নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব নিল জার্মানি | বিশ্ব | DW | 02.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব নিল জার্মানি

জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নিল জার্মানি৷ এপ্রিল মাসের জন্য দায়িত্ব পাওয়া জার্মানি এই সময়ে বিশ্বব্যাপী চলমান অস্থিরতা নিরসন ও বৈশ্বিক নানা ইস্যুতে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছে দেশটির সরকার৷

সভাপতিত্বের মেয়াদকালে জার্মানি বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে চলা সংঘাত নিরসনে দৃঢ় ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস৷ সংঘাত নিরসনে জাতিসংঘকে সহযোগিতা করার পাশাপাশি, সভাপতিত্বের মেয়াদকালে জার্মানি বিশ্ব্যাপী চলমান সংঘাত নিরসনে নিজের অবস্থান আরো দৃঢ় করার চেষ্টা চালাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি

৷ 

এদিকে গত সোমবার নিরাপত্তা পরিষদের এক আলোচনাসভায় জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রথম কাজ হওয়া উচিত মানবতার সুরক্ষায় নিজেকে নিয়োজিত করা৷ নিরাপত্তা পরিষদের এ ভূমিকা সংঘাত নিরসনে সরাসরি ভূমিকা না রাখতে পারলেও পরিষদের পদক্ষেপ নিঃসন্দেহে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে নিপীড়িত মানুষের কষ্ট লাঘবে সহায়ক হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন৷

আগামী দুই বছর মেয়াদে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে অস্থায়ী সদস্যের দায়িত্ব পালন করছে ইউরোপের অন্যতম শক্তিশালী রাষ্ট্র জার্মানি৷ এরই অংশ হিসেবে এপ্রিল মাসে পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করবে দেশটি৷ তবে এ সময়টিতে বন্ধু রাষ্ট্র ফ্রান্সের সাথে ‘দ্বৈত সভাপতিত্বের' ঘোষণা দেয় জার্মানি৷

কেমন হবে দ্বৈত সভাপতিত্ব?

জার্মানি ও ফ্রান্স উভয়ই বর্তমানে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে৷ তবে জার্মানির এ সদস্যপদের মেয়াদ দু'বছরের জন্য অর্থাৎ অস্থায়ী সদস্যের ভূমিকায় আছে দেশটি৷ এদিকে ফ্রান্স জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য৷ 

পর পর দু'মাসের জন্য নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পায় দেশ দুটি৷ সে হিসেবে, মার্চ মাসে পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছে ফ্রান্স৷ আর এপ্রিল মাসের জন্য এ দায়িত্ব লাভ করেছে জার্মানি৷ তবে পারস্পরিক সহযোগিতা ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের অংশ হিসেবে যৌথভাবে জাতিসংঘে একে অপরের সাথে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছে দেশ দুটি৷ দ্বৈত সভাপতিত্ব পরিচালনার বিষয়ে আখেন চুক্তি নামে এক সমঝোতায় পৌঁছে দু'দেশ৷ সে হিসেবে, মার্চ মাসের দায়িত্ব পালন শেষে ফ্রান্স জার্মানির কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করলেও পরিষদের সভাপতিত্বের মেয়াদকালে তেমন কোনো পরিবর্তন আনবে না জার্মানি৷

একই লক্ষ্য জার্মানি ও ফ্রান্সের

নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য হিসেবে অভিন্ন লক্ষ্যে কাজ করতে চায় দেশ দুটি৷ এর মধ্যে রয়েছে আফ্রিকার বিভিন্ন অঞ্চলে শান্তি বজায় রাখতে সহযোগিতা করা৷ এ লক্ষ্যে আফ্রিকার দেশ মালি ও বুর্কিনা ফাসোতে জাতিসংঘের শান্তি সহযোগিতা চালিয়ে নিয়ে যেতে চায় তারা৷ পাশাপাশি, বিশ্বব্যাপী মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন ও কর্মীদের কার্যক্রম আরো সহজতর করার বিষয়েও একসাথে কাজ করতে চায় দেশ দুটি৷

এদিকে, বলকান অঞ্চলের অস্ত্র বাণিজ্য বিষয়ে আরো সতর্ক হতে চায় তারা৷ পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে এ অঞ্চলের অস্ত্র বাণিজ্যে লাগাম টানতে চায় তারা, যা বিশ্বের অন্যান্য দেশের জন্য উদাহরণ হতে পারে বলে মনে করছে দেশ দু'টি৷

এছাড়া বিশ্বব্যাপী নারী উন্নয়ন, নারীদের রাজনীতিতে অধিক অংশগ্রহণসহ অন্যান্য সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ে একসাথে কাজ করতে চায় জার্মানি ও ফ্রান্স৷

আরআর/জেডএইচ (ডিপিএ, কেএনএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন