ি যেন পতাকা তৈরির ছোট কারখানা এখন৷

কামাল হোসেন বলেন, ‘‘প্রতিদিন আমরা হাজার হাজার পতাকা তৈরি করছি৷ আজ যেমন আর্জেন্টিনার ১১ হাজার ছোট পতাকা তৈরি করেছি৷’’  

ইতিমধ্যে বিভিন্ন দলের সমর্থকরা নিজ নিজ দলের পতাকা হাতে মিছিল করেছে৷ গত সপ্তাহে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর মাদারগঞ্জে ২০০ মিটার বিশাল পতাকা নিয়ে আর্জেন্টাইন সমথর্কদের একটি মিছিলের ভিডিও ভাইরাল হয়৷

১৯৮২ সালে বিশ্বকাপ ফুটবল প্রথমবারের বাংলাদেশে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়৷ কিন্তু ১৯৮৬ সালে আজের্ন্টিনাকে যে বিশ্বকাপটি ম্যারোডোনা প্রায় একক নৈপুণ্যে জেতান, সে ঘটনাই বাংলাদেশের বিপুল আর্জেনটাইন সমর্থক তৈরির ভিত্তি বছর ছিল৷   

নারায়ণগঞ্জের পতাকা বিক্রেতা ফারুক মিয়ার কথায়, ‘‘এখনও আর্জেন্টাইন সমর্থক বেড়েই চলেছে৷ ম্যারাডোনা খেলা ছেড়ে দিয়েছেন, কিন্তু নতুন সুপারস্টার মেসি তো রয়েছেন!’’

তিনি জানান, গেল সপ্তাহে ৫০০ পতাকা নিয়ে গিয়েছিলেন৷ এক সপ্তাহে ফেরি করে সেই পতাকা বিক্রি করেছেন প্রচুর মুনাফায়৷ আরও ৫০০ পতাকা কিনতে এসেছেন৷ 

কারখানা মালিক সেলিম হাওলাদার মনে করছেন, লাখ লাখ পতাকা বিক্রি হবে বিশ্বকাপের ঠিক আগ দিয়েই৷ 

তিনি বলেন, ‘‘২০১৪ সালে আমি ৮০ হাজারেরও বেশি পতাকা বিক্রি করেছি৷ বেশিরভাগই বিক্রি হয়েছে বিশ্বকাপ শুরুর অল্প কয়েকদিন আগে বা বিশ্বকাপ চলার সময়৷’’

হাসিমুখে ৩৩ বছর বয়স্ক হাওলাদার বলেন, ‘‘এখন আমি দুই থেকে আড়াই হাজার বড় পতাকা এবং ১০ হাজার ছোট পতাকা বিক্রি করছি প্রতিদিন৷’’ 

তাঁর নিজের কারখানায় ২৫ জন কর্মী এবং মেরাজনগরে প্রায় ২ হাজার মানুষ পতাকা বানানোর কাজে ২৪ ঘণ্টা ব্যস্ত রয়েছেন বলে জানান সেলিম হাওলাদার৷ 

তিনি আরও জানান যে তাঁর তালিকাতেও ব্রাজিল এবং আর্জেন্টিনার পতাকারচাহিদাই সবচেয়ে বেশি৷

‘‘আমি আর্জেন্টিনার ৫০ ফুট লম্বা পতাকা বানানোরও অর্ডার পেয়েছি৷ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার সমর্থক ছাড়াও জার্মানি, পর্তুগাল এবং স্পেনের সমর্থক’’, বলেন হাওলাদার৷ 

প্রচুর পতাকার চাহিদা থাকায় দরিদ্র সেলাই কর্মীদের হাতেও এসেছে বাড়তি কাজ এবং বাড়তি আয়ের সুযোগ৷ 

নার্গিস আক্তার এবং তাঁর স্বামী মোহাম্মদ ইকবাল হাওলাদারের কারখানায় কাজ করেন৷ 

মোহাম্মদ ইকবালের কথায়, ‘‘প্রতিদিন গড়ে আমরা ৩ হাজার টাকা করে আয় করছি৷’’

সারা মাস কাজ করে বাংলাদেশের গার্মেন্টস শ্রমিক পান মাত্র ৬ হাজার টাকা৷ সে কথা মাথায় রেখেই কিনা জানি না, পাশ থেকে মৃদু হেসে মোহাম্মদের স্ত্রী নার্গিস বললেন, ‘‘ইস্, পতাকা তৈরির এই ধুম যদি আরও অনেক মাস চলতো!’’

এইচআই/ডিজি (এইপিই)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন