নারী-পুরুষের আলাদা শিক্ষাব্যবস্থা চান এরদোয়ান | বিশ্ব | DW | 08.07.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

তুরস্ক

নারী-পুরুষের আলাদা শিক্ষাব্যবস্থা চান এরদোয়ান

জাপানের আদলে তুরস্কেও নারী-পুরুষের জন্য আলাদা শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়্যিপ এরদোয়ান৷ তবে তাঁর এমন বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা হয়েছেন সেদেশের অনেক অধিকারকর্মী৷

জাপানে অনুষ্ঠিত জি-২০ সম্মেলনে গিয়ে নারী-পুরুষের পৃথক শিক্ষা নিয়ে বিতর্কিত বক্তব্য দেন এরদোয়ান৷ জাপানে ৮০ টি নারী বিশ্ববিদ্যালয় থাকাকে ‘খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়' হিসাবে উল্লেখ করে প্রেসিডেন্ট জানান, তুরস্কেও তিনি এটি চালু করতে চান৷

সম্মেলন থেকে ফিরে আঙ্কারায় ফিরে জাপানি মডেলে নারী-পুরুষের পৃথক শিক্ষার কথা বলেন এরদোয়ান৷ তিনি বলেন, তুরস্কের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পৃথক শিক্ষার মধ্যে ভালো কিছু দেখছেন তিনি৷ তুরস্কের উচ্চ শিক্ষা কাউন্সিল-(ওয়াইওকে) কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য বলার কথাও জানান প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান৷

শিক্ষাব্যবস্থার সংস্কারে তাঁর এমন ইচ্ছার তীব্র সমালোচনা করেছেন নারী অধিকার কর্মী ও নারীবাদীরা৷ তারা বলছেন, জাপানের আদলে সবদেশে এটা করে ফেলা কোনোভাবে উপযুক্ত নয়৷ কারণ নারী অধিকার বিবেচনায় বৈশ্বিকভাবে অনেক পিছিয়ে জাপান৷

২০১৮ সালে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম (ডাব্লিউইএফ)-এর এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, জেন্ডার সমতার ক্ষেত্রে ১৪৯ দেশের মধ্যে ১১০তম স্থান জাপানের৷ যদিও তুরক্ত জাপান থেকে ২০ ধাপ পেছনে ছিল৷

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও নারী অধিকার বিশেষজ্ঞ ফাতমাগুল বার্কতাই বলেন, ১৯শতকে শিক্ষায় নারীদের এগিয়ে আনার জন্য জাপানে পৃথক শিক্ষাব্যবস্থার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল৷ কারণ এমন এগিয়ে আনা জাপানে দীর্ঘদিনের অঙ্গীকার ছিল৷ কিন্তু এখন তো নারী-পুরুষকে আলাদা করাকে বৈষম্য হিসাবেই বিবেচনা করা হয়৷

এই ধরনের উদ্ভট সিদ্ধান্ত না নিয়ে তুরস্কের শিক্ষাব্যবস্থাকে উন্নতিতে নজর দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে ফাতমাগুল বার্কতাই বলেন, ‘‘আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা মৌলিকভাবে ভেঙে পড়া৷ এ কারণে আমাদের শিক্ষার উন্নতি দরকার৷ এমতাবস্থায় নারী-পুরুষের জন্য পৃথক বিশ্ববিদ্যালয় করার কথা বলা নিতান্তই বোকামি৷''

পৃথক শিক্ষাব্যবস্থা করলে ছাত্রীরা ভালো ফলাফল করবে বলে মত দিয়ে থাকেন এরদোয়ান এবং তাঁর দল একেপি নেতারা৷ তবে এক্ষেত্রে ভিন্নমত দেন ফাতমাগুল বার্কতাই৷

‘‘মাধ্যমিক পর্যায়ে ছাত্রীদের ফলাফল বিশ্লেষণ করলে দেখবেন, তারা অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে ভালো করছে- যদিও তারা ছাত্রদের সঙ্গেই পড়ছে,'' ডয়চে ভেলেকে বলেন তিনি৷

এরদোয়ানের পৃথক শিক্ষা-পদ্ধতি পরিকল্পনাকে ‘অলীক কল্পনা' হিসাবে অভিহিত করেন নারীবাদী শিক্ষাবিদ আকসু বোরা৷ ‘‘একবিংশ শতকে এসে কোনো নারী, এমনকি রক্ষণশীল নারীরাও এমন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে চাইবে না,'' ডয়চে ভেলেকে বলেন তিনি৷

কামাল আতাতুর্কের হাত ধরে ধর্মনিরপেক্ষ নীতি নিয়ে ১৯২৩ সালে বর্তমান তুরস্ক প্রতিষ্ঠা লাভ করে৷ সে কারণে দেশটিতে নারী-পুরুষের জন্য পৃথক কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই৷

১৯৭৩ সালে পাস করা তুরস্কের জাতীয় শিক্ষা আইনেও বলা আছে, ‘‘নারী-পুরুষের একীভূত শিক্ষাপদ্ধতিই উত্তম৷'' সাংবিধানিকভাবে ধর্মনিরপেক্ষ দেশটিতে সাম্প্রতিক সময়ে নানা রকম ধর্মীয় পদক্ষেপ নিয়ে চলছে এরদোয়ান সরকার৷

বুরচু কারাকাস/এমবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন