নিখুঁতভাবে গোলের রায় দেয় যে প্রযুক্তি | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 12.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

নিখুঁতভাবে গোলের রায় দেয় যে প্রযুক্তি

আজকের ফুটবল খেলা উত্তেজনায় ভরা৷ কিন্তু গোল হল কিনা, তা রেফারি ও টিভি ক্যামেরাও সব ক্ষেত্রে নিশ্চিতভাবে বলতে পারে না৷ গোলরেফ নামের এক প্রযুক্তি এ সংশয় দূর করতে পারে৷ খেলোয়াড়দের অনুশীলনের সময়ও প্রযুক্তির প্রয়োগ বাড়ছে৷

ফুটবল ম্যাচে গোল হলো কি না, সেটাই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মূল বিষয়৷ কিন্তু বল পুরোপুরি গোলপোস্টের সীমানা পেরোলো কিনা, তা মানুষের চোখে সব সময়ে স্পষ্টভাবে ধরা পড়ে না৷ জার্মানির ফ্রাউনহোফার ইনস্টিটিউটের নতুন এক পরিমাপের পদ্ধতি সে ক্ষেত্রে রেফারির সিদ্ধান্ত অনেক সহজ করে তুলতে পারে৷ পদার্থবিদ টোমাস পেলকোফার বলেন, ‘‘পরিমাপের এই সিস্টেম চৌম্বক ক্ষেত্রের ভিত্তিতে কাজ করে৷ বিশেষ করে গোলকিপার বা একাধিক খেলোয়াড়ের আড়ালে মানুষের চোখ বল দেখতে পায় না৷ তখনও বোঝা যায়, বল কোথায় কখন লাইন অতিক্রম করলো৷''

অদৃশ্য এক পর্দার মতো এই চৌম্বক ক্ষেত্রগোলপোস্টের খাঁচার মধ্যে কাজ করে৷ বল সেই সীমা পেরোলে ‘গোলরেফ' গোলের রায় দেয়৷ টোমাস পেলকোফার বলেন, ‘‘বলের সারফেসের ঠিক নীচে তিনটি কয়েল রয়েছে৷ সেগুলি তিনটি ভিন্ন দিকে চলে গেছে৷ কয়েলগুলির নিজস্ব ওজন এতই কম যে, বল প্রস্তুতকারকের বিধিনিয়ম অটুট থাকে৷''

ট্রেনিং-এর সময়েও ইলেকট্রনিকের প্রয়োগ করা হয়৷ প্রত্যেক খেলোয়াড়ের নিজস্ব পারফরমেন্স সংক্রান্ত তথ্য কোচের কাছে পৌঁছে যায়৷ টিমের খেলোয়াড়দের শরীর ও খুঁটিগুলিতে ট্রান্সমিটার বসানো হয়েছে৷ এক কম্পিউটার সর্বক্ষণ খেলোয়াড়দের অবস্থান মনিটর করছে৷ কম্পিউটার তাদের গতিবিধি অনুসরণ করে এক থ্রিডি ছবির মধ্যে গোটা অবস্থা ফুটিয়ে তুলছে৷ ইনডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ার রেনে ড্যুনকলার বলেন, ‘‘নানা ধরনের ট্রেনিং ইউনিট রয়েছে৷ যেমন খেলোয়াড় কত দ্রুত দৌড়ালো, কীভাবে দৌড়ালো, তার আচরণ কেমন ছিল, বাঁ পা না ডান পা চালালো, ঠিক কোথায় মুভমেন্ট হলো – অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক এই সব তথ্য সঙ্গে সঙ্গে আইপ্যাডের মতো ডিভাইসের মাধ্যমে কোচের কাছে পৌঁছে যাবে৷''

ন্যুর্নব্যার্গ শহরের স্টেডিয়ামে পেশাদারী খেলোয়াড়রা মাত্র ১৫ গ্রাম ওজনের যন্ত্রের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিয়েছেন৷ হাইটেক ট্রেনিং-এর তথ্য সংরক্ষণ করে পরে ফুটবলারদের দৌড়ানোর পথ, গতি, বল কাছে রাখার সময়ের হিসেব পাওয়া যায়৷ কোচ প্রত্যেকের ভুল ধরতে পারেন, ঘুরপথে লক্ষ্যে পৌঁছানোর চেষ্টা বা তাদের ক্লান্তি শনাক্ত করতে পারেন এবং তার ভিত্তিতে ট্রেনিং-এর পরিকল্পনা করতে পারেন৷ খেলোয়াড়দের পারফরমেন্সের উন্নতিও এই প্রযুক্তির মাধ্যমে স্পষ্ট দেখা যায়৷ স্বয়ংক্রিয় এক সিস্টেম থাকার কারণে দীর্ঘ সময় ধরে ভিডিও বিশ্লেষণের আর প্রয়োজন হয় না৷ রেনে ড্যুনকলার বলেন, ‘‘খেলোয়াড়দের জন্য এই প্রযুক্তি অত্যন্ত আকর্ষণীয়, কারণ এভাবে তারা আরও উন্নতি করতে পারেন৷ কোচ ও পক্ষপাতহীন এক সিস্টেমের মাধ্যমে তারা তাৎক্ষণিক ফিডব্যাক পেতে পারেন৷ ফলে ট্রেনিং চলাকালীন উন্নতি করা সম্ভব৷''

ইলেকট্রনিক সিস্টেমগুলি দর্শকদের জন্যও নতুন সুযোগ এনে দিচ্ছে৷ টেলিভিশন সম্প্রচারের সময় খেলোয়াড়দের গতি ও পারফরমেন্স পর্দায় ফুটিয়ে তোলা সম্ভব৷ নতুন প্রযুক্তির দৌলতে গোল হলো কিনা, তা নিয়েও আর উত্তপ্ত বিতর্কের কারণ থাকবে না৷ টোমাস পেলকোফার বলেন, ‘‘গোলরেফ প্রযুক্তির উদ্যোক্তা হিসেবে আমাদের মনে হয়, ১৯৬০ সালে বড় ধীরে খেলা হতো৷ আজ ফুটবল এক উন্নত ক্রীড়া, আগের তুলনায় অনেক দ্রুত হয়ে উঠেছে৷ ফেয়ারনেস বা ন্যায্য রায় আজ খুব গুরুত্বপূর্ণ৷ মানুষের চোখে যা ধরা পড়ে না, তা শনাক্ত করতে একমাত্র প্রযুক্তি সাহায্য করতে পারে৷''

এবার রেফারির বিতর্কিত সিদ্ধান্ত অনেক কমে যাবে৷আন্তর্জাতিক ফুটবল ফেডারেশন ফিফা এরই মধ্যে গোলরেফ প্রযুক্তিকে সার্টিফিকেট দিয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন