নরমপন্থিদের হটিয়ে মন্ত্রিসভায় কট্টরপন্থিরা কেন? | বিশ্ব | DW | 10.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

নরমপন্থিদের হটিয়ে মন্ত্রিসভায় কট্টরপন্থিরা কেন?

ভারতীয় জনতা পার্টি এবং তাদের মাতৃ সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের লুকোনো তাস সামনে এসে পড়েছে৷ বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে স্বপ্নপূরণের পথে এগোচ্ছে তারা৷

২০২৪ সালের নির্বাচনে হিন্দুরাষ্ট্রের ধ্বজা নিয়ে সামনের সারিতে হাজির হতে পারেন যোগী আদিত্যনাথ৷

শুরুটা হয়েছিল বছর পাঁচেক আগে ভারতীয় জনতা পার্টির ‘‌ওল্ড গার্ড'‌ লালকৃষ্ণ আদবানি, মুরলীমনোহর যোশী, শান্তা কুমার, অরুণ শৌরিদের সরকার থেকে সরিয়ে দলের ‘‌মার্গ দর্শন মণ্ডলি'‌তে পাঠানো দিয়ে৷ তারপর ধারাবাহিকতার পদক্ষেপ হিসেবে সামনে এল জাতীয়তাবাদের মুখোশ৷ মুখটা উগ্র দিন্দুত্বের৷ নরেন্দ্র মোদীকে সামনে রেখে এবার হিন্দুরাষ্ট্র গড়ার পথে আরও এক ধাপ এগোল আরএসএস৷ সরলেন সুষমা স্বরাজ, অরুণ জেটলি, উমা ভারতীরা৷ না সরানো হলেও ক্ষমতা খর্ব করা হল রাজনাথ সিংয়ের৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে তাঁকে পাঠানো হয়েছে প্রতিরক্ষায়৷ প্রকৃতপক্ষে মোদীর উত্তরসূরি হিসেবে সংঘ তুলে ধরতে চাইছে উত্তরপ্রদেশের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে৷ এই স্বপ্ন নিয়েই এগোচ্ছে সংঘ৷ গোপন এই ইচ্ছের ছাপ বেশ স্পষ্ট এবারের মন্ত্রিসভায়৷

এবার মন্ত্রিসভায় প্রাধান্য পেলেন কারা?‌ স্বাধীন ভারতে সবচেয়ে কলঙ্কিত অধ্যায় ২০০২ সালের গুজরাটের জাতি দাঙ্গা৷ হিন্দু ও মুসলিম মিলিয়ে সরকারি হিসেবে এক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে সেই দাঙ্গায়৷ মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায় এড়িয়ে যাওয়ার উপায় নেই নরেন্দ্র মোদীর। উঠে এলেন অমিত শাহ৷ যিনি মোদীর ছায়াসঙ্গী হিসেবে পরিচিত৷ যিনি গুজরাট এনকাউন্টার মামলায় অভিযুক্ত ছিলেন৷ যাঁর ছেলে জয় শাহের ব্যবসা রাতারাতি ফুলেফেঁপে ওঠা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা৷ গুজরাটে মোদী মুখ্যমন্ত্রী থাকা কালে তিনি ছিলেন সেখানকার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷ একাধিক অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে৷ এলেন প্রতাপ ষড়ঙ্গী৷ তাঁকে বলা হয়, ‘‌ওডিশার মোদী'‌ যিনি সাধারণ জীবনযাপন করেন৷ অথচ, ১৯৯৯ সালে অস্ট্রেলীয় মিশনারি গ্রাহাম স্টেইন ও তাঁর ১১ ও সাত বছর বয়সী দুই ছেলেকে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্ত তিনি৷ গ্রাহামের ‘‌অপরাধ'‌ ছিল তিনি খ্রীষ্টান৷ বিহার থেকে মন্ত্রিসভায় জায়গা পাকা করে নিয়েছেন গিরিরাজ সিং৷ যিনি ইফতারে অংশ নেওয়ায় দলের নেতাদের প্রকাশ্যে সমালোচনা করেন৷ যিনি কথায় কথায় বিজেপি-‌বিরোধীদের পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেওয়ার কথা বলেন৷ স্বাধ্বী প্রজ্ঞা৷ যিনি মালেগাঁও বোমা বিস্ফোরণের অন্যতম অভিযুক্ত৷ যাঁর দাবি, গো-‌মূত্রে ক্যানসার সেরেছে৷ এবার সঞ্জীব কুমার বলিয়ানের প্রমোশন হয়েছে। এই দাপুটে এন জাঠ নেতা ভারতের এক কলঙ্কিত অধ্যায় ২০১৩ এর উত্তরপ্রদেশের মুজফফরপুর জাতি দাঙ্গায় অন্যতম অভিযুক্ত৷

কেউ বলতে পারেন, আদবানি, যোশী, উমা ভারতীরা বাবরি মসজিদ ধ্বংসে অভিযুক্ত ছিলেন৷ কিন্তু, বিজেপির ওই নেতারা মনে করেন, রাম মন্দির গড়ার আন্দোলনে নাম জড়ানোয় তাঁরা গর্বিত৷

সব দেখেশুনে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশের মত, আরএসএসের অ্যাজেন্ডা অনুযায়ী ভারতকে হিন্দুরাষ্ট্রের দিকে নিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া গতি পেয়েছে৷ মুখে সংখ্যালঘুদের সঙ্গে নিয়ে চলার কথা বললেও মন্ত্রিসভায় পুরোনো মুখ মুক্তার আব্বাস নাকভি ছাড়া আর কেউ নেই৷ থাকবেই বা কী করে?‌ সংখ্যালঘু সাংসদ কই!‌ মন্ত্রিসভায় দলিত মুখই বা কই?‌

অমিত শাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের দায়িত্ব নিয়েই নজর দিয়েছেন রামমন্দির তৈরি করা এবং জম্মু কাশ্মীরে সংবিধানের ৩৭০ ও ৩৫-এ অনুচ্ছেদ বিলুপ্ত করায়৷ হিন্দুত্বের ধ্বজাধারী, দাঙ্গায় অভিযুক্ত এবং মানুষ খুনে অভিযুক্তরা এখন সরকারের মাথায় চড়ে বসলেন৷ সাধারণের বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়, মোদী সরকার কোন দিকে এগোতে চাইছে৷

এবার মোদী মন্ত্রিসভায় দুইজন নরমপন্থি নেতা অরুণ জেটলি ও সুষমা স্বরাজ৷ এই দুই‌জন ছিলেন৷ বিরোধী-‌সহ অন্য সবার সঙ্গে সুসম্পর্ক রয়েছে তাঁদের৷ দুজনই শারীরিক অসুস্থতার কথা জানিয়েছেন৷ কিন্তু, অতীত ঘেঁটে দেখলে বোঝা যাবে অসুস্থ শরীর নিয়ে যদি কোনও একটিমাত্র কাজ করা সম্ভব হয়, তবে তা মন্ত্রীত্ব সামলানো৷ সুষমা এমন এক ভারতীয় নেত্রী যাঁর জনপ্রিয়তা দলমতের গণ্ডি ছাড়িয়ে বহুদূর বিস্তৃত। দেশ-‌বিদেশে তাঁর খ্যাতি ছড়িয়ে রয়েছে। এবার মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছেন জগৎপ্রকাশ নাড্ডা, সুরেশ প্রভু, রাধামোহন সিং, রাজ্যবর্ধন রাঠোর, জয়ন্ত সিনহা, মহেশ শর্মা এবং অনুপ্রিয়া প্যাটেল৷ পশ্চিমবঙ্গে গত নির্বাচনে মাত্র দুটি আসন পেয়েছিল বিজেপি৷ এবার তাদের ঝুলিতে ১৮টি৷ কিন্তু, বাংলা থেকে জয়ী সাংসদদের মধে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত তেমন কেউ নেই৷ তাই মোদী মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পাননি কেউই৷ রাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়েছে বাবুল সুপ্রিয় ও দেবশ্রী চৌধুরিকে৷ এবার কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী করা হয়েছে রমেশ পোখরিয়াল নিশাঙ্ককে৷ যাঁর নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে৷

উত্তরপ্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী এবং লখনউ থেকে জয়ী (‌অটলবিহারীর পর ভারতীয় রাজনীতিতে কৌলিন্য হিসেবে ধরা হত)‌ হয়ে আসা রাজনাথ সিংয়ের ক্ষমতা খর্ব করা হয়েছে৷ তিনিও সংঘের মতাদর্শের মানুষ হলেও নরমপন্থি নেতা হিসেবে পরিচিত৷ বিরোধী শিবিরের তুখোড় নেতা-‌নেত্রীদের শান্ত করতে রাজনাথের জুড়ি মেলা ভার৷ দিল্লির রাজনীতিতে পোড় খাওয়া মানুষ৷ বাজপেয়ীর শিষ্য৷ অমিত শাহকে তুলে আনার জন্য রাজনাথকে সরিয়ে দিয়েছেন মোদী৷ ইঙ্গিত স্পষ্ট৷ ভবিষ্যতে রাজনাথের পরিণতি আদবানির মতো হলে অবাক হওয়ার কিছু নেই৷ এই সিদ্ধান্তের পেছনে মোদীর উত্তরসূরি নির্বাচনের গোপন এক প্রক্রিয়া দেখা যায় বৈকি৷ তবে, কেউ কেউ যেমন বলছেন, মোদির পর অমিত শাহ নন, আদিত্যনাথ৷ গোরক্ষপুর মন্দিরের হত্তাকত্তা৷ রামকৃষ্ণ মিশনের সমান্তরাল সংগঠন চালানোর ক্ষমতাধারী হিন্দুত্বের ধ্বজাধারী এই যোগীকেই ভবিষ্যতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তুলে ধরার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টির মাতৃ সংগঠনের অন্দরে৷ বাহ্যিক ভাবে তেমন প্রয়াস অবশ্য চোখে পড়ে না৷ এই প্রসঙ্গে অতীতে সংঘের নেতা গোবিন্দাচার্যের এক উক্তি মনে পড়ে গেল৷ তিনি বলেছিলেন, ‘‌‘‌আমাদের মুখ অটলবিহারী বাজপেয়ী৷ মুখোশ লালকৃষ্ণ আদবানী৷'‌'‌‌

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন