নিউজ ইন দ্য টাইম অব করোনা | আলাপ | DW | 07.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

নিউজ ইন দ্য টাইম অব করোনা

নোবেলজয়ী সাহিত্যিক গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেস এক প্রেম উপন্যাস লিখেছিলেন ‘লাভ ইন দ্য টাইম অব কলেরা’ নামে৷ মহামারিতে প্রেম করাটা মার্কেসের দৃষ্টিতে যতোটা কঠিন, আমার দৃষ্টিতে সংবাদ প্রকাশটাও তারচেয়ে কম বলে মনে হচ্ছে না৷

সেদিন চোখে পড়লো আমার এক ফেসবুক বন্ধু একটি সংবাদ শেয়ার করেছেন৷ সংবাদে বলা হয়েছে ভারতের কেরালায় কয়েক হাজার নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় সেখানে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে৷ আমি তো রীতিমতো আঁতকে উঠলাম৷ সত্যিই এমন হলে তো এটি অনেক বড় খবর৷

নিজেকে সামলে উঠে যখন একটু খেয়াল করলাম, দেখলাম সেটি একেবারেই নামের শেষে ২৪ যোগ করা একটি অপরিচিত অনলাইন পোর্টাল৷ একটু খুঁজতেই পেলাম, জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে বটে, কিন্তু আক্রান্তের সংখ্যাটা আসলে তিন৷ কিন্তু ততক্ষণে আমার ‘বন্ধুর' শেয়ার করা সংবাদ আরো অনেকে শেয়ার করেছেন৷ অনেকে কমেন্ট করছেন এটা ‘ভারতের ওপর গজব' বলে৷

কোনো কিছু ঘটলেই সেটা থেকে নিজেরা কিভাবে ফায়দা লোটা যায়, সে ধান্দায় ব্যস্ত সবাই৷ বাংলাদেশে হঠাৎ মাস্কের দাম বেড়ে গেছে, কিন্তু এই মাস্ক দিয়ে যে ভাইরাস তো দূরের কথা রাস্তার ধুলাও ঠিকমতো ঠেকানো যায় না, সেটা ভাবারও প্রয়োজন মনে করছেন না কেউ৷

 

কে জানে রাস্তায় ক্যানভাসাররা কদিন পরে ঠেলাগাড়িতে করোনা ভাইরাসের ওষুধ বিক্রি শুরু করবেন কিনা৷ ভারতে দেখলাম এক ধর্মব্যবসায়ী গরুর গোবর ভাইরাস দূর করবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন৷ বাংলাদেশেও কিছু ভিডিওতে করোনা ভাইরাস ঠেকানোর দোয়া শেখাতে দেখলাম৷

তো এই যখন অবস্থা, সংবাদ ব্যবসায়ীরাই বা পিছিয়ে থাকবেন কেনো? যারা শুধু মার্কেটে ‘খাবে ভালো' বিবেচনায় সংবাদ প্রকাশ করেন, তাদের সঙ্গে মাস্ক বিক্রেতাদের তেমন ফারাক দেখি না৷ ফলে ‘কী খায় চীনারা', ‘চীন থেকেই কেনো ভাইরাস ছড়ায়' ‘সবই কী ষড়যন্ত্র?' শিরোনামের তথ্য নাম না জানা পোর্টালে শোভা পাচ্ছে, ফাঁকফোঁকরে ঢুকে পড়ছে মূলধারার গণমাধ্যমেও৷

এই লেখা লিখতে গিয়ে বিশ্বে কী ঘটছে খুঁজতেই দেখলাম ভুয়া নিউজের বন্যায় ভাসছে পৃথিবী৷ কেমন সেসব নিউজ? পড়ুন:

* চীনারা নিয়মিত বাদুড় আর সাপ খায়, এজন্যই এখান থেকে সব ভাইরাস ছড়ায়৷ (অথচ ভাইরাস যেকোনো স্থান থেকেই ছড়াতে পারে৷ যেমন করোনা ভাইরাসের আরেক প্রজাতি মার্স ছড়িয়েছিল উট থেকে সৌদি আরবে৷)

* উইগুরদের ওপর নির্যাতনের গজব পড়েছে চীনের ওপর৷ (অথচ কদিন আগে বাংলাদেশে প্রতিদিন শত শত মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ায় আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছিল৷)

* চীন নিজেই ভাইরাস তৈরি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক চাপ থেকে দৃষ্টি অন্যদিকে সরাতে৷ (অথচ কদিন আগেই চীন আর যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে নতুন চুক্তি হয়েছে৷)

* চীনা সরকার জনসংখ্যা কমাতে এ ভাইরাস নিজেই ছড়িয়ে দিয়েছে৷ (এ নিয়ে কী বলবো খুঁজে পাচ্ছি না৷)

* চীন আসলে বায়োলজিক্যাল ওয়েপন অর্থাৎ জীবাণু অস্ত্র তৈরি করতে চাইছিল, দুর্ঘটনায় এটা ছড়িয়ে পড়েছে৷ (এতো বড় ঘটনা চীনের বৈশ্বিক শত্রু দেশগুলোর গোয়েন্দারাও জানতে পারলো না, জানলাম শুধু আমরা ফেসবুক গোয়েন্দারা৷)

শুধু ফেসবুক নয়, ইসলামোফোবিয়ার মতো করে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে সিনোফোবিয়া (চীনাবিদ্বেষ)৷ ইসলামবিদ্বেষের মতো এই নয়া জাতিবিদ্বেষ রুখতেও মূলধারার গণমাধ্যম ব্যর্থ

এতোকিছু দেখার পর আমার হতাশা কিছুটা কমেছে৷ যাক, ফেসবুকে যা দেখি বিশ্বাস করাটা তাহলে শুধু আমাদের ট্রেন্ড না৷ দুঃখবিলাস বলে একটা শব্দ অনেক আগে থেকেই বাংলায় চালু আছে৷ বাংলা একাডেমির সময় এসেছে ভয়বিলাস বা গুজববিলাস শব্দ অভিধানে অন্তর্ভুক্ত করার৷

আমরা ভয় পেতে ভালোবাসি৷ ফলে সংবাদমাধ্যমও ‘এতো ভয় পাওয়ার কিছু নেই' বলে পাঠক-দর্শক হারাতে চায় না৷ সবার জন্যই একটা উইন-উইন সিচুয়েশন৷ বাংলাদেশের রোগতত্ত্ব ইনস্টিটিউট- আইইডিসিআর যত বলছে চীনের উহান থেকে ফেরা বাংলাদেশিদের মধ্যে করোনা ভাইরাস পাওয়া যায়নি, তত সবাই সন্দেহ প্রকাশ করছেন করোনা শনাক্ত করার সক্ষমতা নিয়ে৷ সরকার কিছু একটা ‘লুকাতে চাচ্ছে' বলেও মনে করছেন কেউ কেউ৷

এদিকে, মালয়েশিয়ায় নভেল করোনা ভাইরাস নিয়ে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ জেনেশুনে মিথ্যা তথ্য ফেসবুকে ছড়ানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এক সাংবাদিককেও৷ দেশটির কমিউনিকেশন ও মাল্টিমিডিয়া কমিশন এক বিবৃতিতে জনগণকে আহ্বান জানিয়েছে যেকোনো কিছু শেয়ার করার আগে সে তথ্য যেন যাচাই করে নেয়৷

এ ইস্যুতে মালয়েশিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল টান শ্রী টমি টমাসের বক্তব্য আমার খুবই মনে ধরেছে৷ দেশটির দ্য স্টার পত্রিকায় ছাপা হয়েছে তার এই বক্তব্য৷ তিনি বলেন, ‘‘বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস নিয়ে যে পরিমাণ মিথ্যা তথ্য ছড়ানো হচ্ছে তাতে আকৃষ্ট হচ্ছেন মালয়েশিয়ানরাও৷ যেকোনো সমাজে যখন মহামারি ছড়ায় তখন স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের উচিত নিয়মিত সঠিক তথ্য সরবরাহ করা৷''

করোনা ভাইরাসের উৎসকে জড়িয়ে একটি নির্দিষ্ট গোষ্ঠীকে হেয় করার চেষ্টাকেও কঠোর ভাষায় সমালোচনা করেছেন তিনি৷ বলেছেন, ‘‘ইন্টারনেটে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে বিশেষ কোনো ধর্মের বা জাতির মানুষকে ছোট করার চেষ্টা কেবল নিন্দনীয়ই নয় একটি বহুজাতিক সমাজের জন্য ভয়াবহ ক্ষতিকর৷''

HA Asien | Anupam Deb Kanunjna

অনুপম দেব কানুনজ্ঞ, ডয়চে ভেলে

 

২০১৯ সালে বাংলাদেশে ৫ হাজার ৫১৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ হাজার ৮৫৫ জন নিহত হয়েছেন৷ জাতীয় ও আঞ্চলিক সংবাদপত্র এবং অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে এই তথ্য জানায় বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি৷ 

আরেক বেসরকারি সংস্থা রোড সেফটি ফাউন্ডেশন জানিয়েছে শুধু এ বছরের জানুয়ারিতে ৩৪০টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন অন্তত ৪৪৫ জন৷

করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হলেই মারা যাবেন, এমন কথা চিকিৎসকরাও বলছেন না৷ বরং অনেক আক্রান্তই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরছেন৷ গুজব না ছড়িয়ে, ভয় না ছড়িয়ে, আসুন চিকিৎসকদের কথা শুনি৷ কী কী সাবধানতা অবলম্বন করলে শুধু করোনা নয়, যেকোনো রোগের সঙ্গে লড়াই করে স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করা যাবে, সেদিকে লক্ষ্য দেই৷

২০১৬ সালে প্রকাশ করা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য বলছে, ১৫ বছর ধরে পৃথিবীতে মানবমৃত্যুর সবচেয়ে বড় কারণ হৃদরোগ৷ শুধু ২০১৬ সালেই নানা ধরনের হৃদরোগে মারা গেছেন দেড় কোটিরও বেশি মানুষ৷

তাই বলি, শান্ত থাকুন৷ গুজবে কান দিয়ে, বিদ্বেষ ছড়িয়ে আসুন কোমল হৃদয়ে আর চাপ না বাড়াই৷

প্রিয় পাঠক, আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়