নিউ নর্মাল যুগের অ্যাবনর্মাল ভারত | আলাপ | DW | 25.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

নিউ নর্মাল যুগের অ্যাবনর্মাল ভারত

করোনা সময় ভারতের অর্থনীতি থেকে স্বাস্থ্যপরিষেবা-- সব বিষয়ের হাঁড়ির হাল স্পষ্ট করে দিয়েছে৷ ভবিষ্যৎ বিশেষ আলোকিত নয়৷

‘‘দেশভাগের পর ভারতের রাস্তা দিনের পর দিন ধরে এত মর্মান্তিক দৃশ্য দেখেনি৷’’

‘‘দেশভাগের পর ভারতের রাস্তা দিনের পর দিন ধরে এত মর্মান্তিক দৃশ্য দেখেনি৷’’

২১ দিন সময় চেয়েছিলেন৷ মাঝে কেটে গিয়েছে নয় মাস৷ নরেন্দ্র মোদীর ভারতে করোনা বৃত্তান্ত দিনে দিনে ফুলে ফেঁপে উঠেছে৷ আপাতত সকলেই তাকিয়ে আছেন টিকার দিকে৷ যদিও সেই টিকা কাহিনি কতটা সুখের হবে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে৷

মার্চের তৃতীয় সপ্তাহে ভারতে করোনার তেজ ততটা বাড়েনি৷ দৈনিক সংক্রমণ হাজারেও পৌঁছায়নি৷ কিন্তু ইউরোপে তখন ভয়াবহ পরিস্থিতি৷ দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাই কয়েক হাজার৷ অ্যামেরিকাতেও করোনা থাবা বসিয়েছে তত দিনে৷ বিভিন্ন দেশ ইউরোপ এবং অ্যামেরিকার সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধ করতে শুরু করেছে৷ দুর্জনরা বলে, ট্রাম্পের ভারত সফরের জন্য অপেক্ষা করছিল সরকার৷ সফর কেটে গেলে ভারতের প্রধানমন্ত্রী 'জনতার কার্ফিউ' ঘোষণা করেন৷ প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, একদিন সকলে বাড়িতে বসে থাকলে করোনার চেন ভাঙা সম্ভব৷

জনতার কার্ফিউ সফল হয়েছিল৷ তবে এক দিনে করোনার সংক্রমণে বিশেষ পরিবর্তন হয়নি৷ এর কয়েকদিনের মধ্যেই মোদী ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেন৷ ওই ২১ দিনে করোনার চেন ভাঙবে এবং সকলে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবেন বলে ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী৷ ২১ দিনে করোনার চেন ভাঙেনি৷ লকডাউনও ২১ দিনে ওঠেনি৷ প্রায় দেড় মাস কমপ্লিট লকডাউনে ভারতের রাস্তায় রাস্তায় ইতিহাস তৈরি হয়েছে৷

রাজপথ দেখেছে ভুখা মিছিল৷ হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিক হাজার হাজার কিলোমিটার পথ হেঁটে ফেরার চেষ্টা করেছেন৷ গরমে, অনাহারে রাস্তাতেই মৃত্যু হয়েছে অনেকের৷ এখনো পর্যন্ত যার কোনো পরিসংখ্যান সরকার তৈরি করে উঠতে পারেনি৷ সংসদে কোনো তথ্য দিতে পারেনি৷ প্রথম দিকে পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে সরকার সে ভাবে চিন্তাও করেনি৷ কিন্তু মৃত্যুমিছিল শুরু হওয়ার পরে রাজ্য এবং কেন্দ্র সরকারের খানিকটা টনক নড়ে৷ ঠিক হয়, পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য ট্রেন চালানো হবে৷ সেই ট্রেন থেকেও নামতে থাকে শ্রমিকদের লাশ৷ দেশভাগের পর ভারতের রাস্তা দিনের পর দিন ধরে এত মর্মান্তিক দৃশ্য দেখেনি৷

একদিকে যখন পরিযায়ী শ্রমিকদের হাহাকার চলছে, ঠিক তখনই মধ্যবিত্ত এবং নিম্নবিত্ত চাকরি হারাতে শুরু করে৷ মাত্র কয়েক মাসে ১২ কোটি মানুষ কাজ হারান৷ তারও বেশি মানুষের বেতন কমে যায়৷ ভারতের অর্থনীতি লকগেটের সামনে এসে দাঁড়ায়৷ সরকারি হিসেবে ২০২০ সালের দ্বিতীয় কোয়ার্টারে প্রায় ২৪ শতাংশ জিডিপি নেমে যায়৷ করোনার সময়ে গোটা বিশ্বের কোনো দেশে এই পরিমাণ জিডিপির পতন হয়নি৷ লকডাউনের পর অর্থনীতির সামান্য উন্নতি হয়েছে৷ কিন্তু অর্থনীতির পতনের ট্রেন্ড কমেনি৷ তৃতীয় কোয়ার্টারে ভারতীয় অর্থনীতির আরো সাত শতাংশ পতন হয়েছে৷

অর্থনীতির এই ভয়াবহ পরিস্থিতির জন্যই সরকার লকডাউন তুলতে বাধ্য হয়৷ যখন তোলা হয়, ভারতে তখন দৈনিক করোনা সংক্রমণের পরিমাণ বিশ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে৷ যত দিন গিয়েছে,  সংক্রমণ বাড়তে বাড়তে দৈনিক প্রায় এক লাখে গিয়ে পৌঁছেছে৷ গোটা ভারত জুড়ে কার্যত এক প্যানডেমোনিয়াম তৈরি হয়৷ বোঝা যায়, দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার বেহাল দশা৷

সরকারি হাসপাতালে জায়গা নেই৷ বেসরকারি হাসপাতালে পকেট ফাঁকা করে দেয়৷ সঙ্গে রয়েছে অশুভচক্র৷ দিল্লির মতো রাজধানী শহরেও দালালচক্র কার্যত ওপেন সিক্রেট হয়ে গিয়েছে৷ লাখ লাখ টাকা ডিপোজিট না করলে হাসপাতালে রোগী ভর্তি করা হচ্ছে না, এই অভিযোগও উঠেছে৷ বিভিন্ন কোভিড সেন্টারের বেহাল দশা সামনে এসেছে৷ সেখানে ধর্ষণ পর্যন্ত হয়েছে৷ দিল্লির সরকারি হাসপাতালের দশা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের ধমক খেতে হয়েছে সরকারকে৷ সরকার বিশেষ কোনো ব্যবস্থা নিয়ে উঠতে পারেনি৷ আশ্বাস দিয়েছে দ্রুত টিকা সরবরাহের৷

এই মুহূর্তের যা পরিস্থিতি, তাতে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই টিকা পাবে ভারত৷ কিন্তু কী ভাবে সেই টিকা দেওয়া হবে৷ কারা আগে পাবেন? টিকার দাম কে দেবে, কোন সংস্থার টিকা কোথায় যাবে-- কোনো বিষয়েই সরকার স্থির কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে উঠতে পারেনি৷ সব বিষয়ে কেন্দ্র-রাজ্য এক মত হয়নি৷ ফলে অচিরেই যে টিকা নিয়ে রাজনীতি বেশি হবে এবং কাজ কম হবে, এ বিষয়ে কারো মনে কোনো দ্বিধা নেই৷

এক কথায় ভারতের করোনা এক নতুন রাজনীতির জন্ম দিয়েছে৷ অদূর ভবিষ্যতে ইতিহাস যাকে করোনা রাজনীতি বলেই চিনবে৷

তবে প্রদীপের নীচে অন্ধকার থাকলে এক চিলতে আলোর সূত্রের প্রয়োজন হয়৷ করোনার সময় ভারতে প্রচুর সফল স্টার্টআপ তৈরি হয়েছে৷ বাড়িতে বসে অনেকেই সফল ব্যবসা শুরু করতে পেরেছেন৷ স্যানিটাইজার, মাস্ক তৈরি কার্যত কুটির শিল্পে পরিণত হয়েছে৷ স্টার্টআপ কোম্পানির সহায়তায় চাষী অনলাইনে জমির ফসল বিক্রি করেছেন৷ নিউ নর্মাল যুগে এ সব স্টার্টআপই ক্রমশ নর্মাল হয়ে উঠবে বলে মনে করছেন বহু বিশেষজ্ঞ৷ অবশ্য বাস্তব কোন পথে চলবে, সেই ভবিষ্যদ্বাণী সহজ নয়৷

বিজ্ঞাপন