‘না ফিরলে চাকরি থাকবে না’ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 31.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘না ফিরলে চাকরি থাকবে না’

বাংলাদেশে রোববার থেকে খুলে যাচ্ছে তৈরি পোশাকসহ রপ্তানিমুখী শিল্প কারখানা৷ সেই সিদ্ধান্তে শ্রমিকরা ঢাকায় ফিরতে গিয়ে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ ও কষ্টের শিকার হচ্ছেন৷ অনেকেরই আশঙ্কা, সময়মত কর্মস্থলে না ফিরলে তাদের চাকরি থাকবে না৷

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরিঘাটে শনিবার ঢাকা ফেরত মানুষের স্রোত৷

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরিঘাটে শনিবার ঢাকা ফেরত মানুষের স্রোত৷

লকডাউনের পাঁচদিন বাকি থাকতেই কারখানা খোলার সিদ্ধান্ত হলেও দূরপাল্লার সব ধরনের যানবাহন বন্ধ আছে৷ কারখানার পক্ষ থেকেও কোনো যানবাহনের ব্যবস্থা করা হয়নি৷ তাই পায়ে হেঁটে, ভ্যান ও রিক্সায় করে যে যার মতো ফিরছেন৷ ফেরিঘাট আর সড়কে ঢাকামুখী পোশাক কর্মীদের যেন মিছিল নেমেছে৷

মনারুল ইসলামের সাথে কথা হয় শনিবার দুপরের পর৷ তিনি ঢাকার মোহাম্মদপুরে একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করেন৷ বাড়ি সিরাজগঞ্জে৷ মনারুল বলেন, ‘‘সরকারের কারখানা খোলার ঘোষণার পর অফিস থেকে ফোন করা হয়, এসএমএস পাঠানো হয়৷ বলা হয় যেকোনো উপায়ে ১ আগষ্ট অফিসে হাজির থাকতে হবে৷ যদি তার অন্যথা হয় তাহলে চাকরি থাকবে না৷’’

অডিও শুনুন 03:11

না আসলে তো চাকরি থাকবে না৷ তখন খাবো কী: মো. আকাশ মিয়া

মনারুলসহ তিনজন পোশাককর্মী শনিবার সকালেই সিরাজগঞ্জ থেকে রওনা হন৷ তাদের সঙ্গে একজন নারী সহকর্মীও ছিলেন৷ তারা কখনো ভ্যান, কখনো পায়ে হেঁটে আবার কখনো ব্যাটারি চালিত ইজিবাইকে করে ঢাকার গাবতলী আসেন দুপরের পর৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের একজনের ঢাকায় আসতে ২৫০ টাকা খরচ হয়, কিন্তু এবার খরচ হয়েছে ৮০০ টাকা৷’’  চাকরির ভয়ে সবাই যে যেভাবে পারছেন কর্মস্থলে ফিরছেন বলে জানান তিনি৷

মো. আকাশ মিয়া কাজ করেন সাভারের হেমায়েতপুরের একটি পোশাক কারখানায়৷ তার বাড়ি রাজবাড়ি৷ তিনিও দুপরের পর তার স্ত্রী ও এক সান্তানকে নিয়ে সাভার এলাকায় আসেন৷ কীভাবে আসলেন জানতে চাইলে বলেন, ‘‘রাজবাড়ি থেকে ভ্যানে দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে রওনা দেয়ার পর মাঝখানে পুলিশ নামিয়ে দেয়৷ এরপর কখনো পায়ে হেঁটে আবার কখনো ভ্যানে ফেরি ঘাটে পৌঁছাই৷ ফেরি পার হওয়ার পর তারপর আবার পায়ে হেঁটে ও ভ্যানে করে সাভার আসি৷ কী যে কষ্ট হয়েছে বলে বুঝাতে পারব না৷’’

কেন আসলেন? লকডাউনের পরেও তো আসতে পারতেন? এমন প্রশ্নের জবাবে আকাশ বলেন, ‘‘না আসলে তো চাকরি থাকবে না৷ তখন খাবো কী,’’ জবাব আকাশের৷

এরকম ফিরে আসার কষ্টের গল্প গাবতলী ও সাভার এলাকায় অনেকের মুখেই শোনা গেছে রোববার৷ কেউ কেউ এই যাত্রায় ক্ষুধার্ত আর ক্লান্ত হয়ে রাস্তার পাশে বসে পড়েন৷

অডিও শুনুন 02:26

চাকরির ভয় দেখিয়ে এই লকডাউনের মধ্যেও আসতে বাধ্য করা হচেছ: সিরাজুল ইসলাম রনি

বাংলাদেশের তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ একদিন আগে বলেছে, ৮০ ভাগ শ্রমিকই চলে এসেছে৷ যারা চলে এসেছে তাদের দিয়েই পোশাক কারখানা চালু করা হবে৷ যারা আসতে পারবে না তাদের চাকরি যাবে না৷ খোলা হবে ঢাকার আশপাশের কারখানা৷ বিজিএমইএ'র সহ-সভাপতি শহীদুল্লাহ আজিম দাবি করেন, ‘‘ঈদের ছুটিতে এবার শ্রমিকরা বাড়ি যায়নি৷ যারা গেছে তারা এরইমধ্যে চলে এসেছে৷ ২০ ভাগের মতো শ্রমিক বাড়িতে আছে৷ তাদের যে শনিবারের মধ্যে আসতে হবে তা নয়৷ লকডাউন শেষে আসলেও চলবে৷’’

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনও বলেছেন শ্রমিকরা না আসতে পারলে তাদের চাকরি যাবে না৷ কিন্তু বাস্তবে পরিস্থিতি উল্টো৷ ফিরে আসা পোশাক শ্রমিকরা বলেন, তাদের ফোন করে এবং মেসেজ দিয়ে তাদের কারখানা থেকে বলা হয়েছে শনিবারের মধ্যে আসতে হবে৷ রোববার থেকে খোলা৷ না আসতে পারলে চাকরি থাকবে না৷

জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম রনি বলেন, ‘‘বিজিএমইএ অসত্য কথা বলছে৷ ঈদের ছুটিতে শতভাগ শ্রমিক গ্রামের বাড়িতে গেছেন৷ তারা এখন খোলার খবরে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছেন৷ আগে কোনো শ্রমিক ঢাকা আসেননি৷ তাদের চাকরির ভয় দেখিয়ে এই লকডাউনের মধ্যেও আসতে বাধ্য করা হচেছ৷ কিন্তু তাদের জন্য কোনা ধরনের যানবাহনের ব্যবস্থা করা হয়নি৷’’

অডিও শুনুন 01:16

শ্রমিকরা যেভাবে গিয়েছেন সেভাবেই ফিরছেন: সিদ্দিকুর রহমান

তিনি আরো বলেন, ‘‘পোশাক শ্রমিকরা বিপাকে পড়ে আমাদের ফোন করছেন৷ কিন্তু আমরা তাদের জন্য কিছুই করতে পারছি না৷ তারা অবর্ণনীয় কষ্ট ভোগ করে কর্মস্থলে ফিরছেন৷’’

বিজিএমইএ'র সাবেক সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘‘শ্রমিকরা যেভাবে গিয়েছেন সেভাবেই ফিরছেন৷ তারা দুই ঈদেই এরকম করেছেন৷ এই ঈদে তাদের বাড়ি না যেতে বলা হয়েছিলো৷ কিন্তু তারা গিয়েছেন৷ এখন খোলার খবর পেয়ে ছুটে আসছেন৷ তবে কেউ আসতে না পারলে চাকরি যাবে না৷ আমরা চাইনা যে এই ভাবে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে কেউ আসুক৷’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘রোববার থেকে পুরো স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পোশাক কারখানা চালু হচ্ছে৷ ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট-এর কারণে আমরা আরো বেশি সতর্ক থাকব৷’’

বাংলাদেশে সাড়ে চার হাজারের মতো পোশাক কারখানায় ৪০ লাখেরও বেশি শ্রমিক কাজ করেন৷ যাদের অধিকাংশই নারী৷ এই শ্রমিকরা এখন ছুটছেন গণপরিবহন বিহীন লকডাউনের মধ্যে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়