নারী নির্যাতনের বর্বরতা রুখতে হোয়াটসঅ্যাপ অভিযান | বিশ্ব | DW | 03.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

নারী নির্যাতনের বর্বরতা রুখতে হোয়াটসঅ্যাপ অভিযান

মহারাষ্ট্রর কঞ্জরভাট জনজাতির মধ্যে বিবাহযোগ্য মেয়েদের কুমারীত্ব পরীক্ষার মধ্যযুগীয় প্রথা আজও চলছে৷ এর বিরুদ্ধে হোয়াটসঅ্যাপ অভিযান শুরু করে কিছু তরুণ-তরুণী৷ এতে ক্ষুব্ধ ঐ সম্প্রদায়ের মুরুব্বিরা গোষ্ঠীকে বয়কটের ডাক দিয়েছে৷

ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের পিম্পরি চিনওয়াড় গ্রাম৷ কুঁড়ে ঘরের দরজার বাইরে রুদ্ধশ্বাসে অপেক্ষা করছে এক নাবালিকা পাত্রীর মা-বাবা৷ ঘরের অদূরে বসে আছে কঞ্জরভাট সম্প্রদায়ের পঞ্চায়েত প্রধান৷ প্রায় ১০-১৫ মিনিট পর একটি ঘরের বন্ধ দরজা খুলে বেরিয়ে আসে বছর চল্লিশের পাত্র৷ বেরিয়েই শুরু করে চিত্কার চেচাঁমেচি৷ হাত-পা ছুঁড়ে বলতে থাকে পাত্রী কুমারী নয়৷ তাই এই বিয়ে অসম্ভব৷ পাত্রী নাকি বিয়ের আগেই পরিবারের মুখ পুড়িয়েছে৷ সাদা বিছানার চাদর দেখিয়ে হবু বর মেয়েটির বাবা-মাকে বলে, এই দেখুন সাদা বিছানার চাদরে রক্তের ছিঁটেফোঁটা পর্যন্ত নেই৷ তার মানে আপনার মেয়ে বিয়ের আগেই কুমারিত্ব হারিয়েছে৷

সঙ্গে সঙ্গে সম্প্রদায়ের পঞ্চায়েত প্রধান জানিয়ে দেয়, মাল খোটা হ্যায়৷ অর্থাৎ মেয়ে অপবিত্র, পোকায় খাওয়া৷ গত রবিবার ছিল ১৫ বছরের নাবালিকা মেয়েটির বিয়ের দিন৷ প্রথা অনুসারে বিয়ের আগের দিন এক বিছানায় সহবাস করে পাত্র তাঁর হবু বৌয়ের কুমারিত্ব পরীক্ষা করে৷

পঞ্চায়েত প্রধান সবিতা নামের পাত্রীকে (পরিবর্তিত নাম) ঘর থেকে তাড়িয়ে দেবার ফরমান দেয়৷ তার আগে সবিতাকে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে মারধর করা হয়৷ মারের চোটে মেয়েটির প্রায় সংজ্ঞাহীন অবস্থা৷ সবিতার মা-বাবা ছেলেটির এবং পঞ্চায়েত প্রধানের হাতে পায়ে ধরে বিয়ে ভেঙে না দেবার জন্য কাকুতি মিনতি করতে থাকলে শেষ পর্যন্ত পাত্রীকে ক্ষমা করতে রাজি হয় তারা৷ তবে একটি শর্তে৷ শর্তটি হলো, উপযুক্ত আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিতে হবে৷ মহারাষ্ট্রের কঞ্জরভাট জনজাতির মধ্যে মেয়ের বিয়ের আগের দিন পাত্রীর কুমারিত্ব পরীক্ষা করার কদর্য প্রথা চলে আসছে কয়েকশ' বছর ধরে৷ কুমারিত্ব পরীক্ষার নামে বিয়ের পাত্রীকে এই জঘন্য নির্যাতনের শিকার হতে হয়৷ যদি পাত্র ঘোষণা করে মেয়ে কুমারি নয়, বিয়ের আগেই তার সতীচ্ছদ ছিন্ন হয়েছে, তাহলে তাকে অকথ্য শাস্তি পেতে হয়৷ যেমন নগ্ন করে দেহের বিভিন্ন অংশে ছ্যাঁকা দেওয়া হয়, গরম তেলে একটি মুদ্রা ফেলে (কয়েন) সেটাকে তুলতে বলা হয়, হাতে গরম ইস্তিরি ঘষে দেওয়া হয় ইত্যাদি৷

কুমারীত্ব সম্পর্কে এই সম্প্রদায়ের বিধিনিয়ম এতই কঠোর এবং মধ্যযুগীয় যে কন্যাসন্তানের অভিভাবকরা মেয়ের বাল্যবিবাহ দিতে চায়, যাতে বিয়ের আগে অন্য সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তে না পারে মেয়েরা৷ শুধু মহারাষ্ট্রেই নয়, রাজস্থানের সানসি উপজাতি সম্প্রদায়েও রয়েছে ‘কুকরি কি রসম' নামে এই কুপ্রথা৷ ফুলশয্যার রাতে নব বিবাহিত দম্পতির বিছানায় সাদা সুতো রাখা থাকে৷ পরের দিন সকালে সেই সুতোতে যদি রক্তের দাগ লেগে থাকে, তাহলে সেই মেয়েকে প্রকৃত কুমারী বলে গণ্য করা হয়৷ যদি সুতোয় রক্তের দাগ না থাকে, তাহলে হবু কনেকে অপবিত্রের লাঞ্ছনা ভোগ করতে হয়৷

অডিও শুনুন 03:41
এখন লাইভ
03:41 মিনিট

‘কুমারিত্ব পরীক্ষা এক ভয়ংকর অভিশাপের মতো’

তবে এই কদর্য প্রথা শুধু উপজাতি সম্প্রদায়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই৷ হায়দ্রাবাদের প্লাস্টিক সার্জেন ভবানি প্রসাদ সংবাদমাধ্যমকে বলেন, কোনো কোনো সম্প্রদায়ের, এমনকি শিক্ষিত পরিবারেও বিয়ে মেনেই নেওয়া হয় না যদি পাত্রীর সতীচ্ছদ অটুট না থাকে৷ তিনি জানান, তাঁর কাছে এমন অনেক পরিবার আসেন যাঁরা তাঁদের বিবাহযোগ্য মেয়ের হিমেনোপ্লাস্টি অপারেশন (সতীচ্ছদ পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া) করাতে চান, যাতে মেয়ের কুমারীত্ব নিয়ে কোনো প্রশ্ন না ওঠে৷ কিন্তু সতীচ্ছদ অটুট থাকলেই যে সেই মেয়ে কুমারী, এটা ভুল ধারণা৷ সন্তানের জন্ম দেবার পরও কোনো কোনো মহিলার সতীচ্ছদ অটুট থাকে৷ আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে শারীরিক পরিশ্রমেও মহিলার সতীচ্ছদ ছিঁড়ে যেতে পারে, বলেন প্লাস্টিক সার্জেন ভবানি প্রসাদ৷

আশার কথা, ঐ সম্প্রদায়ের কিছু শিক্ষিত ছেলে-মেয়ে এই কুপ্রথার বিরুদ্ধে এক জোট হয়েছে৷ মাস দুয়েক আগে প্রিয়াঙ্কা তামাইচেকার নামে এক তরুণী এবং সিদ্ধার্থ ইন্দ্রেকার নামে এক তরুণ একটি হোয়াটসঅ্যাপ গোষ্ঠী গঠন করে কুমারীত্ব পরীক্ষার বিরুদ্ধে শুরু করেছেন অভিযান৷ হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে তাঁরা পৌছাঁতে চাইছেন নবীন প্রজন্মের কাছে৷ নজর রাখছেন যাতে কোনো মেয়েকে এই জঘন্য প্রথার নির্যাতনের মুখে পড়তে না হয়৷

এর জন্য প্রিয়াঙ্কাকে এবং তাঁর পরিবারকে সমাজে একঘরে করা হয়৷ মেয়েটির ভাইকে পাড়ার ক্রিকেট টিম থেকে বাদ দেওয়া হয়৷ কারণ প্রিয়াঙ্কা তাঁদের সমাজের বদনাম করেছে৷ কিন্তু প্রিয়াঙ্কা তাতে ভীত নন মোটেই৷ তিনি মনে করেন, মেয়েদের প্রতি এটা পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থার অভিশাপ৷ এর বিরুদ্ধে লড়ে যেতে হবে৷ যদিও লড়াইটা সহজ নয়৷ ‘‘আমার পরিবার ভয় পেলেও আমার পেছনে আছে তারা'', বলেন প্রিয়াঙ্কা৷

বিয়ের আগে মেয়েদের কুমারীত্ব পরীক্ষার কুপ্রথা এখনও সমাজ কীভাবে বরদাস্ত করছে – এই প্রশ্নটা ডয়চে ভেলে রাখা হয় পশ্চিমবঙ্গের মহিলা কমিশনের প্রাক্তন চেয়ারম্যান সুনন্দা মুখোপাধ্যায়ের কাছে৷ উত্তরে উনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘রামকৃষ্ণ মিশনের মতো সম্মানিত প্রতিষ্ঠানে আজও ঘটা করে কুমারি পূজা হয়৷ সেখানকার ভবতারিণী তান্ত্রিক মতে প্রতিষ্ঠিত দেবী৷ তান্ত্রিকতার এক উপসর্গ নারীকে কেন্দ্র করে পূজার উপাচার বিভিন্ন ফর্মে৷ অক্ষত যোনি বলেই কুমারী মেয়ের পূজা হয়৷ আসলে ‘ভার্জিনিটি টেস্ট', অর্থাৎ কুমারিত্ব পরীক্ষা এক ভয়ংকর অভিশাপের মতো৷ পিতৃতন্ত্রের এক চূড়ান্ত ক্ষত৷ এটা মেয়েদের মেনে নেওয়া বা না নেওয়ার উপর নির্ভরও করে না৷ পরিবারের পুরুষরা তাকে বাধ্য করে৷ পুরাণ ও রামায়ণের সীতা-সাবিত্রী-সতীকেও এমন পরীক্ষা দিতে হয়েছিল৷ ধরেই নেওয়া হয় নারীরা সৎ নয়৷ যৌনতাই হচ্ছে একমাত্র বিচার্য৷ নারীর মেধা, বুদ্ধি বিচার্য নয়৷ পুরুষদের ক্ষেত্রে অবশ্য সেটা হয় না৷ আসলে নারী শরীরে যে ‘প্রোডাক্টিভ সিস্টেম' আছে৷ তাই কথায় কথায় সেটাকে কেন্দ্র করেই সমাজের মধ্যে ঘুরে বেড়ায় মালিন্য৷ অনেক সময় আমরা বলতে শুনি, আমার মা সতী৷ মানে এক পুরুষকে ঘিরেই তাঁর জীবন৷ এর ভেতরেও তো গ্লানি আছে৷ কিন্তু বলার সময় এর অন্তর্নিহিত অর্থ যে বলে সে বোঝে না৷''

আপনার কোনো মতামত থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন