নাৎসি অলিম্পিকের সঙ্গে ফুটবল বিশ্বকাপের তুলনায় ক্ষুব্ধ মস্কো | বিশ্ব | DW | 22.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্রিটেন-রাশিয়া

নাৎসি অলিম্পিকের সঙ্গে ফুটবল বিশ্বকাপের তুলনায় ক্ষুব্ধ মস্কো

আসছে ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১৮-কে ১৯৩৬ সালের অ্যাডলফ হিটলারের আমলের বার্লিন অলিম্পিকের সঙ্গে তুলনা করেছেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন৷ তার এই মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে রাশিয়া৷

এই তুলনাকে ‘অগ্রহণযোগ্য’ বলে উল্লেখ করেছে রাশিয়া৷ ‘‘এই ধরনের তুলনা গ্রহণযোগ্য নয়৷ এমন বক্তব্য কোনো ইউরোপীয় দেশের শীর্ষ কূটনৈতিক পর্যায় থেকে আসতে পারে না৷’’ নিজের ফেসবুক পাতায় রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা লিখেছেন৷

এর আগে জনসন বলেছিলেন, এই তুলনা সঠিক৷ কারণ, ১৯৩৬ সালের অলিম্পিকে জার্মানদের ‘শ্রেষ্ঠত্ব’ প্রমাণের সব চেষ্টাই করেছিলেন নাৎসি নেতা হিটলার৷

বুধবার প্রথমে একজন বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্য বিষয়টি যুক্তরাজ্যের সংসদে তোলেন৷ জনসন বলেন, ‘‘আমি মনে করি, এই তুলনা সঠিক৷ কারণ, মনে হচ্ছে, এই গেমসে পুটিনকেই মহিমান্বিত করা হবে৷’’

তবে সেজন্য ইংল্যান্ড দলকে টুর্নামেন্ট থেকে সরিয়ে আনা হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন যে, এই ঘটনার জন্য ইংল্যান্ড ফুটবল দল বা সমর্থকদের তো ‘শাস্তি’ দেয়া যায় না!

যুক্তরাজ্য ও রাশিয়ার মধ্যে এমনিতেই কিছুটা ‘উত্তেজনা’ বিরাজ করছে৷ তার মধ্যে এই বাক্য বিনিময় সেই আগুনে কিছুটা ঘি ঢেলে দেয়ার মতো হলো৷ 

কয়েকদিন আগে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে ব্রিটেনের মাটিতে সাবেক এক রুশ গোয়েন্দা ও তাঁর মেয়েকে বিষ খাইয়ে হত্যা চেষ্টার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেন৷

রাশিয়া বিষয়টি অস্বীকার করে৷ বিষয়টি শুধু উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি৷ যুক্তরাজ্য ২৩ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেন এবং বিশ্বকাপে কোনো মন্ত্রী পর্যায়ের বা রাজপরিবারের সদস্য অংশ নেবেন না বলেও ঘোষণা দেন৷

জবাবে রাশিয়াও ২৩ ব্রিটিশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করে এবং সেদেশের ব্রিটিশ কাউন্সিল বন্ধ করে দেয়৷

উল্লেখ্য, ১৯৩৬ সালের অলিম্পিকে নাৎসিরা জার্মান জাতীয়তাবাদ ও আর্য্য বর্ণের শ্রেষ্ঠত্ব তুলে ধরে৷ এমনকি ইভেন্ট চলার সময় ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে চারটি স্বর্ণ জেতা অ্যামেরিকার কৃষ্ণাঙ্গ অ্যাথলেট জেসে ওয়েনসের সঙ্গে হিটলার হাত মেলাতে অস্বীকার করেছেন– এমন সংবাদও প্রচারিত হয়েছে তখন৷

জেডএ/এসিবি (এএফপি, এপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন