নিরাপত্তায় ত্রুটি ছিল, স্বীকার করল ফ্রান্স সরকার | বিশ্ব | DW | 18.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ফ্রান্স

নিরাপত্তায় ত্রুটি ছিল, স্বীকার করল ফ্রান্স সরকার

শনিবার প্যারিস উত্তাল হয় হলুদ জ্যাকেটধারী জনতার বিক্ষোভে৷ ক্ষিপ্ত জনতাকে সামলানোয় নিরাপত্তা অপর্যাপ্ত ছিল বলে অভিযোগ৷ ফলে, প্রশ্নের মুখে ফ্রান্সের সরকার৷

গত শনিবার আবার   হলুদ জ্যাকেটধারী বিক্ষোভকারীদের  রোষে স্তব্ধ হয় প্যারিস৷ ক্ষিপ্ত জনতা প্যারিসের গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল শজ এলিজে-র চারদিকে আগুন লাগায় এবং ব্যাপক লুটপাটও করে৷

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে স্থানীয় পুলিশ জলকামান, কাঁদানে গ্যাস ও স্টান গ্রেনেড ছোঁড়ে৷ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় মোট ৮০টি দোকান৷

শনিবারের ঘটনার জেরে বর্তমানে প্রশ্নের মুখে পুলিশি তৎপরতা ও সার্বিক নিরাপত্তা পরিস্থিতি৷

রবিবার ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী এদোয়ার্দ ফিলিপ একটি বিবৃতি দেন৷সেখানে তিনি বলেন, ‘‘গতকালের ঘটনায় নিরাপত্তার ঘাটতি ধরা পড়েছে৷ এর ফলে অনুচিত কাজ আটকানো যায়নি৷''

কর্তৃপক্ষের ব্যাপক নিন্দা হওয়ায় প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাঁক্রোও  নিজের ছুটি স্থগিত রেখে ফিরে আসেন এবং শহরে তাণ্ডব সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন৷

প্রশ্নবিদ্ধ কর্তৃপক্ষ

প্রায় তিন মাস ধরে চলমান এই বিক্ষোভের কী প্রভাব পড়েছে ফ্রান্সের অর্থনীতিতে, তা আলোচনা করতে সোমবারে একটি বৈঠকের ডাক দিয়েছেন সে দেশের অর্থমন্ত্রী ব্রুনো লেমেয়ার৷

গত মাসে লেমেয়ার জানান, চলমান বিক্ষোভের ফলে ফ্রান্সের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার ০ দশমিক ২ শতাংশ কমে গেছে৷ ফলে, এই পতন ঠেকাতেই বৈঠকের আয়োজন করেছেন তিনি৷

কিন্তু শনিবারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার দু'টি সেনেট কমিটির মুখোমুখি হতে হবে লেমেয়ারকে৷

সেখানে তিনি ছাড়াও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টফ কাস্টানেরকে শনিবারের বিক্ষোভে নিরাপত্তার ঘাটতি বিষয়ে জবাবদিহি করতে হতে পারে৷

এসএস/এসিবি (এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন