নন্দীগ্রাম থেকে ভোট লড়বেন মমতা | বিশ্ব | DW | 18.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

নন্দীগ্রাম থেকে ভোট লড়বেন মমতা

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামের প্রথম সভাতেই জানিয়ে দিলেন, ওই আসনে তিনি লড়বেন। মঙ্গলবার জবাব দিতে পারেন শুভেন্দু অধিকারী।

নন্দীগ্রামে তিনিই প্রার্থী হবেন। পূর্ব মেদিনীপুরে সভা করতে গিয়ে জানিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর সোমবারই মমতা প্রথম নন্দীগ্রামে সভা করেন। সেখান থেকেই এই সিদ্ধান্তের কথা জানান মুখ্যমন্ত্রী। অন্যদিকে, মমতা যখন নন্দীগ্রামে তখন দক্ষিণ কলকাতায় কার্যত মমতার গড়ে জনসভা শুরু করেন শুভেন্দু। সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া মেদিনীপুরের নেতা জানিয়েছেন, মমতার সমস্ত প্রশ্নের উত্তর মঙ্গলবারই নন্দীগ্রামে সভা করে দেবেন তিনি।

২০১১ সালের নির্বাচনে নন্দীগ্রাম গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছিল। ২০০৭ সালের ১৪ মার্চ নন্দীগ্রামে গুলি চালিয়েছিল তৎকালীন বামফ্রন্টের পুলিশ। ১৪ জন নিহত হয়েছিলেন। বেশ কিছু মানুষ নিখোঁজ হয়েছিলেন বলে তৃণমূলের দাবি। সেই সময়েই নন্দীগ্রামকে রাজ্য রাজনীতির মূল ইস্যু হিসেবে সামনে নিয়ে এসেছিলেন মমতা। সেখানে তাঁর প্রধান সেনাপতি ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। বস্তুত, পুরো অধিকারী পরিবারই পূর্ব মেদিনীপুরের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে।

২০১১ সালের পর রাজ্যে একটি বিধানসভা নির্বাচন এবং দুইটি লোকসভা নির্বাচন হয়েছে। প্রতিটি ক্ষেত্রেই পূর্ব মেদিনীপুরে শুভেন্দু সহ গোটা অধিকারী পরিবারকে সমস্ত শক্তি দিয়েছেন মমতা। নন্দীগ্রামে সভা করলেও শুভেন্দুকেই সেখানে সব চেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন তিনি। সেই শুভেন্দুই এখন বিজেপিতে। ফলে নন্দীগ্রামকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে নেন মমতা। এদিন তৃণমূল জানিয়েছিল, নন্দীগ্রামে ঐতিহাসিক জনসমাবেশ হবে। বাস্তবে ঐতিহাসিক না হলেও ভালোই লোক হয়েছিল তেখালির মাঠে। শুভেন্দুও দক্ষিণ কলকাতায় জনসভার চ্যালেঞ্জ নেন। এই দক্ষিণ কলকাতা লোকসভা আসন থেকে একাধিকবার জয়ী হয়েছেন মমতা। মমতার বিধানসভা কেন্দ্র ভবানীপুরও দক্ষিণ কলকাতার মধ্যেই পড়ে। মমতা এ দিন জানিয়েছেন, নন্দীগ্রামের পাশাপাশি ভবানীপুর থেকেও লড়বেন তিনি। অর্থাৎ, জোড়া সিটে লড়াই করবেন মমতা। শুভেন্দু চলে যাওয়ার পরে নন্দীগ্রাম যে তাঁর কাছে চ্যালেঞ্জ, এ দিনের সভায় তা স্পষ্ট করে দেন মুখ্যমন্ত্রী।

ঘোষণা না হলেও শুভেন্দুই যে বিজেপির প্রার্থী হিসেবে নন্দীগ্রাম থেকে লড়বেন, তা মোটামুটি স্পষ্ট। ফলে এবার সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁকে রাজনৈতিক দ্বৈরথে দেখা যেতে পারে। নন্দীগ্রামে কার কত শক্তি, তা প্রমাণ হবে ভোটেই।

শুভেন্দু এ দিন জানিয়েছেন, মঙ্গলবারই তিনি নন্দীগ্রামে সভা করবেন। শুভেন্দু ঘনিষ্ঠদের বক্তব্য, মুখ্যমন্ত্রীর সমাবেশ থেকে অনেক বেশি জনসমাগম ঘটবে শুভেন্দুর সমাবেশে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি সেই সভা থেকে শুভেন্দু কী বার্তা দেন, সেটাই এখন দেখার।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশের বক্তব্য, এবারের ভোটে নন্দীগ্রামই রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠল। সেখানে সম্মানের লড়াই হবে। এবং ২০১১ সালে যে নন্দীগ্রাম পালা বদল ঘটিয়েছিল, এবারের ভোটেও সেই নন্দীগ্রাম কিংমেকার হয়ে উঠতে পারে। বস্তুত, নন্দীগ্রামে যদি মমতাকে শুভেন্দু হারিয়ে দিতে পারেন এবং বিজেপি যদি ম্যাজিক ফিগার পার করতে পারে, তাহলে মুখ্যমন্ত্রীর সিংহাসনে শুভেন্দুর দাবি অনেকটাই বেড়ে যাবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। অন্য দিকে, নন্দীগ্রামে মমতার কাছে শুভেন্দু হেরে গেলে তা তাঁর রাজনৈতিক কেরিয়ারে বড়সড় ধাক্কার কারণ হবে। 

তা সত্ত্বেও এই ঝুঁকিটা কেন নিচ্ছেন মমতা? বিশেষজ্ঞদের মতে, ভোটযুদ্ধে অনেক সময়ই এই ধরনের কৌশল নিয়ে থাকেন সেনাপতিরা। বিপক্ষের শক্ত জমিতে গিয়ে চ্যালেঞ্জ জানান তাঁরা। মমতা এখানে সেই কাজটাই করেছেন। শুভেন্দুর খাসতালুকে গিয়ে ভোটে লড়ে তাঁকে ও বিজেপি-কে সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন। তাতে কর্মীরাও উজ্জীবীত হবেন। এতে ঝুঁকি আছে ঠিকই, তবে সফল হলে, বিপক্ষের তুলনায় বেশ কয়েক পা এগিয়ে যাবেন তিনি। অন্তত মনস্তাত্ত্বিক লড়াইয়ে তিনি বিজেপি-কে প্রথম গোলটা দেয়ার চেষ্টা করেছেন।