1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: DW

নামিবিয়ায় প্রাণিজগতের সঙ্গে সংঘাত এড়ানোর উদ্যোগ

১১ মার্চ ২০২২

জলবায়ু পরিবর্তনের কুপ্রভাব মানুষ ও বন্যপ্রাণীর জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠছে৷ নামিবিয়ার কিছু মানুষ পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে সংঘাতের বদলে প্রাণিজগতের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে নতুন ছন্দ সৃষ্টির চেষ্টা করছেন৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A3%E0%A6%BF%E0%A6%9C%E0%A6%97%E0%A6%A4%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%99%E0%A7%8D%E0%A6%97%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A6%82%E0%A6%98%E0%A6%BE%E0%A6%A4-%E0%A6%8F%E0%A6%A1%E0%A6%BC%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8B%E0%A6%B0-%E0%A6%89%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%8B%E0%A6%97/a-61094001

সিংহের হামলার কারণে নামিবিয়ার পশু পালনকারী ইমানুয়েল গুরিরাব তার প্রায় অর্ধেক পশু হারিয়েছেন৷ অর্থাৎ, তার সম্পদের একটা বড় অংশ হাতছাড়া হয়ে গেছে৷ বন্য প্রাণীর হামলা ঘটলে সরকার ক্ষতিপূরণ দেয় বটে, কিন্তু সেই অংক বাজারদরের প্রায় অর্ধেকের মতো৷ ইমানুয়েল বলেন, ‘‘মরুভূমির বন্য প্রাণী, সিংহ ও হাতি আমাদের অনেক ক্ষতি করে৷ এখানে বন্য প্রাণী থাকলে আমাদের কোনো উপকার হয় না৷ গবাদি পশুই আমাদের উপার্জনের উৎস, এভাবেই আমাদের আয় হয়৷''

গোয়ালঘরের কাছে গুরিরাব হায়নার তাজা পায়ের ছাপ আবিষ্কার করেন৷ বাদামী হায়না ছাগল শিকার করে না৷ আরো হিংস্র প্রজাতির ডোরাকাটা হায়না হয়তো সেখানে এসেছিল৷ ইমানুয়েল গুরিরাব মনে করেন, ‘‘সরকার হায়না না সামলালে আমাদের হাতে অন্য কোনো উপায় থাকবে না৷ তখন গুলি করে হায়না মারার পরিকল্পনা রয়েছে৷''

পশু পালনকারী হিসেবে ফিনেয়াস কাসাওনাও হায়না ও সিংহ মেরেছেন৷ আজ তিনি আনাবেব অভয়ারণ্যের সদস্য হিসেবে সেই সব প্রাণী সংরক্ষণ করছেন৷ নব্বইয়ের দশক থেকে কাসাওনার মতো চাষি প্রতিবেশীদের সঙ্গে মিলে নিজস্ব এই প্রকৃতি সংরক্ষণ এলাকা গড়ে তোলেন৷ আজ নামিবিয়ার প্রায় এক পঞ্চমাংশ সেই এলাকার আওতায় এসে গেছে

নামিবিয়ায় বন্যপ্রাণীর সঙ্গে মানুষের দ্বন্দ্ব

আগের রাতে প্রতিবেশীর সবজি খেতে হাতির তাণ্ডবের ঘটনা ঘটেছে৷ আগামী রাতগুলিতে কাসাওনা সেখানে পাহারা দেবেন৷ তবে সমস্যা সত্ত্বেও চাষিরা প্রাণী সুরক্ষার পক্ষে৷ ফিনেয়াস কাসাওনা এমনই একজন গবাদি পশু পালনকারী৷ তিনি বলেন, ‘‘পরিস্থিতি বদলে গেছে৷ আগে কোনো গবাদি পশু হায়নার শিকার হলে সেটির পিছু নিয়ে মেরে ফেলা হতো৷ আজ আমরা ভিন্ন এক পৃথিবীতে বাস করি৷ এখন বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আইন প্রণয়ন করা হয়েছে৷ আমরা এখন প্রাণীর দেখাশোনা করলে বরং উপার্জন করতে পারি৷ প্রাণীর সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে চলার চেষ্টা করলে আখেরে লাভ হয়৷''

চাষিরা সীমিত আকারে গবাদি পশু পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যেখানে বন্য প্রাণীর সঙ্গে সহাবস্থান সম্ভব৷ অ্যান্টিলোপ হরিণের সংখ্যা বাড়ার পর থেকে বন্য প্রাণীর হামলাও কমে গেছে৷

পর্যটকদের আগমনের ফলে আনাবেব যথেষ্ট আয় করছে৷ সেই অর্থ কাজে লাগিয়ে বিদ্যুৎ ও পানির সংযোগ এবং একটি কিন্ডারগার্টেন তৈরি করা সম্ভব হয়েছে৷

স্কেলেটন কোস্টের এক রেঞ্জার এমসি ভারওয়েকে জানালেন যে এক হাতি শাবক নিখোঁজ৷ আশঙ্কা সত্য প্রমাণিত হলো৷ টানা খরার কারণে মায়ের বুকে আর দুধ ছিল না বলে শাবকও অভুক্ত ছিল৷ সেটিকে কিছুতেই বাঁচানো গেল না৷ বৈজ্ঞানিক সমন্বয়ক হিসেবে এমসি ভারওয়ে বলেন, ‘‘এটাই এখানকার জীবনের কঠিন বাস্তব৷ সব মরে যাচ্ছে, শুধু তুমি বেঁচে থাকছো৷ সবে গতকাল শাবকটির জন্ম হয়েছিল৷ সত্যি নির্মম বাস্তব, শাবকটি বাঁচার সুযোগই পেলো না৷... আমি সব প্রাণী ভালোবাসি এবং তাদের জন্য সাধ্যমতো সব করছি৷ কিন্তু কোনো এক সময়ে হাল ছাড়তে হয়৷ এখানে মৃত্যু জীবনেরই অংশ৷

দীর্ঘ শুষ্ক মরসুম বেঁচে থাকার সংগ্রাম আরও কঠিন করে তুলছে৷ ফলে বাঁচার তাগিদে হায়না ও অন্যান্য বন্য প্রাণীকে নতুন জায়গার সন্ধান করতে হচ্ছে৷ ভারওয়ের মতো প্রকৃতি সংরক্ষণকারী এবং স্থানীয় সংরক্ষণের উদ্যোগের কল্যাণে মানুষ ও প্রাণিজগত নতুন পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে মরুভূমির কঠিন পরিবেশেও টিকে থাকতে পারবে বলে আশা করা হচ্ছে৷

২০১৮ সালের ছবিঘর

স্টেফান ম্যোল/এসবি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

München Bahn Maskenpflicht

জার্মানিতে আবার ফিরছে করোনা

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ
প্রথম পাতায় যান